দরসে নেজামীর আসল ইতিহাস

(পরিচিত একজন কথা প্রসঙ্গে বললেন , বাগদাদের জামিয়া নিজামিয়াতে নিজামুল মুলক যে পাঠ্যক্রম তৈরী করেছিলেন তাই উপমহাদেশের মাদ্রাসাসমূহে দরসে নেজামি নামে পরিচিত। যদিও আলেমদের বেশিরভাগই এই তথ্য জানে না। হুবহু একই ধরনের কথা শুনেছিলাম পাকিস্তানি টিভি উপস্থাপক যায়েদ হামিদের মুখেও। এদের কথা বাদই দিলাম। অনেক সময় দরসে নেজামীতে পড়ুয়া অনেককেও দেখা যায় দরসে নেজামীকে নিজামুল মুলকের পাঠ্যক্রম বলে পরিচয় দিতে। এ বিভ্রান্তির নিরসন করতেই এই লেখা)
নিজামুল মুলক
নিজামুল মুলকের জন্ম ১০১৮ খ্রিস্টাব্দে (৪০৮ হিজরী)। তুস শহরে। ১১ বছর বয়সে হিফজ শেষ করেন। এরপর তাফসীর, হাদিস ও শাফেয়ী ফিকহে পান্ডিত্য অর্জন করেন।(১) প্রথমদিকে তিনি গজনীর সুলতানদের অধীনে চাকরি করতেন। পরে সেলজুকি সাম্রাজ্যের উজির হন। আলপ আরসালান (১০৬৩-১০৭২) ও মালিক শাহ সেলজুকির (১০৭২-১০৯২) রাজত্বকাল পর্যন্ত তিনি এই পদে ছিলেন। উজিরের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি উচ্চশিক্ষার জন্য বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন। বাগদাদ ও অন্যান্য শহরে স্থাপিত নিজামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় তার অন্যতম প্রধান কীর্তি। আলেমদের খুব সম্মান করতেন। আজানের শব্দ শুনলে সব কাজ থামিয়ে দিতেন। (২) রাজত্বের উপর লিখিত তার সিয়াসতনামা গ্রন্থটি তার পান্ডিত্যের প্রমান বহন করে। ৪৮৫ হিজরির ১০ রমজান (১৪ অক্টোবর ১০৯২ খ্রিষ্টাব্দ) ইসফাহান থেকে বাগদাদ যাওয়ার পথে আততায়ীর হাতে তিনি নিহত হন।
মাদরাসার সূচনা
ইসলামের ইতিহাসে মাদরাসার সূচনা হয়েছে মসজিদ থেকেই। সাহাবায়ে কেরাম ও তাবেঈনদের যুগে কোনো মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করা হয় নি। তখন মসজিদেই পাঠদানের কাজ চলতো। ঐতিহাসিক মাকরেজির মতে হিজরী চতুর্থ শতাব্দীর পরে স্বতন্ত্র মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করা হয়। (৩) বিখ্যাত ভূগোলবিদ মাকদেসী হিজরী চতুর্থ শতাব্দীতে মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল সফর করেন। তার লেখাতেও দেখা যায় হিজরী চতুর্থ শতাব্দীতে মসজিদেই দরস দেয়া হতো। (৪) প্রথম মাদ্রাসা কোনটি তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না । আল্লামা ইবনে খাল্লিকান যদিও জামেয়া নিজামিয়া বাগদাদ (প্রতিষ্ঠা ৪৫৮ হিজরী) কে প্রথম মাদ্রাসা মনে করেন (৫), কিন্তু আল্লামা তাজ উদ্দিন সুবকী নিশাপুরের অন্তত চারটি মাদ্রাসার কথা লিখেছেন যেগুলো জামিয়া নিজামিয়ার আগে প্রতিষ্ঠিত। (৬) ড. নাজি মারুফের অনুসন্ধান মতে জামেয়া নিজামিয়া নিশাপুর , জামেয়া নিজামিয়া বাগদাদের ৮ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত হয়। (৭) ঐতিহাসিক মাকরেজির মতে সর্বপ্রথম নিশাপুরের মাদ্রাসা বাইহাকিয়্যা প্রতিষ্ঠিত হয়। (৮) জালালুদ্দিন সুয়ুতী লিখেছেন ৪০০ হিজরীতে মিসরে একটি মাদ্রাসা নির্মাণ করা হয়।(৯) ঐতিহাসিক কাসেম ফেরেশতা লিখেছেন ৪১০ হিজরীতে মাথুরায় সুলতান মাহমুদ গজনভী একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। (১০)
