Register Now

Login

Lost Password

Lost your password? Please enter your email address. You will receive a link and will create a new password via email.

এ সম্পর্কিত আরও কয়েকটি আশ্চর্য ঘটনা

এ সম্পর্কিত আরও কয়েকটি আশ্চর্য ঘটনা

অবশ্য মুমিনদের প্রতি শত্রুতায় মানুষের মধ্যে ইহুদী ও মুশরিকদেরকেই তুমি সর্বাধিক
উঃ৷ দেখবে এবং যারা বলে আমরা খৃক্টান’ মানুষের মধ্যে তাদেরভ্রুইে তুমি মৃমিনদের নিকটতর
বন্ধুরুপে দেখবে ৷ কারণ, তাদের মধ্যে অনেক পণ্ডিত ও সংসারবিরাগী আছে, আর তারা
অহংকারও করে না ৷ (৫ মাযিদা : ৮২)

এই আয়াত নাযিল হওয়ার পর রাসুলুল্লাহ (সা) আমাকে ডেকে পাঠান ৷ আমি ভীত মনে
হাজির হয়ে তার সামনে বসলাম ৷ তিনি বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম পড়ে

তিলাওয়াত করলেন তারপর বললেনং :

সালমান! তুমি যাদের সাহচর্ষে ছিলে তারা এবং তোমার সেই সঙ্গী নাসার৷ ছিল না ৷ তারা
ছিল মুসলিম ৷

আমি বললাম, ইয়৷ রাসুলাল্লাহ! যে সত্তা আপনাকে সত্যসহ প্রেরণ কারছেন, তার শপথ
আমার সঙ্গী লোকটি আমাকে আপনার আনুগত্য করার আদেশ করেছিলেন ৷ তখন আমি তাকে
বলেছিলাম, যদি তিনি আমাকে আপনার দীন ত্যাগ করতে বলেন তাহলে? জবাবে তিনি
বলেছিলেন হা, তাহলে তুমি আমার দীন বর্জন করে তাকেই অনুসরণ করবে ৷ কারণ তিনি
যা আদেশ করবেন সত্য এবং আল্লাহর সত্তুষ্টি তারই মধ্যে নিহিত

এই বর্ণনায় বহু বিষয় গরীব পর্যায়ের রয়েছে ৷ তাছাড়া এটা মুহাম্মদ ইবন ইসহ্াকের
বর্ণনার সঙ্গে কিছুটা সাংঘর্ষিক ৷ ইবন ইসহাকের বর্ণনার সুত্র অধিক নির্ডাযোপ্য এবং বুখারীর
বর্ণনার সঙ্গে অধিক সামঞ্জস্যপুর্ণ ৷ বুখারীর এক সুত্রে সালমান ফারসী (রা ) থেকে বর্ণিত আছে
যে, তিনি পর্যায়ক্রমে তেরজন গুরুর শিষ্যতু গ্রহণ করেছিলেন ৷ এক গুরু তাকে অপর গুরুর
নিকট প্রেরণ করেছিলেন ৷

সুহায়লীর মতে তিনি ত্রিশজন মনিবের হাত বদল হয়েছিলেন ৷ এক মনিব তাকে অপর
মনিবের হাতে ত্যু ল দেয় ৷ হাফিজ আবু নু আয়মের দালায়িল গ্রন্থের এক বর্ণনায় আছে যে,
সালমান ফারসী (বা) যে মহিলা মনিবের সঙ্গে মুকা৩ ৷তা বা(মুক্তিপণ চুক্তি) করেছিলেন, তার নাম
ছিল হালবাসাহ ৷

