buy Instagram followers
kayseri escort samsun escort afyon escort manisa escort mersin escort denizli escort kibris escort

এ সনের অন্যান্য ঘটনা

অনেকগুণে ভাল ৷ আর যদি কুরায়শরা জয়লাভ করে, তাহলে আমরা যে তাদের সংগে আছি এটা
তো তারা জানেই ৷ তারা সমস্বরে বলল, এটাই সঠিক সিদ্ধান্ত ৷ আমি আবার বললাম, চল
যাওয়ার কালে নাজ্জার্শীর দরবারে আমাদের দেশ হতে কিছু উপচৌকন নিয়ে যাই ৷ আমাদের দেশ
থেকে যেসব হাদিয়া সাধারণত ঐ দেশে যায় এগুলোর মধ্যে চামড়াই হল প্রধান ও তার কাছে
অতিপ্রিয় ৷ এই সিদ্ধান্ত মৃত তাবিক আমরা বহু চা ৷মড়৷ সংগ্রহ করলাম এবং বের হয়ে পড়লাম ও
নাজ্জাশীর ওখানেগ্ গিয়ে পৌছলাম ৷ আল্লাহর শপথ, আমরা যখন তার কাছে পৌছলাম, তখন
সেখানে ছিল আমর ইবন উমাইয়া আদ দিমারী ৷ রাসুলুল্লাহ্ (সা)ত তাকে একটি পত্র সহকারে
নাজ্জাশীর নিকট প্রেরণ করেছিলেন তাতে আবু সুফিয়ান (রা) এর কন্যা উম্মে হাবীবার বিয়ের
প্রভাব ছিল ৷ তারপর তিনি নাজ্জাশীর কাছে গেলেন এবং পরে বের হয়ে আসলেন ৷ আমি আমার
সাথীদেরকে বললাম, ইনি হচ্ছেন আমর ইবন উমাইয়া আদ-দিমারী ৷ যদি আমি কিছুক্ষণ পুর্বে
নাজ্জাশীর কাছে প্রবেশ করতে পারতাম এবং তাকে বলতে পারতাম তাহলে তিনি তাকে আমার
হাতে সােপর্দ করতেন এবং আমি তাকে হত্যা করতে পারতাম ৷ যদি আমি তা করতে পারতাম ৷
তাহলে কুরায়শরা আমাদের প্রতি প্রসন্ন হত ৷ আমি তাদের থেকে বাহব৷ পেতাম এবং মুহাম্মাদের
দুতকে হত্যা করতে পারতাম ৷ এরপর আমি নাজ্জাশীর কাছে প্রবেশ করলাম এবং আমাদের প্রথা
অনুযায়ী তাকে সিজদা করলাম ৷ তিনি বললেন স্বাগতম স্বাগতম হে আমার বন্ধু ! তোমার দেশ
হতে কি কোন হাদিয়া নিয়ে এসেছ ? আমি বললাম, জী হ্যা রাজন ! আপনার জন্য অনেকগুলো
চামড়া হাদিয়া স্বরুপ নিয়ে এসেছি ৷ত তারপর এগুলো আমি তার কাছে পেশ করলাম ৷ তিনি
এগুলো খুবই পসন্দ করলেন এবং তার সভাসদদের মধ্যেও কিছুটা ভাগ করে দিলেন ৷ আর
বাকীগুলাে একটি স্থানে রাখতে বলেন এবং তালিকাভুক্ত করে সংরক্ষণের জন্যে নির্দেশ দিলেন ৷
যখন আমি তাকে পােশ মেজাষে দেখতে পেলাম তখন বললাম, রাজন ! আমি একটি লোককে
দেখতে পেলাম আপনার কাছ থেকে বের হয়ে গেল ৷ যে আমাদের শত্রুর দুত ৷ সেই শত্রু
আমাদের উপর যুলুম করেছে এবং আমাদের সম্মানিত ব্যক্তিবর্গকে হত্যা করেছে ৷ তাই