জামেয়া নিজামিয়া বাগদাদ
জামেয়া নিজামিয়া বাগদাদের নির্মানকাজ শুরু হয় ৪৫৮ হিজরীতে। এর প্রতিষ্ঠার পেছনে আছে চমৎকার এক ঘটনা। ঐতিহাসিক সদরুদ্দিন আবুল হাসান লিখেছেন, একবার সুলতান আলপ আরসালান গেলেন নিশাপুরে। তার সফরসংগী হলেন নিজামুল মুলক। সেখানকার জামে মসজিদের সামনে কজন ফকীহ দাঁড়িয়ে ছিলেন। সুলতান জিজ্ঞেস করলেন, এরা কারা? নিজামুল মুলক বললেন, এরা আলেম। মানুষদের মধ্যে সবচেয়ে উত্তম। তারা দুনিয়ার স্বাদ ত্যাগ করে আত্মার উতকর্ষ সাধনে নিয়োজিত আছেন। আপনি যদি অনুমতি দেন তাহলে সকল শহরে এমন একটি প্রতিষ্ঠান নির্মান করবো যেখানে তারা কাজে নিয়োজিত থাকবেন। সরকারী কোষাগার থেকে তাদের বেতন দেয়া হবে। তারা ইলম প্রচার করবেন ও আপনার জন্য দোয়া করবেন। সুলতান এ প্রস্তাবে সন্তুষ্ট হয়ে অনুমতি দিলেন। সে বছরই মাদরাসার নির্মান কাজ শুরু হয়। (১১)
১ অক্টোবর ১০৬৫ খ্রিস্টাব্দে বাগদাদের পূর্ব প্রান্তে দজলা নদীর তীরে এক প্রশস্ত জমিতে জামিয়া নিজামিয়ার নির্মান কাজ শুরু হয়। নির্মান কাজের উদ্বোধন করেন শায়খ আবু সাদ সুদী নিশাপুরী। দুই বছর পরে ১৩ সেপ্টেম্বর ১০৬৭ খ্রিস্টাব্দে এর নির্মান কাজ শেষ হয়। মাদরাসার চারপাশে বাজার নির্মান করা হয়। এই বাজার মাদরাসার জন্য ওয়াকফ করা হয়। মাদ্রাসার নির্মানকাজে ৬০ হাজার দিনার ব্যয় হয়। মাদরাসায় ছাত্রদের জন্য আবাসন কক্ষ, শিক্ষকের কক্ষ, পরিচালকের অফিেবি ও সমৃদ্ধ কুতুবখানা ছিল। ২৩ সেপ্টেম্বর ১০৬৭ খ্রিস্টাব্দে জামিয়া নিজামিয়ার উদ্বোধন হয়। শহরবাসী এতে উপস্থিত হয়। উদ্বোধন করেন শায়খ আবু নসর বিন সব্বাগ। প্রথম থেকেই জামিয়া নিজামিয়া শুধু শাফেয়ী মাজহাবের ছাত্রদের জন্য নির্ধারিত ছিল। এখানে শুধু শাফেয়ী ফিকহ পড়ানো হতো। এই তথ্য থেকেও দরসে নেজামিকে নিজামুল মুলকের সাথে জুড়ে দেয়ার অসারতা প্রমান হয়। কারন উপমহাদেশের দরসে নেজামি প্রনয়ণ করা হয়েছে হানাফী ফিকহের ছাত্রদের জন্য।
জামিয়া নিজামিয়া বাগদাদ অনেকদিন টিকে ছিল। তাতারী হামলার ৮১ বছর পর ইবনে বতুতা জামিয়া নিজামিয়া পরিদর্শন করেন। ১৩৯৩ খ্রিস্টাব্দে তৈমুর লং যখন বাগদাদ আক্রমন করেন জামিয়া নিজামিয়া তখনো চালু। ১৩৯৫ খ্রিস্টাব্দে জামিয়া মুস্তানসিরিয়ার সাথে একে একীভুত করা হয়। জামিয়া নিজামিয়ার ধবংসাবশেষ প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় পর্যন্ত টিকে ছিল। গভর্নর খলিল পাশা রাস্তা নির্মানের জন্য তা অপসারন করেন। (১২)
মিসরে ফাতেমী শাসকরা আল আযহারের মাধ্যমে শিয়া আকীদার যে বিষবাষ্প ছড়াচ্ছিলেন তার মোকাবিলায় জামিয়া নিজামিয়া আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামাআতের আকীদা প্রচারে অবিস্মরনীয় অবদান রাখে।
জামেয়া নিজামিয়ার পাঠ্যক্রম