এ সম্পর্কিত আরও কয়েকটি আশ্চর্য ঘটনা

আবু নুআয়ম তার দালাযিল গ্রন্থে বর্ণনা করেন যে, সাঈর ইবনে সাওয়াদ৷ আল আমেরী
বলেন, একটি উন্নত জাতের উট আমার অত্যন্ত প্রিয় ছিল ৷ সে উটের পিঠে চড়ে ব্যবসার
উদ্দেশ্যে আমি দুর-দুরান্ত সফর করতাম ৷ একবার আমি ব্যবসার পণ্য নিয়ে সিরিয়া থেকে মক্কায়
আসি ৷ সফর শেষে কোন এক রাতে মক্কায় এসে উপনীত হই ৷ রাতের আধার কেটে জোাৎস্না
এলো ৷ হঠাৎ মাথা তুলে আমি দেখতে পেলাম , পাহাড়ের মত উচু কয়েকটি র্তাবু ৷ তাবুগুলাে
তায়েফের চামড়ায় ঢাকা ৷ তারই পার্শে কয়েকটি উট জবাই করা হলো আর কয়েকটি উট
কোথায় যেন নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ৷ সম্মুখের পাত্রে খাদ্যদ্রব্য রাখা ৷ কয়েকজন লোক বলছে,

আপনারা তাড়াতাড়ি আসুন, আপনারা তাড়াতাড়ি আসুন ৷ অপর এক ব্যক্তি এক উচুন্থানে
দাড়িয়ে উচ্চস্বরে বলছে : ওহে আল্লাহর যেহমানগণ ! আপনারা খেতে আসুন ৷ আরেকজন
সিড়িতে দাড়িয়ে বলছে, আপনাদের যাদের খাওয়া শেষ হয়েছে, চলে যান; আবার রাতের
খাওয়ার অংশ নেবেন ৷ এসব দেখে আমার চোখ ছানাবড়া ৷ আমি সর্দারের সঙ্গে দেখা করার
উদ্দেশ্যে এগিয়ে গেলাম ৷ আমাকে আমার একজন সঙ্গী চিহ্ন ফেলে ৷ সে বলল, আপনি সামনে
এগিয়ে যান ৷ সামনে এগিয়ে গিয়ে আমি একজন প্রবীণ ব্যক্তিকে দেখতে পেলাম ৷ লোকটির
দু’চোয়াল দাগে ভরা ৷ ব্যক্তিত্বের জ্যেড়াতি যেন তার দুই কপােল থেকে ঠিকরে পড়ছে ৷ মাথায়
তার কালো পাগড়ি ৷ পাগড়ির পাশ দিয়ে কালো চুল দেখা যাচ্ছিল ৷ আর হাতে একটি লাঠি ৷
তার চারপাশে আরো কয়েকজন প্রবীণ লোক উপবিষ্ট ৷ তারা সকলেই নীরব ৷ সিরিয়া থেকে
আসা একটি সংবাদের প্রতি তাদের সকলের দৃষ্টি নিবদ্ধ ৷ সংবাদটি হলো : নিরক্ষর নবীর
তারকা উদয়ের এটিই সময় ৷ প্রবীণ লোকটিকে দেখে আমি ভাবলাম , ইনিই বুঝি তিনি ৷ তাই
আমি বললাম, আসসালুমা আলাইকা ইয়া রাসুলাল্লাহ! তিনি বলালন, থাম, থাম, আমি নই ৷
তুমি আমাকেই নবী বানিয়ে ফেললে ৷ বিব্রত হয়ে অমি জিজ্ঞেস করলাম, ইনি তাহলে কে?
পার্শের লোকেরা জবাব দিল, ইনি আবু নাজলাহ-মানে হাশিম ইনক্রুন অড়াবদে মানাফ ৷ আমি
বললড়াম, আল্লাহর শপথ, ইনি নিশ্চয়ই সিরিয়ার গাসৃসানের নয়; বরং আরবের কোন সম্রাম্ভ
ব্যক্তি হবেন ৷ উল্লেখ্য যে, হাশিম ইবনে আবদে মানড়াফের যে আপ্যায়নের কাহিনী বর্ণনা করা
হলো, তা ছিল রিফাদাহ’ তথা হজ্জ মওসুমে হড়াজীদের আপ্যায়ন ৷