লোকটাকে আমার হাতে তুলে দিন যাতে করে আমি তাকে হত্যা করতে পারি ৷ এ কথা শুনে
নাজ্জাশী রেগে গেলেন এবং আমার উপর হাত উঠালেন ৷ তিনি আমার নাকে এত জোরে আঘাত
করলেন যে, আমার মনে হয়েছিল যেন তা তে ঙ্গে গেছে ৷ নাক দিয়ে জোরে রক্ত পড়তে লাপল ৷
আর আমি আমার কাপড় দ্বারা তা মুছতে লাগলাম ৷ আমি এত অপমানিত বোধ করলাম যে, যদি
আমার জরু ন ভুমি বিদীর্ণ হয়ে যেত তাহলে আমি মাটির ভিতর ঢুকে পড়তাম ৷ এরপর আমি
বললাম, হে রাজন ! যদি আমি ধারণা করতে পারতাম যে, আমি যা “বলেছি তাতে আপনি ক্ষুদ্ধ
হবেন, তাহলে আমি কোনদিনও এ কথা মুখে উচ্চারণ করতাম না ৷ নাজ্জাশী তাতে একটু লজ্জিত
হলেন এবং বললেন, হে আমর ! তুমি আমার কাছে আবেদন করছ এমন লোকের দুতকে হত্যা
করার জন্যে, তোমার হাতে তুলে দেয়ার জন্যে যার কাছে নামুসে-আকবর’ আসা যাওয়া করেন ৷
যেমন৩ তিনি আসা যাওয়া করতেন হযরত মুসা (আ) এর কাছে এবং যিনি হযরত ৩ঈসা (আ) এর
কাছেও আসতেন ৷ আমর বলেন এরপর আল্লাহ তা মালা আমার অন্তরে যা কিছু ছিল তা
পরিবর্তন করে দিলেন ৷ আমি আমার নিজেকে সম্বোধন করে বলতে লাপলাম আরব ও অনারব
সকলেই যে সত্যটি উপলব্ধি করেছে তুমি তার বিরোধিতা করহু ৷ এরপর আমি বাদশাকে

বললাম, হে বাদশা, আপনি কি এটার সত্যতা সম্পর্কে সাক্ষ্য দিচ্ছেন ? তিনি বললেন, “হীা, হে
আমর আমি এটা সম্পর্কে আল্লাহর কাছে সাক্ষ্য দিচ্ছি ৷ সুতরাং তুমি আমার অনুকরণ কর এবং
তার আনুগত্য স্বীকার করে নাও ৷ কেননা, আল্লাহ্র শপথ ! তিনি সত্যের উপর রয়েছেন ৷ আর
যারা তীর বিরোধিতা করছে তাদের উপর তিনি জয়লাভ করবেন ৷ যেমন মুসা (আ) ফিরআওন ও
তার সৈন্যদলের উপর জয়লাভ করেছিলেন ৷ আমি বললাম, আপনি কি আমার ইসলামের বায়আত
গ্রহণ করবেন ? তিনি বললেন, “হ্যা, এবং এ বলে তীর হ স্ত প্রসারিত করেন ৷ আর আমাকে
ইসলামের বাইয়াত গ্রহণ করান ৷ এরপর তিনি একটি চিলিমচী চেয়ে পাঠালেন এবং আমার রক্ত
ধুয়ে দিলেন ৷ আর আমাকে উত্তম জামা-কাপড় পরতে দিলেন ৷ আমার কাপড়গুলো রক্তে রঞ্জিত
হয়ে গিয়েছিল ৷ আমি সেগুলো ফেলে দিলাম ৷ এরপর আমি আমার সাথীদের কাছে ফিরে
আসলাম ৷ তারা আমার পরনে নাজ্জাশী প্রদত্ত জামাকাপড় দেখতে পেয়ে খুশী হলো এবং বললাে,
তুমি কি তোমার বন্ধুর নিকট কাত্তিক্ষত বন্তুটি হাসিল করতে পেরেছ ? উত্তরে আমি তাদেরকে
বললাম, “প্রথমবারে তীর কাছে এ ব্যাপারে কথা বলাটা ভাল মনে করিনি ৷ পুনরায় তার কাছে