জামিয়া নিজামিয়ার জন্য কোনো সুবিন্যস্ত পাঠ্যক্রম প্রনয়নের প্রমান পাওয়া যায় না। নিজামুল মুলক মাদরাসার জমি ওয়াকফের যে দলিল লিখেছেন তাতে কোরআন, হাদিস ও ফিকহের প্রতি সর্বসাধারনের মনোযোগ আকর্ষন করেছেন। শুরুর দিকে জামিয়া নিজামিয়াতে কোরআন হাদিস ও শাফেয়ী ফিকহ পড়ানো হতো। পাশাপাশি সামান্য কিছু নাহু সরফ। ধীরে ধীরে ছাত্র বাড়তে থাকে। পাঠ্যক্রমে নতুন নতুন বিষয় সংযুক্ত হয়। ইমাম গাজালী এখানে শিক্ষকতা করার সময় উসুলের বইপত্র পড়ানো শুরু করেন। খতিব তাবরেজি ও তার শিষ্য আবু মানসুর সাহিত্যের বইপত্র যোগ করেন। পরে জামিয়া নিজামিয়াতে হাদিস, তাফসীর, ফিকহ, উলুমুল কোরান, ইলমুল কালাম, নাহু সরফ, বালাগাত, লুগাত, মাআনি, মুনাজারা এসব শাস্ত্রও পড়ানো শুরু হয়। যুগের শ্রেষ্ঠ শিক্ষকরা জামিয়া নিজামিয়াতে দরস দিতেন। (১৩)
ভারতবর্ষের মাদরাসা
হিজরী প্রথম শতাব্দীতেই ভারতবর্ষে মুসলমানদের আগমন শুরু হয়। প্রথম দিকে দক্ষিন ভারতের মালাবার অঞ্চলে তারা বসতি স্থাপন করেন। তখন মসজিদেই তারা পাঠদানের কাজ সারতেন। ৫৮৭ হিজরীতে শিহাবুদ্দিন ঘুরী আজমীর বিজয়ের পর সেখানে কিছু মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। এরপর থেকে মুসলিম শাসকরা মাদরাসা প্রতিষ্ঠায় মনোযোগী হন। মাদরাসার জন্য জমি ওয়াকফ করা হয়। শিক্ষকদের ভাতা দেয়া হয়। (১৪)
ভারতবর্ষে মুসলমানদের পাঠ্যক্রম
ভারতবর্ষের বিস্ময়কর প্রতিভা শায়খ আব্দুল হাই হাসানি নদভী ভারতবর্ষে মুসলমানদের পাঠ্যক্রমকে চার যুগে বিন্যস্ত করেছেন। এর চতুর্থ যুগটি দরসে নেজামীর , যা এখনো চলমান। আপাতত তার লেখা থেকে প্রথম তিন যুগ উদ্ধৃত করছি।
প্রথম যুগ
এই যুগের শুরু হিজরী সপ্তম শতাব্দী থেকে। সমাপ্তিকাল হিজরী দশম শতাব্দী। প্রায় দুইশ বছরের বেশি সময়কাল এই পাঠ্যক্রম চালু ছিল। এ সময় যে সকল বিষয়ের প্রতি গুরুত্বারোপ করা হতো তা হলো, নাহু, সরফ, বালাগাত, ফিকহ, উসুলে ফিকহ, মানতেক, ইলমুল কালাম, তাসাউফ, তাফসীর, হাদীস ইত্যাদী। নাহুর জন্য পড়ানো হতো মিসবাহ, কাফিয়া এবং কাজী নাসিরুদ্দীন বায়জাভির লুব্বুল আলবাব। পরে কাজী শিহাবুদ্দীন দৌলতাবাদীর ইরশাদ ও পড়ানো হতো।
ফিকহ = হেদায়া
উসুলে ফিকহ = মানার এবং তার শরাহ, উসুলে বাযদাভী
তাফসীর = মাদারেক, বায়জাভী, কাশশাফ
তাসাউফ = আওয়ারেফ, ফুসুস। (পরবর্তীকালে খানকাহ সংলগ্ন মাদ্রাসাগুলোতে নকদুন নুসুস পড়ানো হতো )
হাদীস = মাশারিকুল আনোয়ার, মাসাবিহুস সুন্নাহ
আদব = মাকামাতে হারিরি। এর মাকামাতগুলো মুখস্থ করানো হতো। নিজামুদ্দিন আউলিয়ার মালফুজাত থেকে জানা যায় তিনি তার উস্তাদ শামসুদ্দীন খাওয়ারেজমীর কাছে মাকামাত পড়েছিলেন এবং এর চল্লিশটি মাকামাত মুখস্থ করেছেন।
মানতেক = শরহে শামসিয়্যাহ
ইলমুল কালাম = শরহে সহায়েফ, কোথাও কোথাও আবু শাকুর সালেমির তামহিদ।
(এই যুগটি জামেয়া নিজামিয়া প্রতিষ্ঠার সবচেয়ে কাছের যুগ।দেখা যাচ্ছে ফিকহে হানাফীর প্রসিদ্ধ গ্রন্থ হেদায়া পাঠ্যতালিকাভুক্ত। যা কোনোভাবেই জামেয়া নিজামিয়ার পাঠ্যক্রম হতে পারে না। জামিয়া নিজামিয়ায় শাফেয়ী মাজহাব ছাড়া অন্য মাজহাবের কাউকে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হতো না। এমনকি কোনো শিক্ষক শাফেয়ী মাজহাবের বিরুদ্ধে মন্তব্য করলে তাকে বরখাস্ত করা হতো। সেক্ষেত্রে হেদায়ার মত কিতাব নিজামিয়ার পাঠ্য থাকবে তা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। অর্থাৎ শুরু থেকেই ভারতবর্ষে জামিয়া নিজামিয়ার পাঠ্যক্রমের কোনো প্রভাব ছিল না)
দ্বিতীয় যুগ
হিজরী নবম শতাব্দীর শেষভাগে মুলতান থেকে শেখ আবদুল্লাহ ও শেখ আজিজুল্লাহ নাম দুজন আলেম আসেন। শেখ আবদুল্লাহ দিল্লীতে অবস্থান করেন এবং শেখ আজিজুল্লাহ সাম্বলে অবস্থান নেন। সিকান্দার লোদী তাদের কে অত্যন্ত সম্মানের চোখে দেখতেন। বিভিন্ন সময় তাদের দরসেও উপস্থিত হতেন। তার আগমনে যেন দরসে ব্যাঘাত না ঘটে সে জন্য তিনি সরাসরি দরসে না বসে মসজীদের এক কোনে বসে পড়তেন। পরে দরস শেষ হলে শেখ আব্দুল্লাহর সাথে গিয়ে দেখা করতেন। এই দুই আলেম নিজেদের যোগ্যতাবলে এবং ক্ষেত্রবিশেষে সম্রাটের পৃষ্ঠপোষকতায় শীঘ্রই পুরো ভারতবর্ষে প্রসিদ্ধি অর্জন করেন। নিজেদের প্রভাব খাটিয়ে তারা পাঠ্যক্রমে কাজী ইযদের আল মাওয়াকিফ এবং সাক্কাকীর মিফতাহুল উলুম অন্তর্ভুক্ত করেন।
মোল্লা আব্দুল কাদের বাদায়ূনী মুন্তাখাবুত তাওয়ারিখে লিখেছেন, ‘সুলতান সিকান্দার লোদীর যুগে শ্রেষ্ঠ আলেমদের মধ্যে ছিলেন দিল্লীর শায়খ আব্দুল্লাহ তালবানী এবং সাম্ভলের শেখ আজিজুল্লাহ তালবানী । এই দুজন মুলতানের অস্বাভাবিক পরিস্থিতির কারণে হিন্দুস্তানে এসে ইলমে মাকুল কে এদেশে প্রসারিত করে ছিলেন। এ দুজনের পূর্বে শরহে শামসিয়া এবং শারহে সাহায়েফ ব্যতিত ইলমে মানতেক এবং কালামের অন্য কোন কিতাব ভারতবর্ষে প্রচলিত ছিল না’।
এ সময় মীর সাইয়েদ শরীফের ছাত্ররা শহরে মাতালি ও শরহে মাওয়াকিফ এবং তাফতাজানির শিষ্যরা মুখতাসারুল মা’আনি ও শরহে আকাইদে নাসাফী পড়ানো শুরু করেন। শরহে জামী ও শরহে বেকায়াও এ সময় ধীরে ধীরে পাঠ্যক্রমে প্রবেশ করতে থাকে। এই যুগের শেষদিকের একজন আলেম যিনি তার সময়কালের সবচেয়ে প্রসিদ্ধ ব্যক্তিত্বও বটে, শায়খ আব্দুল হক মুহাদ্দীসে দেহলভী আরবে যান এবং সেখানে তিন বছর অবস্থান করে হাদীস শাস্ত্রে দক্ষতা অর্জন করেন। দেশে ফিরে তিনি এবং তার সন্তানরা হাদীসের এই বরকতময় সিলসিলার প্রচার প্রসারে মনোযোগী হন কিন্তু তাদের এই ধারা বেশিদিন সচল থাকে নি। এই সৌভাগ্য অর্জন করেন শাহ ওয়ালিউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী। সে যুগের উলামায়ে কেরামের জীবনি পড়লে এটা পরিস্কার হয়, সেকালে মিফতাহুল উলুম ও মাওয়াকিফকে খুবই গ্রুত্ব দেয়া হতো। মুফতী জামাল খানের জীবনিতে বাদায়ুনী লিখেছেন, ‘তিনি দরসে বসে মিফতাহুল উলুম ও মাওয়াকিফ আগাগোড়া চারবার পড়েছেন’।
তৃতীয় যুগ
