জামাত.আহলে হাদীস এবং কওমী মাদ্রাসার কিছু সংখ্যক অবুঝ ভাইয়েরা “চরমোনাই” নিয়ে ফেসবুকে যেই ইস্যুটিকে নিয়ে সর্বোচ্চ তর্কে মেতে উঠেন

জামাত.আহলে হাদীস এবং কওমী মাদ্রাসার
কিছু সংখ্যক অবুঝ ভাইয়েরা “চরমোনাই”
নিয়ে ফেসবুকে যেই ইস্যুটিকে নিয়ে
সর্বোচ্চ তর্কে মেতে উঠেন.সেটা হলো
“ভেদে মারেফাত ও আশেক মাশুক”
চরমোনাইর দাদা হুজুর সৈয়দ এসহাক (রহঃ)
এর লেখা বহু আগের বই এই দুটো॥
.
যার অংশ
বিশেষ (কিছু আল্লাহর ওলিদের কারামত)
নিয়ে তাদের মাঝে আপত্তি আছে।
সাধারণ পাবলিককে কার্টিং পার্ট বা দু এক
লাইন পড়িয়ে বিভ্রান্ত করছে, যারা
চরমোনাইর বিদ্বেষী।
.
এই বইদুটোকে নিয়ে বলতে
গেলে বলতেই হয় যে এই বইগুলো বর্তমানে
বিলুপ্ত প্রায়।
.
বর্তমান
সময়ে আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি
চরমোনাইর মুরিদদের মধ্যে গড় প্রতি ১০
হাজার জনের ভিতর ১ জনও এই বই
দুটোপড়েনা,
.
যেটাকে আপনি শিরকী বই বলে
সম্বোধন করছেন।
.
আরে ভাই!
গত (২০১৭ সালের) ফাল্গুনের চরমোনাই
বাত্সরিক মাহফিলে নায়েবে আমির হয়রত
মাওঃ মুফতি সৈয়দ ফয়জুল
করীম কাসেমী সাহেব দাঃবাঃ লক্ষ লক্ষ
তৌহিদি জনতার সামনে এই বই দুটো
সম্পর্কে বলেছেনঃ-
যে আমাদের দলিল
কুরআন.হাদীস.ইজমা.কিয়াস।
.
দাদা হুজুরের বই . আমার বয়ান.
পীর সাহেব হুজুরের বয়ান. মরহুম পীর সাহেব
রহঃ এর বয়ান. দাদা হুজুর রহঃ এর বয়ান
আমাদের দলিল নয়।
.
.
আমাদের দলিল কুরআন.হাদিস.ইজম
া.কিয়াস॥
.
আমরা যদি চেষ্টা করি.তাহলে আজকেই সব
বই পুড়িয়ে ফেলবো।
.
কিন্তু কুরআন হাদিস মোতাবেক তার
ভূলগুলো আমাদেরকে ধরিয়ে দেন।
.
আপনাদের আমি দাওয়াত দিচ্ছি চরমোনাই
মাদ্রাসায় আসুন. এখানে অনেক
মুফতি সাহেব আছে।
.
তাদের কাছে আসুন॥ভূল গুলো ধরিয়ে দিন॥
আমরা সকল বই পুড়িয়ে ফেলবো॥
ইনশাআল্লাহ॥
.
.
.
.
আমি ফেসবুকে সমালোচনা কারী ভাইদের কে
বলতে চাইঃ-
মুহতারাম ভাইয়া!
আপনি কী আল্লামা শফী দাঃ বাঃ,
আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দাঃবাঃ,
আল্লামা
ওলীপুরী দাঃবাঃ, মুফতি মিযান সাহেব দাঃবাঃ,
আল্লামা মাহফুজুল
হক হাফিজাহুল্লাহ্দের থেকেও বড়
বুজুর্গানে দ্বীন,আলেম হয়ে গেছেন????
.
কোনোদিন তাদের মুখে শুনছেন এই সব
আলেমদের মুখে এই বই দুটো নিয়ে
আপনাদের মত ফাও প্যাচাল পাড়তে?
.
.
.
আরে ভাই!
একটুকু জেনে রাখেন,
চরমোনাইর পীর সাহেব হুজুর একাধিক
শায়েখের থেকে খেলাফত পেয়েছেন এবং
নায়েবে আমীরও একাধিক শায়েখের থেকে
খেলাফত পেয়েছেন।
তান্মধ্যে, পীর সাহেব হুজুরকে খেলাফত
দিয়েছেন দারুল উলুম দেওবন্দেও প্রধান
মুফতি, মুফতিয়ে আযম আল্লামা হাবিবুর
রহমান খায়েরাবাদী হুজুর এবং নায়েবে
আমীরকে খেলাফত দিয়েছেন হোসাইন
আহমাদ মাদানী (রহঃ) বিশিষ্ট খলিফা,
বাংলাদেশের বর্তমান একমাত্র নক্ষত্র
শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ্ আহমাদ শফী
হাফিজাহুল্লাহ্….
.
সুতরাং জামাত হোক,আহলে হাদীস
হোক,জমিয়ত হোক, ঐক্যজোট হোক বা
অন্যকেউ হোক চরমোনাইর দিকে
ফেসবুকে
বা বাস্তবে বিক্ষিপ্ত বালু উড়ানোয়
বাতাস চরমোনাইর প্রতিকূলে থাকায় সেই
বালু তাদের চোখে গিয়ে পড়বে!

`
অপপ্রচারকারী ভাইদের প্রতি আহবানঃ
১// ভাই, পৃথিবীর ইতিহাসে কখনও কারো
সমালোচনা করে কেউ বড় হতে পারি নি।
.
২// কারো সাথে কেউ হিংসা করে আজ
পর্যন্ত বড় হতে পারি নি,ইতিহাস সাক্ষী।
.
৩// বরং হিংসা, বিদ্বেষ, সমালোচনা
আপনার ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে চলছে।
.
৪// আপনার সংগঠন নিয়ে ভাবতে ভাবতে
সময় চলে যাবে নিজেকে সময় দেওয়ার
সুযোগ পাবেনই না তাহলে অন্যের সংগঠন
নিয়ে ভাবার সময় কই?
.
.
.
আল্লাহ তায়ালা আমাদের সকলকে
অপপ্রচার থেকে হেফাজত করুন।
আমিন॥
.
(কপি/শেয়ার করে আপনিও এই পোষ্ট টি
ছড়িয়ে দিতে পারেন সর্বত্র॥)
মোঃ আরিফ সরকার

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Pin It on Pinterest

Share This