কাআব ইবন মালিকের কবিতা

কেউ তাদেরকে ভ্রষ্টপথের দিকে আহ্বান করেছে ৷ আর তারাও সে ডাকে সাড়া দিয়েছে ৷
ভ্রষ্টপথে চলার নানাবিধ সুত্র ও উপায়-উপকরণ আছে, যেগুলো সেদিকে যাওয়ার জন্যে খুবই
আকর্ষণীয় ৷

অবশেষে তারা সীমালংঘন করে ও আর্তনাদ করে জাহান্নামের অতল গহ্ববে তলিয়ে
গেছে ৷

এই কবিতার জবাবে লিখিত হারিছের কবিতা ইবন ইসহাক তার গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন ৷
কিন্তু আমরা এখানে তার উল্লেখ থেকে বিরত থাকলাম ৷
কাআব ইবন মালিকের কবিতা
বদর যুদ্ধ সম্পর্কে কাব ইবন মালিক নিম্নলিখিত কবিতা রচনা করেন ৷
অর্থ : আমি আল্পাহ্র ফায়সড়ালায় চমৎকৃত ৷ তিনি যা ইচ্ছা করেন তা বাস্তবায়ন করতে
সক্ষম ৷ আল্পাহ্কে বাধ্য করার শক্তি কারও সেই ৷

বদরের দিনে তার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা সীমালংঘনকারী এক সম্প্রদায়ের মুকাবিলা
করি ৷ আর সীমালংঘনকারীরা মানুষের সাথে জুলুম-অত্যাচারের নীতি অবলম্বন করে থাকে ৷

তারা যে দিন সৈন্যসামন্ত একত্রিত করেছিল এবং আশ-পাশের লোকদেরও যুদ্ধে শরীক
হওয়ার জন্যে আহ্বান জানিয়েছিল ৷ ফলে তাদের দলে সৈন্যসংখ্যা অনেক বেশী হয়ে যায় ৷

বনু কাআব ও বনু আমির সহ সকলেই আমাদের দিকে এগিয়ে আসে ৷ আমরা ছাড়া আর
কেউ তাদের আক্রমণের লক্ষ্যবন্তু ছিল না ৷

আর আমাদের মাঝে রয়েছেন আল্লাহ্র রাসুল তার চারপাশে আছে আওস গোত্রের লোক
-যারা ছিল রাসুলের জন্যে দুর্গের ন্যায় শক্তিশালী ও সাহায্যকারী ৷

তার পতাকা তলে রয়েছে বনু নাজ্জারের দল ৷ হালকা ও সাদা বর্ম পরিধান করে তারা ধুলি
উড়িয়ে সম্মুখে অগ্রসর হচ্ছে ৷

আমরা যখন তাদের মুখোমুখি হই, তখন আমাদের প্রতিটি মুজাহিদ তার সাথীকে উৎসাহ
যােপায় ও দৃঢ়পদে অবস্থান করে ৷

আমরা সাক্ষ্য দিই যে, আল্লাহ্ ছাড়া আর কোন প্রভু নেই এবং আল্লাহ্র রাসুল সত্য নিয়ে
জয়ী হন ৷

তখন সাদা ও হালকা তরবারি খাপ থেকে বের করা হল ৷ দেখে মনে হচ্ছিল তা যেন
অগ্নিশিখা ৷ উত্তোলনকারী যেন তোমার দৃই চোখের সামনে নড়াড়াচাড়া করে চোখ ঝলসে দিঙ্গে ৷

এসব তরবারি দিয়ে আমরা তাদের দলকে বিধ্বস্ত করে দিয়েছি ৷ ফলে তারা ছত্রতংগ হয়ে
পড়ে এবং যারা তাদের মধ্যে উদ্ধত, তারা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে ৷

শেষে দেখা গেল, আবু জাহ্ল উপুড় হয়ে পড়ে আছে, আর উতবাকে তারা ৰিপর্যস্ত
অবস্থায় ছেড়ে চলে যায় ৷

শায়বা ও তায়মীকে তারা রণক্ষেত্রে ফেলে চলে যায় ৷ এরা সকলেই ছিল আরশের
অধিপতির অবাধ ৷

এর ফলে তারা তাদের চিরস্থায়ী ঠিকানা জাহান্নামের ইন্ধনে পরিণত হল ৷ প্রত্যেক
কাফিরের গম্ভব্যস্থল হচ্ছে জাহান্নাম ৷

লৌহ-দও ও প্রস্তরে পরিপুর্ণ সে জাহান্নামেব অগ্নিশিখা তাদের উপর প্রজ্বলিত হচ্ছে প্রচণ্ড
তাপের পুর্ণ যৌবন সহকারে ৷

রাসুলুল্লাহ্ তাদেরকে বলেছিলেন, তোমরা আমার কাছে এসো ! বিন্দু তারা মুখ ফিরিয়ে নিল
এবং বলল, তুমি তো একজন জাদুকর ৷

আল্লাহ্র ফায়সালা ছিল কড়াফিররা এখানে ধ্বংস হয়ে ৷ আর আল্লাহর ফায়সালা বাতিল
করার সাধ্য কারও নেই ৷
বদর যুদ্ধ সম্পর্কে কাআব ইবন মালিক আরও বলেন :