অপর এক সুত্রে অড়াবু নুআয়ম আবু জাহম থেকে বর্ণনা করেন যে, আমি শুনেছি, আবু
তড়ালিব আবদুল মুত্তালিব থেকে বর্ণনা করেছেন, আবদুল মুত্তালিব বলেন :

একদিন আমি হিজরে অর্থাৎ হড়াতীমে ঘুমিয়ে ছিলাম ৷ এই যুগে ভয়ানক এক স্বপ্ন দেখে
আমি আতৎকিত হয়ে উঠলাম ৷ ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে আমি এক জোণতিষিণীর নিকট গেলাম ৷
আমার পায়ে ছিল নকশী রেশমী চাদর এবং আমার লম্বা চুল ঘাড়ে ঝুলছিল ৷ আমার প্রতি
দৃষ্টিপাত করে তিনি আমার চেহারায় পরিবর্ত্যব্ টের পেয়ে যান ৷ আমি তখন আমার সমাজের
নেতা ৷ ৫জ্যাতিষিণী বললেন, ঘটনা কী? আমাদের সরদার এমন বিবর্ণ চেহড়ারায় আমার নিকট
আসলেন কেন? কোন বিপদ-আপদে পড়েছেন বুঝি? আমি বললাম হয় ৷ তার নিয়ম ছিল, কেউ
তার নিকট আসলে প্রথমে আণভুককে তার জ্ঞান হাত চুম্বন করতে হতো এবং তার মাথার
তালুতে হাত রাখতে হতো ৷ এরপর তার সঙ্গে কথা বলার ও সমস্যার কথা জানানোর সুযোগ
পাওয়া যেত ৷ সমাজের নেতা হওয়ার কারণে আমি এসব করলাম না ৷

এবার আমি বসে বললাম, গত রাতে আমি হিজরে ঘুমিয়ে ছিলাম ৷ দেখি, একটি গাছ মাটি
থেকে অংকুরিত হয়ে বড় হয়ে আকাশ ছুই ছুই করছে ৷ ডালগুলাে ছড়িয়ে পড়েছে পৃথিবীর পুর্ব
থেকে পশ্চিম পর্যন্ত ৷ গাছটি এতই আলোকময় যে, তার চেয়ে উজ্জ্বল আলো আমি আর
দেখিনি ৷ সুর্যের আলো থেকে তা ছিল সত্তুর গুণ বেশি ৷ আরও দেখলাম, আরব আজম তাকে
সিজদা করে আছে ৷ প্রতি মুহুর্তে গাছটির পরিধি, ঔজ্জ্বল্য ও উচ্চতা বেড়েই চলেছে ৷ পাছটি
ঔজ্জ্বল্য ক্ষণে খানিকটা স্নান হয় আবার পরক্ষণে উজ্জ্বল হয় ৷ আমি আরও দেখলাম, কুরায়শের

একদল লোক গাছটির ভাল ধরে ঝুলে আছে ৷ কুরায়শেরই অপর একটি দল পাছটি কেটে
ফেলার চেষ্টা করছে ৷ কাটার উদ্দেশ্যে তারা গাছের নিকটে গেলে এক যুবক তাদের হটিয়ে
দেয় ৷

সেই যুবকের মত এত সুশ্রী আর সৌরভময় যুবক আমি আর কখনো দেখিনি ! যুবক
পিটিয়ে তাদের হাড়-গােড় ভেঙে দিচ্ছিলেন এবং চোখ উপড়ে ফেলছিলেন ৷ আমি দু’হাত
বাড়িয়ে গাছ থেকে কিছু নিতে চাইলাম ৷ কিন্তু যুবক আমাকে বারণ করল ৷ আমি বললাম,
তাহলে এ গাছ কাদের জন্য? তিনি বললেন, যারা গাছ ধরে ঝুলে আছে এবং যারা তোমার
আগে এসেছে, এ গাছ তাদের জন্য ৷ এতটুকু দেখার পর এক ভীত-সন্ত্রস্ত অবস্থায় আমার ঘুম
ভেঙে যায় ৷

আমি দেখতে পেলাম স্বপ্নের বিবরণ শৃনে জোাতিষিণীর চেহারার রং পাল্টে গেছে ৷ সে
বলল, আপনার স্বপ্ন যদি সত্য হয়ে থাকে, তাহলে আপনার বং শ ন্নণ্ন্বন এক ব্যক্তি জন্ম নেবেন
যিনি পুর্ব থেকে পশ্চিম পর্যন্ত গোটা পৃথিবীর রাজা হবেন ৷ মানুষ তার ধশ্ৰুমত গ্রহণ করবে ৷

এই ঘটনার বিবরণ দেওয়ার পর আবদুল মুত্তালিব আবু তালিবকে বললেন, উক্ত সভানটি
বোধ হয় তুমিই হবে ৷

রাসুলুল্লাহ (না)-এর জন্মের এবং নবুওত লাভের পর আবু তালিব প্রায়শই এই ঘটনাটি
বলে বেড়াতেন ৷ তারপর তিনি বলেন, আবুল কাসেম আল আমীনই ছিল সেই গাছ ৷ মানুষ আবু
তালিবকে জিজ্ঞেস করত, আপনি কি তার প্ৰতি ঈমান আনবেন না? জবাবে তিনি বলতেন,
গালমন্দ আর নিন্দার ভয়েই তো তা পারছি না ৷

আবু নুআয়ম ইবনে আব্বাস (বা) থেকে বর্ণনা করেন যে , আব্বাস (রা) বলেন, ব্যবসা
করার জন্য এক কাফেলার সঙ্গে আমি ইয়ামন যাই ৷ সেখানে একদিন আমি খাবার তৈরি
করতাম এবং আবু সুফিয়ান ও অন্যদের নিয়ে থেতাম, অন্যদিন আবু সুফিয়ান রান্নবােন্না
করতেন এবং সকলকে নিয়ে থেতেন ৷ একদিন আমার রান্নার পালা ছিল ৷ আবু সুফিয়ান
বললেন, আবুল ফযল তুমি কি আহার্য ও সঙ্গীদের নিয়ে আমার বাসস্থানে আসবে? আমি রাজী
হলাম ৷ সেখানে আবু সুফিয়ান ছিলেন কাফেলার অন্যতম সদস্য ৷ আমরা ইয়ামন পৌছলাম ৷
একদিন আহার শেষে অন্যদের বিদায় করে একাভে বসে আবু সুফিয়ান আমাকে বললেন,
আবুল ফয়ল ! আপনি কি জানেন যে, আপনার ভাতিজা মনে করে যে, সে আল্লাহর রাসুল ? আমি
বললাম , আমার কোন ভাতিজা ৷ আবু সুফিয়ান বললেন, আমার নিকটও বিষয়টি গোপন করছেন
দেখছি? একজন ছাড়া আপনার কােনৃ ভাতিজা এমনটি বলতে পারে? আমি বললাম , বলুন না,
আপনি কার কথা বলছেন? তিনি বললেন, আবদৃল্লাহর পুত্র মুহাম্মদ ৷ আমি বললাম , এই কাজ
করে ফেলেছে ও? তিনি বললেন, ইব্র৷ করে ফেলেছে ৷ এই বলে তিনি হড়ানযালা ইবনে আবু
সুফিয়ানের পাঠানো একটি পত্র বের করে দেন ৷ তাতে লেখা আছে : আমি আপনাকে অবহিত
করছি যে, মুহাম্মদ আবৃতাহে দাড়িয়ে ঘোষণা দিয়েছে যে, “আমি রাসুল ৷ আপনাদেরকে আমি
মহান আল্লাহর পথে আহ্বান করছি ৷” আব্বাস (রা) বলেন, জবাবে আমি বললাম , হে আবু
হানযালা৷ আমি তো তাকে সত্যবাদীই পাচ্ছি ৷ আবু সুফিয়ান বললেন, থাম হে আবুল ফযল ৷