দ্বিতীয় যুগে পাঠ্যক্রমে যেসকল পরিবর্তন , পরিবর্ধন এসেছে তার ফলে আলেমরা আরো আশাবাদী হন এবং পাঠ্যক্রমে যে কোনো পরিবর্তনের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকেন। এ কারনেই আকবরের শাসনামলে যখন শেখ ফতহুল্লাহ সিরাজী আসেন এবং পাঠ্যক্রমে কিছু পরিবর্তন আনেন , তা সর্বত্র সমাদৃত হয়। মাওলানা গোলাম আলী আজাদ বিলগ্রামী ‘মাআছিরুল কিরামে’ লিখেছেন, ‘পরবর্তী উলামায়ে কেরামের মধ্যে মীর সদরুদ্দীন, মীর গিয়াসুদ্দিন মানসুর, মীর্জা জান প্রমুখ ভারতবর্ষে আগমন করেন এবং দরসদানে মনোযোগী হন’। এই আলোচনায় অবশ্যই শায়খ ওয়াজিহুদ্দীন গুজরাটির নাম নিতে হয়। তিনিই সর্বপ্রথম মুতাআক্ষেরিন উলামায়ে কেরামের বইপত্র পড়ানো শুরু করেন। তার এই ধারা গুজরাটের বাইরেও জনপ্রিয়তা পায়। তার ছাত্ররা বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে ইলমের প্রদীপ জ্বেলেছেন। মুফতী আব্দুস সালাম ছিলেন ফতহুল্লাহ সিরাজীর ছাত্র। তিনি চল্লিশ বছর লাহোরে বসে দরস দেন। হাজার হাজার ছাত্র তার কাছে পড়তো। অবশ্য তিনি খুব কম ছাত্রকেই সনদ দিতেন। দেওয়াহর মুফতী আব্দুস সালাম এবং এলাহাবাদের শায়খ মুহিব্বুল্লাহ এমনই দুই ভাগ্যবান যারা লাহোরে পড়াশুনা করেন এবং সনদ অর্জন করেন। তাদেরই ছাত্র শায়খ কুতুবুদ্দীন সাহালভি, যিনি দরসে নিজামীর প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা নিজামুদ্দীনের পিতা। শাহ ওয়ালিউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী (মৃত্যু ১১৭৪ হিজরী), যিনি এই পাঠ্যক্রমের সবচেয়ে বিখ্যাত আলেম, তিনি নিজের ছাত্রজীবনের কথা বলতে গিয়ে পাঠ্যতালিকা দিয়েছেন। তা নিম্নরূপ :
নাহু = কাফিয়া, শরহে জামী।
মানতেক = শরহে শামসিয়া, শরহে মাতালি।
দর্শন = শরহে হেদায়াতুল হিকমাহ।
কালাম = শরহে আকাইদে নাসাফী, শরহে মাওয়াকিফ।
ফিকহ = শরহে বেকায়া, হেদায়া।
উসুলে ফিকহ =হুসামি এবং তালবি আলাত তাওজি এর কিছু অংশ।
বালাগাত = মুখতাসারুল মাআনি , মুতাওয়াল।
গনিত = নির্বাচিত কিছু পুস্তিকা।
চিকিৎসা বিজ্ঞান = মুজিজুল কানুন।
হাদীস = মিশকাতুল মাসাবিহ (সম্পূর্ণ), শামায়েলে তিরমিযি (সম্পূর্ণ), সহীহ বুখারীর কিছু অংশ।
তাফসীর = তাফসীরে মাদারেক, বায়যাভী।
তাসাউফ = আওয়ারেফ, রাসায়েলে নকশেবন্দীয়া, শরহে রুবাইয়াতে জামী, মুকাদ্দিমা নাকদুন নুসুস।
এসব পড়া শেষে শাহ সাহেব আরবে যান। সেখানে তিনি শায়খ আবু তাহের মাদানীর কাছে অবস্থান করে ইলমে হাদীস চর্চা করেন এবং এই উপহার নিয়ে দেশে ফিরেন। দেশে ফিরে তিনি হাদীস চর্চার যে মশাল জ্বেলেছেন তার আলো আজো জ্বলছে। মূলত শাহ সাহেবের সময়কাল থেকেই ভারতবর্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে সিহাহ সিত্তার পঠনপাঠন শুরু হয়। শাহ সাহেব এ সময় নতুন একটি পাঠ্যক্রম প্রনয়ণ করেন। কিন্তু ততোদিনে ইলমের কেন্দ্র দিল্লী থেকে স্থানান্তরিত হয়ে লখনৌতে চলে গেছে। ফলে শাহ সাহেবের এই পাঠ্যক্রম খুব একটা কার্যকরী হয় নি এবং শাহ সাহেবের সন্তানরাও এই পাঠ্যক্রমকে প্রচার করার আগ্রহ দেখান নি। (১৫)
