আমার জন্ম সাল ২৭-১১-১৯৯১। সেই হিসেবে আমার বর্তমান বয়স ২৪…

প্রশ্ন

আমার জন্ম সাল ২৭-১১-১৯৯১। সেই হিসেবে আমার বর্তমান বয়স ২৪ বছর ২ মাস। ১৩ বছর বয়সে আমি বালেগা হয়েছি। (অর্থাৎ ২০০৪-এ) ২২ বছর বয়স অর্থাৎ ২০১৩ সাল থেকে আমি নিয়মিত নামায, রোযা, বোরকা পরা শুরু করেছি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আমাকে কত বছরের নামায, রোযা কাযা করতে হবে। কেউ কেউ বলে, বালেগা হওয়ার সময় থেকে কাযার হিসাব শুরু হবে। আবার কেউ কেউ বলে, বালেগা হওয়ার পূর্বেই অনেকে নারী পুরুষের পার্থক্য বুঝতে পারে। এজন্যেই অনেকে ৯ বছর থেকে কাযার হিসাব করতে বলেন। এখন আমি সর্বমোট কয় ওয়াক্ত নামায ও কতগুলো রোযা কাযা আদায় করব? নামায রোযা ব্যতীত অন্য কোনো ইবাদাত আছে কি যা আমাকে এখন কাযা করতে হবে? কাযা নামাযের নিয়ত ও কাযা রোযার নিয়ত কিভাবে করতে হবে?

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী আপনি যেহেতু ২০০৪ সালেই প্রাপ্তবয়স্কা হয়েছেন তাই তখন থেকে যতদিন নামায পড়া হয়নি ততদিনের পাঁচ ওয়াক্ত ফরয এবং বিতর নামায হিসাব করে কাযা করতে হবে। তবে মাসিকের দিনগুলোর নামায যেহেতু মাফ তাই সেগুলোর কাযা করতে হবে না। আর বালেগা হওয়ার পর থেকে যতগুলো রমযানে রোযা রাখেননি ততদিনের রোযার কাযা করতে হবে। আর বালেগা হওয়ার পূর্বের নামায-রোযার কাযা করতে হবে না।

আর বিগত বছরগুলোতে আপনার উপর যাকাত ফরয হয়ে থাকলে এবং তা আদায় না করে থাকলে হিসাব করে তা আদায় করতে হবে। এছাড়া হজ্ব ফরয হয়ে থাকলে হজ্বও করে নিতে হবে।

কাযা নামাযের নিয়ত এভাবে করবেন (ফযরের ক্ষেত্রে) আমি অনাদায়ী প্রথম ফজরের নামায আদায় করছি। (যোহরের ক্ষেত্রে) আমি অনাদায়ী প্রথম যোহর নামায আদায় করছি।

এভাবে প্রত্যেক ওয়াক্তে প্রথম অনাদায়ী নামাযটি আদায়ের নিয়ত করবেন।

আর রোযার ক্ষেত্রেও এভাবে নিয়ত করবেন যে, আমি অনাদায়ী প্রথম ফরয রোযা আদায় করছি।

Ñমুসনাদে আহমদ, হাদীস ৯৪০; সহীহ বুখারী, হাদীস ৩২১; আলমুহীতুল বুরহানী ২/৩৫৮; আলবাহরুর রায়েক ২/৭৯; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১২১; আদ্দুররুল মুখতার ২/৭৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.