আল্লাহর শপথ ৷ মুহাম্মদ এমনটি বলুক, আমি তা পছন্দ করি না ৷ হে আব্দুল মুত্তালিবের পুত্র
ওর এরুপ কথায় আমি ক্ষতির আশংকা করছি ৷ আমি আল্লাহর শপথ করে বলছি, কুরায়শরা
এমনিতেই বলাবলি করছে যে, তোমাদের হাতে বহু ক্ষমতা পুঞ্জীভুত হয়ে আছে ৷ আমি
আপনাকে দােহাই দিয়ে জিজ্ঞেস করছি হে আবুল ফযল ! আপনি কি ঐ কথাটা শুনেননিঃ আমি
বললাম, হীা, শুনেছি বটে ৷ আবু সুফিয়ান বললেন, আল্লাহর কসম, এটা তোমার অকল্যাণ বয়ে
আনবে ৷ আমি বললাম, হতে ৩পারে এটা আমাদের জন্য কল্যাণই বা? র আনবে ৷

এরপর অল্প ক’দিন যেতে না য়েতেই আবদুল্লাহ ইবনে হুযাফ৷ খবর নিয়ে এলেন ৷ তখন
তিনি ঈমান এনেছেন ৷ সেই খবর ইয়ামনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ছড়িয়ে পড়ে ৷ আবু সুফিয়ানও
ইয়ামনের এক মজলিসে বসতে ন ৷ এক ইহুদী পণ্ডিত সেই মজলিসে আঃলাচনা করতে ন ৷ সেই
ইহুদী৷ আ বু সুফিয়া নকে জিজ্ঞেস করলেন যে , আমি জা নতে পেলাম যে, এই যে লোকটি কি যেন
বলেছে, তার চাচা নাকি আপনাদের মধ্যে আছেন? আবু সুফিয়ান বললেন, ঠিকই শুনেছেন
আমিই তার চাচা ৷ ইহুদী বললেন, মানে, আপনি তার পিতার ত ই আবু সুফিয়ান বললেন,
হী৷ ৷ ইহুদী বললেন, তবে তার সম্পর্কে বলুন ৷ আবু সুফিয়ান বললেন, আমাকে এসব জিজ্ঞেস
করবেন না ৷ ও এমন কিছু দাবি করুক, আমি কখনোই তা পছন্দ করব না ৷ আবার তার
দােষও বলব না ৷ তবে তার চেয়ে উত্তম মানুষও তো আছে ৷ এতে ইহুদী বুঝতে পারলেন যে,
আবু সুফিয়ান মিথ্যাও বলতে পারছেন না আবার তার দোষও বলতে চাচ্ছেন না ৷ তাই তিনি
বললেন, এতে ইহুদী ও মুসার তাওরাতের কোন ক্ষতি হবে না ৷

