আযানের জবাব দেওয়ার ফযীলত কী? শুনেছি, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি

প্রশ্ন

আযানের জবাব দেওয়ার ফযীলত কী? শুনেছি, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার জন্য সুপারিশ বা শাফাআত করবেন। কিছুদিন আগে এক আলেম থেকে আরো একটি ফযীলত শুনলাম। তা হল, যে আযানের জবাব দিবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে। পরবর্তী ফযীলত কি ঠিক? এ সম্পর্কে কি কোনো হাদীস আছে?

উত্তর

উভয় ফযীলতই সহীহ। তবে শাফাআত লাভের বিষয়টি মূলত আযানের পর দুআউল ওসীলা পড়ার সাথে সম্পৃক্ত। যেমন হাদীস শরীফে এসেছে- (অর্থ) জাবের রা. থেকে বর্নিত, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি আযান শুনে এই দুআ বলবে,

اللهم رب هذه الدعوة التامة والصلاة القائمة آت محمد الوسيلة والفضيلة وابعثه مقاما محمودا الذي وعدته

তার জন্য আমার শাফাআত অবধারিত হয়ে যাবে। (সহীহ বুখারী, হাদীস : ৬১৪)

আর সহীহ মুসলিমের এক হাদীসে আছে, যে ব্যক্তি অন্তর থেকে অর্থাৎ মনোযোগ সহকারে আযানের বাক্যগুলোর জবাব দিবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে। হাদীসটি হল, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যখন মুআযযিন বলে আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার তখন তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি বলবে আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার … এরপর মুআযযিনের লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ এর জবাবে অন্তর থেকে তাই বলবে সে ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে।

-সহীহ মুসলিম, হাদীস : ৩৮৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার