রেজিস্টার

Sign Up to our social questions and Answers Engine to ask questions, answer people’s questions, and connect with other people.

লগিন

Login to our social questions & Answers Engine to ask questions answer people’s questions & connect with other people.

Forgot Password

Lost your password? Please enter your email address. You will receive a link and will create a new password via email.

Please briefly explain why you feel this question should be reported.

Please briefly explain why you feel this answer should be reported.

Please briefly explain why you feel this user should be reported.

আমরা বিভিন্ন অনুষ্ঠান-মাহফিল ইত্যাদি কুরআন তিলাওয়াত দিয়ে শুরু করে থাকি।…

আমরা বিভিন্ন অনুষ্ঠান-মাহফিল ইত্যাদি কুরআন তিলাওয়াত দিয়ে শুরু করে থাকি।…
প্রশ্ন

আমরা বিভিন্ন অনুষ্ঠান-মাহফিল ইত্যাদি কুরআন তিলাওয়াত দিয়ে শুরু করে থাকি। কুরআন আল্লাহ তাআলার কালাম ও তা তিলাওয়াত করা অনেক বড় সওয়াবের কাজ। তাই সওয়াব ও বরকতের উদ্দেশ্যেই আমরা কুরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানাদি শুরু করে থাকি। কিন্তু আরবের কোনো কোনো আলেম বলেন, অনুষ্ঠানের শুরুতে কুরআন তিলাওয়াত করা নাকি ঠিক নয়। কেউ কেউ এটাকে বিদআতও বলেন। তাদের বক্তব্য হল, অনুষ্ঠানের শুরুতে কুরআন তিলাওয়াতের কোনো প্রমাণ নেই। তাই তা বিদআতের অন্তর্ভুক্ত। তাদের এ বক্তব্য কি সঠিক? এসব ক্ষেত্রে কুরআন তিলাওয়াতের কী হুকুম? দলীল-প্রমাণসহ জানতে চাই।

উত্তর

বৈধ কোনো অনুষ্ঠান ও দ্বীনী মাহফিল কুরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু করা জায়েয এবং বরকতপূর্ণ কাজ। তা সাহাবায়ে কেরামের আমল দ্বারা প্রমাণিত।

এক হাদীসে আছে, আবু সাঈদ খুদরী রা. বলেন,

أصحاب النبي صلى الله عليه وسلم إذا جلسوا كان حديثهم – يعني الفقه – إلا أن يقرأ رجل سورة أو يأمر رجلا بقراءة سورة.

রাসূলুল্লাহর সাহাবীগণ যখন পরস্পর একত্রে বসতেন (এবং তারা ফিকহ ও দ্বীনী বিষয়াদি নিয়ে কথাবার্তা বলতেন) তখন তারা কথাবার্তা শুরুই করতেন না যতক্ষণ না তাদের মাঝে কেউ কোনো সূরা তিলাওয়াত করতেন, অথবা তাদের মাঝে কাউকে আদেশ করতেন কুরআনের কোনো সূরা পাঠ করার জন্য। -মুসতাদরাকে হাকেম, হাদীস ৩২২; আততাবাকাতুল কুবরা, ইবনে সাআদ ২/৩৭৪; আলমাদখাল ইলাস সুনানিল কুবরা, বায়হাকী, হাদীস ৪১৯

খতীব বাগদাদী রাহ. ‘আলজামে লিআখলাকির রাবী ওয়া আদাবিস সামে’ কিতাবে হাদীস ইমলার মজলিসের আদব বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন, হাদীস ইমলা শুরু করার আগে উচিত হল, মজলিসের শুরুতে কুরআন তিলাওয়াত করা। কেননা, মুহাম্মাদ ইবনে আহমাদ আমাদের নিকট বর্ণনা করেন … আবু নাযরা রা. বলেন,

كان أصحاب رسول الله صلى الله عليه وسلم إذا اجتمعوا تذاكروا العلم وقرءوا سورة.

রাসূলুল্লাহর সাহাবীগণ পরস্পর যখন একত্রিত হতেন তখন তাঁরা ইলমের মুযাকারা করতেন। এবং কুরআনের কোনো সূরা তিলাওয়াত তরতেন। -আলজামে লিআখলাকির রাবী ওয়া আদাবিস সামে ২/৬৪

হাফিয সামআনি রাহ. ইবনে কাসীর রাহ. ইমাম নববী রাহ. ও হাফিয সাখাবী রাহ. প্রমূখ মুহাদ্দিসগণ থেকেও অনুরূপ বক্তব্য রয়েছে এবং তাঁরা এর সপক্ষে উক্ত হাদীসগুলো উল্লেখ করেছেন। -আদাবুল ইমলা ওয়াল ইসতেমলা, সামআনী ১/৪৮; আলবা-ইসুল হাসীস, ইবনে কাসীর ১/১৫৩; ফাতহুল মুগীস ৩/২৫৪; তাদরীবুর রাবী ২/৫৭৩

আর সাহাবায়ে কেরামের আমলও শরীয়তের দলীল। যে ব্যপারে সাহাবায়ে কেরামের আমল প্রমাণিত আছে তা কখনো বিদআত হতে পারে না।

সুতরাং অনুষ্ঠান ও দ্বীনী মাহফিলের শুরুতে কুরআন তিলাওয়াত করা সম্পূর্ণ শরীয়ত সম্মত ও সালাফের আদর্শের অন্তর্ভুক্ত। এটিকে ভুল বা বিদআত বলা খুবই অন্যায় কাজ।

প্রকাশ থাকে যে, কোনো বৈধ অনুষ্ঠান বা মাহফিলে কুরআন তিলাওয়াত করতে চাইলে তা অবশ্যই কুরআন মাজীদের আদব রক্ষা করেই করতে হবে। এবং নি¤েœাক্ত বিষয়াদির প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে।

ক) মাইক পরীক্ষার জন্য কুরআন তিলাওয়াত করা যাবে না। এটা কুরআনের আদব পরিপন্থী।

খ) মজলিস এলোমেলো থাকলে মজলিস জমানোর উদ্দেশ্যে কেরাত পড়া হয়। এটাও ঠিক নয়।

গ) শ্রোতাগণ বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকে এবং তারা তিলাওয়াত মনোযোগ সহকারে শুনতে প্রস্তুত থাকে না। তখন তিলাওয়াত করা হয়। এতে মনোযোগসহ শোনা হয় না। তাই এটাও ঠিক নয়।

ঘ) যে অনুষ্ঠানে গান-বাদ্য হবে এ জাতীয় অনুষ্ঠান তিলাওয়াত দ্বারা শুরু করাও অন্যায়।

ঙ) যেসব অনুষ্ঠানে পর্দা পুশিদার ব্যবস্থা নেই কিংবা শরীয়ত গর্হিত বিভিন্ন জিনিস বা কর্মকা- বিদ্যমান সে সব অনুষ্ঠানে কুরআন তিলাওয়াত করাও ঠিক নয়। এতে কুরআন কারীমের অসম্মান হয়। তাই এ থেকে বিরত থাকা জরুরি।

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার

Related Posts

Leave a comment

You must login to add a new comment.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.