আব্বাস (বা) বলেন, তারপর ইহুদী পণ্ডিত আমাকে ডেকে পাঠান ৷ আমি পরদিন সেই
মজলিসে গিয়ে বসি ৷ আ বু সুফিয়ান ইবনে হারব ও সেই মজলিসে উপ ৩ছিলেন ৷ পণ্ডিত তাে
আছেনই ৷ আমি পণ্ডিত কে বললাম, খবর পেলাম, আপনি আমার চাচাতে৷ ভাই এর নিকট সেই
ব্যক্তি সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন, যার ধারণা সে আল্লাহর রাসুল? আর আপনাকে তিনি উক্ত
ব্যক্তির চাচা বলে পরিচয় দিয়েছেলঃ তিনি তাে তার চাচা নন ৷ তিনি তার চাচ্যা: তা ভাই ৷ তার
চাচা হলাম আমি, মানে আমি তার পিতার ভাই! পাদ্রী অবাক হয়ে বললেন, আপনি তার পিতার
তাই আমি বললাম হীা, আমি তার পিতার ভাই ৷ শুনে পণ্ডিত আবু সুফিয়ানের প্ৰতি মুখ
ফিরিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, ইনি কি সত ৷ বলেছেলঃ আবু সুফিয়ান বললেন, হ্যা, সত্য বলেছেন ৷
আমি বললাম, আরো কিছু জানবার থাকলে আমাকে জিজ্ঞেস করুন, যদি আমি মিথ্যা বলি,
তাহলে ইনি তার প্রতিবাদ করবেন ৷ এবার পণ্ডিত আমার প্রতি ৩মুখ ফিরিয়ে বললেন, দােহাই
আপনার, সত্য বলবেন ৷ আপনার তা ৷তিজার কি কারো প্রতি আসক্তি ছিল, না সে মুর্থ? আমি
বললাম না, আবদুল মুত্তালিবের প্রভুর শপথ সে মিথ্যাও বলেনি, খিয়ান৩ ও করেনি ৷ কুর ৷য়শেব
নিকট তার নাম ছিল আল-আমীন ৷ পণ্ডিত বললেন, যে কি কখনো নিজ হাতে লিখেছে?
আব্বাস (রা) বলেন, আমি মনে করলাম, নিজ হাতে লিখেছে বললেই বোধ হয় তার পক্ষে
কল্যাণকর হবে ৷ ফলে তাই বলতে চেয়েছিলাম ৷ কিত্তু পরে আবু সুফিয়ানের উপস্থিতির কথা
মনে পড়ল ৷ ভাবলাম, একথা বললে তো তিনি তার প্রতিবাদ করবেন ও আমাকে মিথ্যা
প্রতিপন্ন করবেন ৷ তখন আমি বললাম , না, সে লিখতে জানে না ৷

এ তথ্য শুনে পণ্ডিত লাফিয়ে ওঠেন ৷ তবে তার পায়ের চাদর খসে পড়ে ৷ তিনি বললেন,
ইহুদীরা জবাই হয়ে গেছে, ইহুদীরা খুন হয়ে গেছে! আব্বাস (রা) বলেন, তারপর আমরা যখন
বাড়ি ফিরে আসি, তখন আবু সুফিয়ান বললেন, আবুল ফযল ! ইহুদীরা তো তোমার ভাতিজার
নাম শুনলে তাতকে ওঠে ৷ আমি বললাম , আপনি তো যা দেখার তাই দেখেছেন ৷ আমিও তাই
দেখছি ৷ আচ্ছা, তার প্রতি ঈমান আনতে আপনার অসুবিধা কোথায় ? হে আবু সুফিয়ান ! সে যদি
হক হয়ে থাকে, তাহলে আপনি সকলের অড়াগে-ভাগে ঈমান এনে ফেললেন ৷ আর যদি সে
বাতিলই হয়ে থাকে, তাহলে মনে করবেন আপনার আরো সমমর্যাদার আর দশজন যা করল,
আপনি তইি করলেন ৷ আবু সুফিয়ান বললেন, আমি তার প্রতি ঈমান আনব না যতক্ষণ না
আমি কোদায় ঘোড় সওয়ার বাহিনী দেখব ৷ আমি বললাম, আপনি কী বলছেনঃ তিনি বললেন,
মুখে একটি কথা এসে গেল , তাই বললাম ৷ অন্যথায় আমি জানি, কােদা থেকে বেরিয়ে আসার
জন্য আল্লাহ কোনো ঘোড় সওয়ার বাহিনী ছেড়ে দেবেন না ৷ অহুব্বাস (রা ) বলেন, যখন
রাসুলুল্লাহ (সা) মক্কা বিজয়ের জন্য আসলেন এবং আমরা কোদা থােপ্ক তার ঘোড়সওয়ার
বাহিনী বেরিয়ে আসছে দেখতে পাই তখন আমি আবু সুফিয়ানকে জিজ্ঞেস করলাম, আবু
সুফিয়ান কথাটা কি এখন আপনার মনে পড়ছে? আবু সুফিয়ান বললেন, আল্লাহর শপথ, মনে
পড়ছে বৈ কি ৷ আমি প্রশংসা করছি সেই আল্লাহর , যিনি আমাকে ইসলামের পথ দেখিয়েছেন ৷

