in

মাযহাব বনাম আহলে হাদীস হিংসাত্বক ও আক্রমনাত্বক পোস্ট এড়িয়ে চলুন

ইদানিং কিছু পোস্টে দেখা যায় আহলে হাদীস শায়েখদের ছবি একত্রিত করে অসভ্য ভাষায় যা ইচ্ছা তা বলা হয়। এসব কোনদিন সমাধানের পথ হতে পারেনা। কতিপয় গন্ডমূর্খ ব্যতিত এসব কাজ কেউ করতে পারেনা। এসব করে আপনি মাযহাবী হতে পারেন না। কোন মাযহাব এটা জায়েয করেনি।

আবার আহলে হাদীস অনুসারীদের অনেকে কওমী আলেমদের ছবি একত্রিত করে তারাও একই কাজ করে যাচ্ছে।এসব পোস্টে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও অপবাদ দেয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এসমস্ত কর্মকান্ডের পক্ষ্যে তারা কোন সহীহ হাদীস দেখাতে পারবেনা। তাহলে সহীহ হাদীস বলে লাফিয়ে লাভটা কি হল???

এসব করার আগে মুসলিম ভাতৃত্য নিয়ে একটু ভাবা দরকার ছিল। একজন মুসলিমকে অপমান করা, তার সম্পর্কে বদনাম করা, অপবাদ দেয়া এটা কোন সাধারন বিষয় নয়। চরম ভ্রষ্টতা ছাড়া এসব কিছুই নয়। শুধু আলেম ওলামা নয় সর্বসাধারন মুসলিমের ব্যাপারে বলছি বরং আলেমদের ব্যাপারে তা আরও বেশি মারাত্বক অপরাধ।

হিংসাত্বক ও আক্রমনাত্বক পোস্টগুলো এড়িয়ে চলুন। কোন ধরনের লাইক কমেন্ট শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন।

এসমস্ত পোস্ট যারা করে তাদের ব্যাপারে রিপোর্ট করুন ফেইসবুকে। কোন ধরনের গ্রুপে এদের পোস্ট যাতে এপ্রুভ করা না হয়।

What do you think?

Written by Qawmi Admin

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

GIPHY App Key not set. Please check settings

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি প্রতিষ্ঠান আল_জামিয়া আল_ইসলামিয়া পটিয়ার বার্ষিক জলছা ১৮

একটি লোমহর্ষক ও মর্মস্পর্শী ঘটনা” রক্তের ফোঁটা নয়, অশ্রুর ফোঁটাতো দিতে পারবো?