অর্থ : শুনাে৷ বনু পাসৃসানের বাড়ীঘর দুরে হওয়া সত্বেও কি তাদের নিকট এ সংবাদ
পৌছেছে ? আর কোন বিষয়ের সংবাদ সেই উত্তমভাবে বলতে পারে যে সে বিষয়ে ভালভাবে
জ্ঞাত ৷
এই সংবাদ যে মাআদ বংশের মুর্থ ও জ্ঞানী সকলে মিলে আমাদের প্রতি তীর-ধনুক তাক
করেছে শত্রুতারশত ৷
শত্রুতা এ জন্যে যে, দায়িত্বশীল রাসুল যখন আমাদের মাঝে অড়াসলেন তখন আমরা
জান্নাতের আশায় আল্লাহ্র দাসতু কবুল করি, অন্য কারও দাসতৃ করি না ৷

তিনি এমন একজন নবী , যিনি নিজ কওমের মধ্যে উত্তরাধিকার সুত্রে সম্মানের অধিকারী,
সৎ গুণারলীর অধিকারী ৷ তাকে তার বংশীয় ঐতিহ্য মহান ব্যক্তিত্বে গড়ে তুলেছিল ৷

তারাও অগ্রসর হল, আমরাও অগ্রসর হলাম যখন আমরা পরস্পরে মুখোমুখি হলাম, তখন
আমাদেরকে সিংহের মত মনে হল যায় ধারা থেকে বীচাৱ আশা করা যায় না ৷

আমরা তাদেরকে তরবারি দ্বারা আঘাত হানি ৷ আমাদের প্রচণ্ড আঘাতে লুআই বংশের বড়
বড় নেতা ও বীর অতি শোচনীয় ভাবে গর্তেব মধ্যে উপুড় হয়ে পড়তে লাগলো ৷

অবশেষে তারা রণে তংগ দিয়ে পলায়ন করল আর আমরা সাদা ঝলমলে ধারাল তরবারি
দ্বারা তাদেরকে সাবাড় করে দিতে লাগলাম এবং এ বিষয়ে তাদের ও তাদের মিত্রদের মধ্যে
পার্থক্য করতাম না সমানে হত্যা করেছি ৷

এ প্রসংগে কাআব ইবন মালিকের আরও কবিতা

অর্থ : হে লুআই-এব পুত্রদ্বয় ৷ তোমাদের পিতার শপথ, তোমাদের অহংকার ও পর্বের
উপর ৷

বদর যুদ্ধে তোমাদের অশ্বারোহীরা ৫৩ ৷মাদেরকে মোটেই রক্ষা করতে পারেনি ৷ আর
মুকাবিলার সময়ও ত ৷রা দৃঢ়ভা বে টিকে থাকতে পারেনি ৷

আমরা আল্লাহ্র নুর নিয়ে সেখানে উপনীত হই, যা আমাদের :থকে অন্ধকার ও আবরণ
দুর করে আলোক-উদ্ভাসিত করে দেয় ৷

তিনি হলেন আল্লাহ্র রাসুল, যিনি আল্লাহ্র একটি নির্দেশের দিকে আমাদের অগ্রসর
করাচ্ছিলেন ৷ আল্লাহ্র চুড়ান্ত ফায়সালায় তা দৃঢ়ভা লাভ করে ৷

এ কারণে বদরে তোমাদের অশ্বারোহী বাহিনী জয়ীও হতে পারেনি এবং তোমাদের নিকট
সহীহ্-সালামতে প্রত্যাবর্তনও করতে পারেনি ৷

অতএব, হে আবু সুফিয়ানা তাড়াহুড়া করো না; বরং কুদ৷ উপত্যকা ৷হতে উত্তম ঘোড়া
বেরিয়ে আসা র অপেক্ষা কর ৷

সে দলের সাথে থাকবে আল্লাহর সাহায্য, থাকবে রুহুল কুদ্স জিবরাঈল ও মীককাি
ফেরেশতা ৷ কতই না উত্তম হবে যে দল !

হাসৃসান ইবন ছাবিতের কবিতা
নিম্নে উল্লিখিত কবিতাটি করি হাসৃসান ইবন ছাবিতের ৷ কিন্তু ইবন হিশাম বলেছেন, কেউ
কেউ একে আবদুল্লাহ ইবন হারিছের কবিতা বলে দাবী করেন ৷
অর্থ : তাদের সম্মুখে ছিলেন এমন এক মহান ব্যক্তিতু, র্ষার বাহ্যিক আলামত ছিল পরিধাঙ্গে
কড়া লাগান শক্ত লৌহ-বর্ম ৷ তিনি ছিলেন কােমলহৃদয়, দৃঢ়চেতা ও নির্তীক ৷
অর্থাৎ- তিনি সৃষ্টি জগতের স্রষ্টা কর্তৃক প্রেরিত রাসুল মাঝে তিনি তাকওয়া ৩
বদান্যতা দ্বারা সৃষ্টির উপর শ্রেষ্ঠতৃ দান করেছেন ৷

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Pin It on Pinterest

Hatay masaj salonu Diyarbakır masaj salonu Adana masaj salonu Aydın masaj salonu Kocaeli masaj salonu Muğla masaj salonu Yalova masaj salonu Gaziantep masaj salonu Kütahya masaj salonu Elazığ masaj salonu Bursa masaj salonu Konya masaj salonu Samsun masaj salonu Mersin masaj salonu Manisa masaj salonu Afyon masaj salonu Kütahya masaj salonu Çanakkale masaj salonu Edirne masaj salonu Yozgat masaj salonu Çorum masaj salonu>