যাব ৷” তারা বলল, “তুমি যা ভাল মনে করে তইি করবে ৷ এরপর আমি তাদের থেকে বিচ্ছিন্ন
হয়ে পড়লাম ৷ মনে হচ্ছে যেন আমি অন্য কোন দরকাবে কােথায়ও যাচ্ছি ৷ সুতরাং আমি জাহাজ
ঘাটের দিকে অগ্নসর হলাম, লক্ষ্য করলাম একটি জাহাজ যাত্রীতে পুর্ণ হয়ে গেছে ও ছেড়ে
যাচ্ছে ৷ আমি যাত্রীদের সাথে জাহাজে উঠলাম ৷ মাল্লারা জাহাজ ছেড়ে দিল ৷ যখন তারা
দু’পাহাড়ের মধ্যবর্তী একটি অবতরণস্থলে পৌছলো তখন আমি জাহাজ থেকে অবতরণ করলাম ৷
আমার সাথে আমার পথ-খরচের অর্থরুসম্পদ ছিল ৷ আমি একটি উট খরিদ করলাম এবং মদীনায়
উদ্দেশ্যে বের হয়ে পড়লাম ৷ মার্কয যাহ্ৱান নামক স্থানে গিয়ে আমি পৌছলাম ৷ তারপরেও
চলতে লাগলাম ৷ যখন আল-হুদা নামক স্থানে পৌছলাম তখন দেখি দুই ব্যক্তি আমার কিছুক্ষণ
পুর্বে সেখানে পৌছেছে এবং সেখানে অবতরণের ইচ্ছা পোষণ করছে ৷ তাদের একজন তাবুর
ভিতরে প্রবেশ করেছে এবং অন্য একজন দুইটি যান বাহনকে ধরে রয়েছে ৷ এরপর আমি
তাকিয়ে দেখি খালিদ ইবন ওয়ালীদকে ৷ তীকে বললাম, “কোথায় যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করছ ?
সে বলল, “মুহাম্মাদের কাছে লোকজন ইসলাম গ্রহণ করে চলছে ৷ সুরুচিপুর্ণ কেউ একটা বাকী
নেই ৷ আল্লাহর শপথ ! যদি আমি নিক্রিয় থাকি তাহলে মুহাম্মাদ (সা) আমাদেরকে এমনভাবে
ধরবে, যেমন হায়েনাকে তার গুহায় আটক করা হয় ৷” আমি বললাম , আল্লাহ্র শপথ ! আমিও
মুহাম্মাদ (না)-এর উদ্দেশ্যে যেতে এবং ইসলাম গ্রহণ করতে চাই ৷ উছমান ইবন তালহা (রা)
তাবু থেকে বের হয়ে আমাকে স্বাগত জানালেন ৷ আমরা সকলেই এ মানযিলে অবতরণ ও
অবস্থান করলাম ৷ এরপর আমরা একত্রে মদীনায় আগমন করলাম ৷ মদীনায় আমরা যত লোকের
সাথে সাক্ষাত করেছি আবু উতবা এর ন্যায় আর কেউ আমাদেরকে এত উচ্চস্বরে স্বাগত
জানায়নি ৷ দেখামাত্র তিনি উচ্চস্বরে ইয়া রাবাহ ! ইয়া রাবাহ ! ইয়া রাবাহ ! স্বাগতঃ ধ্বনি বলতে
লাগলেন ৷ তীর কথায় আমরা শুভ লক্ষণ মনে করলাম এবং অত্যন্ত খুশী হলাম ৷ এরপর তিনি
আমাদের দিকে তাকালেন এবং তাকে বলতে শুনলাম ৷ তিনি বলছিলেন, “এ দুজনের ইসলাম
গ্রহণের পর নেতৃত্ব মক্কায় চলে যাচ্ছে ৷ এ দুজন দ্বারা আমাকে এবং খালিদ ইবন ওয়ালিদকে
বুঝাতে চেয়েছিলেন ৷ তখন তিনি দৌড়িয়ে মসজিদে চলে গেলেন ৷ আমি ধারণা করলাম যে,

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Pin It on Pinterest