এ বর্ণনাটি হাসান পর্যায়ের ৷ এ থেকে সত্যের আভা ফুটে উঠছে; যদিও এর কোন কোন
বর্ণনাকারীর ব্যাপারে বিতর্ক রয়েছে ৷ এর আগে আমরা উমাইয়া ইবনে আবৃস সালত এর সঙ্গে
আবু সুফিয়ড়ানের ঘটনার কথা উল্লেখ করেছি ৷ সেই ঘটনার সঙ্গে আলোচ্য ঘটনার মিল আছে ৷
আবার পরে রোম সম্রাট হিরাক্লিয়াসের সঙ্গে তার যে ঘটনা ঘটেছিল, তাও উল্লেখ করা হবে ৷
রোম সম্রাট হিরাক্লিয়াস আবু সুফিয়ানকে রাসুলুল্লাহ (না)-এর গুণ-পরিচয় সম্পর্কে জিজ্ঞেস
করেছিলেন এবং তা থেকে নবী করীম (না)-এর সত্যতা, নবুওত ও রিসালাতের প্রমাণ পেয়ে
বলেছিলেন : আমি জানতাম যে, তিনি আত্মপ্রকাশ করবেন ৷ কিন্তু তিনি যে আপনাদের মধ্য
থেকে হবেন, তা অবশ্য ধারণা করিনি ৷ আমি যদি জানতাম যে, আমি আমার দায়িত্ব ছেড়ে তার
কাছে যেতে পারব তাহলে তার সাক্ষাতের জন্য কষ্ট করে হলেও চলে যেতাম ৷ যদি আমি তার
কাছে থাকতাম, তাহলে আমি তার দু’পা ধুয়ে দিতাম ৷ তুমি যা বলেছ, যদি সব সত্য হয়ে
থাকে, তা হলে অবশ্যই তিনি আমার এই দু’পায়ের জাযগাটুকুরও অধিকারী হবেন ৷ প্রকৃতপক্ষে
ঘটেছেও তাই ৷

আমর ইবনে ঘুররা আল জুহানীর কাহিনী

তাবারানী বর্ণনা করেন যে, ইয়াসির ইবন সুওয়াযদ (বা) বরড়াতে বলেছেন যে, জুহানী
বলেন, আমি জাহেলী যুগে আমার সম্প্রদায়ের এক দল লোকের সঙ্গে হজ্জ করতে যাই ৷ মক্কায়
অবস্থানকালে একদিন আমি স্বপ্নে দেখলাম, এক খণ্ড আলো কাবা থেকে বিচ্ছুরিত হয়ে
ইয়াসরিরের পর্বত পর্যন্ত আলোকিত হয়ে গেছে ৷ আমি শুনতে পেলাম যে, সেই আলোক খণ্ডের
মধ্য থেকে কে যেন বলছে, অন্ধকার বিদুরিত হয়েছে, আলো বিচ্ছুরিত হয়েছে আর শেষ নবী
প্রেরিত হয়েছেন ৷ এরপর আলোক খণ্ডটি আরো উজ্জ্বল হয়ে যায় ৷ আমি হীরার রাজপ্রাসাদ ও

Leave a reply