এক বইয়ে পেয়েছি, কোনো মহিলার যদি শুধু দুই ভরি স্বর্ণ…

0
1
প্রশ্ন

এক বইয়ে পেয়েছি, কোনো মহিলার যদি শুধু দুই ভরি স্বর্ণ থাকে (যার মূল্য সাড়ে বায়ান্ন তোলা রূপার অধিক) তবে সে নেসাবের মালিক হিসেবে গণ্য হবে না। কিন্তু সেই মহিলার কাছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত অল্প টাকাও থাকে তবে সেই টাকা দুই ভরি স্বর্ণের মূল্যের সাথে যোগ হয়ে নেসাব পূর্ণ হবে। সেই হিসেবে বছরান্তে যদি ওই মহিলার কাছে দুই ভরি স্বর্ণের সাথে অল্প টাকাও অতিরিক্ত থাকে তবে তাকে পুরো মূল্যের উপর যাকাত আদায় করতে হবে। মাসআলাটি কি সহীহ?

যদি উপরোক্ত মাসআলাটি সঠিক হয়। তবে ঈদের সময় মহিলারা হাদিয়া হিসেবে যে টাকা পায় এবং সেই টাকা জমিয়ে না রেখে খরচ করার নিয়ত থাকে, তবে কি সেটা ‘‘প্রয়োজনের অতিরিক্ত ’’ টাকা হিসেবে স্বর্ণের মূল্যের সাথে যুক্ত হয়ে ‘নেসাব’ হিসেবে ধর্তব্য হবে? এবং বছরান্তে তার যাকাত দিতে হবে? বিস্তারিত উদাহরণসহ জানালে খুবই উপকৃত হব।

উত্তর

কিতাবের প্রশ্নোক্ত মাসআলাটি সঠিক। দুই ভরি স্বর্ণের সাথে কিছু টাকা থাকলেও স্বর্ণের মূল্য হিসাব করে তা নেসাব পরিমাণ হলে বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পর তার যাকাত দিতে হবে। সুতরাং ঈদের কিংবা অন্য সময়ের জমানো উপহারের টাকা থাকলে তা স্বর্ণের মূল্যের সাথে যাকাতের মধ্যে হিসাবযোগ্য। এমনকি এসব উপহারের টাকা কোনো প্রয়োজনে রেখে দিলেও বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পর তার যাকাত দিতে হবে।

-রদ্দুল মুহতার ২/২৬২; বাদায়েউস সানায়ে ২/৯২; আলবাহরুর রায়েক ২/২০৬; আননাহরুল ফায়েক ১/৪১৫; ফাতহুল কাদীর ২/১৬২; আলবাহরুর রায়েক ২/২৩০; রদ্দুল মুহতার ২/৩০৩; আততাজরীদ ৩/১৩১১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার

LEAVE A REPLY

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.