শায়খের দীর্ঘ লেখা উদ্ধৃত করার পর এবার আমরা দরসে নেজামি ও এর প্রতিষ্ঠাতার আলোচনা করবো।
মোল্লা নিজামুদ্দিন সহালভী
লখনৌ থেকে ২৮ মাইল দূরে সহালি নামক এলাকায় ১০৮৮/৮৯ হিজরী মোতাবেক ১৬৭৭-৭৮ খ্রিস্টাব্দে মোল্লা নিজামুদ্দিনের জন্ম। তার পিতা মোল্লা কুতুবুদ্দিন ছিলেন তার সময়ে অন্যতম শ্রেষ্ঠ আলেম। বংশীয় শত্রুতার জের ধরে ১১০৩ হিজরীতে মোল্লা কুতুবুদ্দিন কে হত্যা করা হয়। নিজামুদ্দিন তার ভাইদের সাথে লখনৌ পালিয়ে আসেন। ১১০৫ হিজরীতে মুঘল সম্রাট আলমগীর তাদের জন্য ফিরিংগি মহল এলাকায় একটি দোতলা ভবন নির্মান করে দেন। মোল্লা নিজামুদ্দিন এখানে বসবাস করতে থাকেন। তিনি ইলমের অন্বেষনে বিভিন্ন এলাকা সফর করেন। শেষে বেনারসের হাফেজ আমানুল্লাহ বেনারসির কাছে শিক্ষাজীবনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেন। পড়াশোনা শেষে তিনি দরস দেয়া শুরু করেন। দরসদানকালে তিনি নতুন একটি পাঠ্যক্রম চালু করেন। পাঠ্যক্রম প্রনয়নকালে তিনি পিতা মোল্লা কুতুবুদ্দিনের উদ্ভাবিত পন্থাকে সামনে রাখেন ।অর্থাৎ এককভাবে এই পাঠ্যক্রম তার উদ্ভাবন নয়।তার পিতাই সর্বপ্রথম এই পাঠ্যক্রম প্রনয়ন করেন। তিনি একে পরিমার্জন করেন। তবে তার নামে এই পাঠ্যক্রম পরিচিত হয় দরসে নেজামী নামে। খুব শীঘ্রই এই পাঠ্যক্রম ভারতবর্ষের সর্বত্র গ্রহনযোগ্যতা পায়। ১১৬১ হিজরীতে (১৭৪৮ খ্রিস্টাব্দ) তিনি ইন্তেকাল করেন। (১৬)
দরসে নেজামী
এবার দরসে নেজামীর অন্তর্ভুক্ত গ্রন্থাবলীর নাম দেখা যাক।
ইলমুস সরফ (শব্দ ও তার রুপান্তর শাস্ত্র) = মীযানুস সরফ , মুনশায়িব, পাঞ্জেগাঞ্জ, ইলমুস সীগাহ (মুফতী ইনায়েত আহমাদ কাকুরী প্রনীত), ফুসুলে আকবরী, শাফিয়া।
নাহু (ব্যাকরণ) =নাহবেমীর, মিয়াতে আমেল (আব্দুল কাহির জুরজানির ব্যখ্যাসহ), আবু হাইয়ান আন্দালুসীর হিদায়াতুন নাহু, কাফিয়া, শরহে জামী।
মানতিক ( যুক্তিবিদ্যা) =সুগরা-কুবরা, মুখতাসার ঈসাগুজি, তাহযিবুল মানতিক ওয়াল কালাম, শরহে তাহযীব, কুতবী, মীর কুতবী, সুল্লামুল উলুম।
হিকমত ও ফালসাফা (দর্শন ও তত্ত্বজ্ঞান)=হিদায়াতুল হিকমাহ ব্যখ্যাগ্রন্থ মারযুবী, সদরা, শামসে বাযেগা।
গণিত =খুলাসাতুল হিসাব ওয়াল হানদাসা, উসুলুল হানদাসাতিল ইকলীদাস, তাশরিহুল আফলাক, রিসালাতু কুশজিয়া, শরহে চুগমীনী (প্রথম অধ্যায়)।
বালাগাত (অলংকারশাস্ত্র) =মুখতাসারুল মাআনি, মুতাওয়াল ।
ফিকহ =শরহে বেকায়া, হেদায়া।
উসুলে ফিকহ =নুরুল আনোয়ার, আত তাওহীদ ফী হাললি গাওয়ামিদিত তানকীহ, আত তালবীহ, মুসাল্লামুস সুবুত।
ইলমে কালাম =শরহে আকাইদে নাসাফী, শরহুল আকাইদিল আদদিয়া, মীর যাহেদ।
তাফসীর =তাফসীরে জালালাইন, বায়জাভী।
হাদীস =মিশকাতুল মাসাবিহ। (১৭)
এবার আমরা দরসে নেজামীর অন্তর্ভুক্ত গ্রন্থাবলীর লেখকদের জীবনি নিয়ে আলোচনা করবো। দেখা যাবে তাদের অনেকের জন্মই হয়েছে নিজামুল মুলকের মৃত্যুর পর। যা থেকে দরসে নেজামীকে নিজামুল মুলকের দিকে সম্পর্কিত করার অসারতা প্রমান হবে। ইনশাআল্লাহ।
দরসে নেজামীর কয়েকটি কিতাব ও তার লেখক
১। তাফসীরে জালালাইন- লেখক দুজন। জালালুদ্দিন মহল্লী। জন্ম ৭৯১ হিজরীতে। অপরজন জালালুদ্দিন সুয়ুতী। জন্ম ৭৪৯ হিজরী। (১৮)
২। মিশকাতুল মাসাবিহ– খতীব তাবরেজি। ইন্তেকাল ৭৪০ মতান্তরে ৭৪৮ হিজরী। নিজামুল মুলকের ইন্তেকাল ৪৮৫ হিজরীতে। তাই নিশ্চিতভাবেই বলা যায় নিজামুল মুলকের ইন্তেকালের পর মিশকাতের সংকলকের জন্ম। (১৯)
৩। হেদায়া — বুরহানুদ্দিন আলি ইবনে আবু বকর। জন্ম ৫১১ হিজরীতে। (২০)
৪। সুল্লামুল উলুম — লেখক মোল্লা মুহিব্বুল্লাহ বিহারী। ইনি ১১১৯ হিজরীতে ইন্তেকাল করেন। (২১)
৫।মুসাল্লামুস সুবুত — ঐ
৬। নুরুল আনোয়ার — মোল্লা জিয়ুন। জন্ম ১০৪৮ হিজরী। (২২)
৭। ফুসুলে আকবরী — আলী আকবর। সম্রাট আলমগীরের যুগে জন্ম। (২৩)
৮। কাফিয়া — জামালুদ্দিন আবু আমর উসমান। জন্ম ৫৭০ হিজরীতে। (২৪)
৯। নাহবেমীর — মীর সাইয়েদ শরীফ জুরজানি। জন্ম ৭৪০ হিজরীতে। (২৫)
১০। সুগরা কুবরা –ঐ
১১। শরহে জামী — আবুল বারাকাত ইমাদুদ্দিন আব্দর রহমান। জন্ম ৮১৭ হিজরীতে। (২৬)
১২। মুখতাসারুল মাআনি– সাদুদ্দিন তাফতাজানি। জন্ম ৭২২ হিজরীতে। (২৭)
১৩। শরহে আকাইদ — ঐ
১৪। তালবীহ — ঐ
১৫। তাহযিবুল মানতেক — ঐ
১৬। কুতবী — আবু আবদুল্লাহ মোহাম্মদ কুতুবুদ্দিন। জন্ম ৬৯২ হিজরীতে। (২৮)
১৭। ইসাগুজি — আসিরুদ্দিন মোফাজ্জল বিন আমর। মৃত্যু ৬৬০ হিজরী। (২৯)
১৮। হিদায়াতুল হিকমাহ — ঐ
১৯। সদরা — সদরুদ্দিন মোহাম্মদ। মৃত্যু ১০৬১ হিজরী। (৩০)
২০। শামসে বাজেগা — মাহমুদ বিন মোহাম্মদ। জন্ম ৯৯৩ হিজরী। (৩১)
২১। শরহে চুগমিনি — সালাহুদ্দিন মুসা পাশা। মৃত্যু ৮৯৯ হিজরী। (৩২)
২২। তাশরিহুল আফলাক — বাহাউদ্দিন মোহাম্মদ বিন হুসাইন। মৃত্যু ১০৩০ হিজরী। (৩৩)
২৩। খুলাসাতুল হিসাব — ঐ
দরসে নেজামীর অন্তত ২৩টি কিতাবই রচিত হয়েছে নিজামুল মুলকের মৃত্যুর পরে। এরপরেও কী করে এই পাঠ্যক্রমকে নিজামুল মুলকের সাথে সম্পর্কিত করা হয় তা অবাক করার মতো বিষয়। বস্তুত যারা নিজামুল মুলকের সাথে দরসে নেজামীকে গুলিয়ে ফেলেন তারা অনুমানের ভিত্তিতেই এমনটা করেন। প্রকৃতপক্ষে দরসে নেজামীর সাথে নিজামুল মুলকের কোনো সম্পর্ক নেই।
এখানে বলে রাখা ভালো, বর্তমানে ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশে যে দরসে নেজামী দেখা যায় তা মূল দরসে নেজামীর পরিমার্জিত রুপ। ধাপে ধাপে পরিবর্তিত হয়ে এটি বর্তমান রুপ লাভ করেছে। এই পরিবর্তনের ইতিহাস এখানে প্রাসংগিক নয়।
তথ্যসূত্র
১। আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া, ১৬শ খন্ড, ১২৭ পৃষ্ঠা– হাফেজ ইমাদুদ্দিন ইবনে কাসীর। মারকাযুল বুহুস ওয়াদ দিরাসাতিল আরাবিয়্যাহ ওয়াল ইসলামিয়্যাহ।
২। আল ওয়াফি বিল ওয়াফায়াত, ১২শ খন্ড, ৭৮ পৃষ্ঠা– সালাহুদ্দিন খলিল বিন আইবেক সফাদি। দার এহইয়ায়িত তুরাসিল আরাবী, বৈরুত।
৩। আল মাওয়ায়েজ ওয়াল ইতিবার বিজিকরিল খিতাতি ওয়াল আসার, ৪র্থ খন্ড, ১৯৯ পৃষ্ঠা– তকিউদ্দিন আবুল আব্বাস আহমদ বিন আলী।
৪। আহসানুত তাকাসিম ফি মারিফাতিল আকালিম, পৃষ্ঠা ২০৫– আবু আবদুল্লাহ মোহাম্মদ বিন আহমদ মাকদেসী। দার সাদের, বৈরুত
৫। ওফায়াতুল আইয়ান ওয়া আনবাউ আবনাইয যামান, ২য় খন্ড, ১৩০ পৃষ্ঠা– আবুল আব্বাস শামসুদ্দিন আহমাদ বিন মুহাম্মাদ বিন আবু বকর ইবনে খাল্লিকান। দার সাদের, বৈরুত।
৬। তবাকাতুশ শাফেয়িয়া আল কুবরা, ৩য় খন্ড, ১৩৬ পৃষ্ঠা– আল্লামা তাজ উদ্দিন আস সুবকী। দার এহইয়ায়িল কুতুবিল আরাবিয়্যা।
৭। মাদারিসুন কবলান নিজামিয়্যা — ড. নাজী মারুফ। প্রবন্ধটি অনলাইনে আছে।
৮। আল মাওয়ায়েজ ওয়াল ইতিবার বিজিকরিল খিতাতি ওয়াল আসার, ৪র্থ খন্ড, ১৯৬ পৃষ্ঠা– তকিউদ্দিন আবুল আব্বাস আহমদ বিন আলী।
৯। হুসনুল মুহাজারা ফি তারিখি মিসর ওয়াল কাহেরা, ২য় খন্ড, ৩০৯ পৃষ্ঠা– আল্লামা জালালুদ্দিন সুয়ুতী।
১০। তারীখে ফেরেশতা, ১ম খন্ড, ৩০ পৃষ্ঠা– আবুল কাসেম অস্ত্রাবাদী। নওল কিশোর প্রেস, লখনৌ।
১১। যুবদাতুত তাওয়ারিখ, ১২৯ পৃষ্ঠা– সদরুদ্দিন আবুল হাসান আলি বিন নাসের আল হুসাইনি। দার ইকরা, বৈরুত।
১২। জামেয়া নিজামিয়া বাগদাদ কা ইলমি ও ফিকরি কিরদার, পৃষ্ঠা ১৪০-১৯৭- ড সোহাইল শফিক। ইসলামের ইতিহাস বিভাগ, করাচী বিশ্ববিদ্যালয়।
১৩।জামেয়া নিজামিয়া বাগদাদ কা ইলমি ও ফিকরি কিরদার, পৃষ্ঠা ১৪০-১৯৭- ড সোহাইল শফিক। ইসলামের ইতিহাস বিভাগ, করাচী বিশ্ববিদ্যালয়।
১৪। হিন্দুস্তান কি কদিম ইসলামি দরসগাহে, পৃষ্ঠা-১৬ — আবুল হাসানাত নদভী। দারুল মুসান্নেফিন আযমগড়।
১৫। ইসলামি উলুম ও ফুনুন হিন্দুস্তান মে, পৃষ্ঠা- ১৯-৩০, — আব্দুল হাই হাসানি নদভী। দারুল মুসান্নেফিন আযমগড়।
১৬। মাকালাতে শিবলী , ৩য় খন্ড, পৃষ্ঠা- ৯৮-১০৭, — আল্লামা শিবলী নোমানী। দারুল মুসান্নেফিন আযমগড়।
১৭। ইসলামি উলুম ও ফুনুন হিন্দুস্তান মে, পৃষ্ঠা-৩০, — আব্দুল হাই হাসানি নদভী। দারুল মুসান্নেফিন আযমগড়।
১৮। হালাতে মুসান্নেফিনে দরসে নেজামি, পৃষ্ঠা, ৩৩/৩৪– মাওলানা হানিফ গাংগুহী। দারুল ইশাআত করাচী।
১৯।প্রাগুক্ত, ১৪০ পৃষ্ঠা।
২০।প্রাগুক্ত, ১৫৫ পৃষ্ঠা।
২১।প্রাগুক্ত, ২৮৬ পৃষ্ঠা।
২২। প্রাগুক্ত, ১৮৬ পৃষ্ঠা।
২৩।প্রাগুক্ত, ২৫৫ পৃষ্ঠা।
২৪। প্রাগুক্ত, ২৫৭ পৃষ্ঠা।
২৫।প্রাগুক্ত, ২৬৩ পৃষ্ঠা।
২৬।প্রাগুক্ত, ২৬৬ পৃষ্ঠা।
২৭।প্রাগুক্ত, ২৭২ পৃষ্ঠা।
২৮।প্রাগুক্ত, ২৮১ পৃষ্ঠা।
২৯।প্রাগুক্ত, ২৭৯ পৃষ্ঠা।
৩০।প্রাগুক্ত, ২৯৬ পৃষ্ঠা।
৩১।প্রাগুক্ত, ২৯৭ পৃষ্ঠা।
৩২।প্রাগুক্ত, ৩০৩ পৃষ্ঠা।
৩৩।প্রাগুক্ত, ৩০৫ পৃষ্ঠা।

Pin It on Pinterest

Hatay masaj salonu Diyarbakır masaj salonu Adana masaj salonu Aydın masaj salonu Kocaeli masaj salonu Muğla masaj salonu Yalova masaj salonu Gaziantep masaj salonu Kütahya masaj salonu Elazığ masaj salonu Bursa masaj salonu Konya masaj salonu Samsun masaj salonu Mersin masaj salonu Manisa masaj salonu Afyon masaj salonu Kütahya masaj salonu Çanakkale masaj salonu Edirne masaj salonu Yozgat masaj salonu Çorum masaj salonu>