যুলকিফল-এর ঘটনা

ফিরআউনের ধ্বংস্যেত্তর যুগে রনী ইসরাঈলের অবস্থা

আল্লাহ তা জানার বাণী প্

সুতরাং আমি তাদেরকে শান্তি দিয়েছি এবং তাদেরকে অতল সমুদ্রে নিমজ্জিত করেছি ৷
কারণ তারা আমার নিদনিকে অস্বীকার করত এবং এ সম্বন্ধে তারা ছিল গাফিল ৷ যে
সম্প্রদায়কে দুর্বল গণ্য করা হত তাদেরকে আমি আমার কল্যাণপ্রাপ্ত রাজ্যের পুর্ব ও পশ্চিমের
অধিকারী করি; এবং বনী ইসরাঈল সম্বন্ধে তোমার প্রতিপালকের শুভবাণী সত্যে পরিণত হল ৷
যেহেতু তারা ধৈর্য ধারণ করেছিল, আর ফিরআউন ও তার সম্প্রদায়ের শিল্প এবং যে সব প্রাসাদ
তারা নির্মাণ করেছিল তা ধ্বংস করেছি ৷ আর আমি বনী ইসরাঈলকে সমুদ্র পড়ার করিয়ে দেই;
তারপর তারা প্ৰতিমাপুজায় রত এক সম্প্রদায়ের নিকট উপস্থিত হয় ৷ তারা বলল, হে মুসা !
তাদের দেবতার মত আমাদের জন্যও একটি দেবতা গড়ে দাও; যে বলল, তোমরা তো এক
মুর্থ সম্প্রদায় ৷ এসব লোক যাতে লিপ্ত রয়েছে তা তো বিধ্বস্ত হবে এবং তারা বা করছে তাও
অমুলক ৷ সে আবারো বলল, আল্পাহ্ ব্যতীত তোমাদের জন্য আমি কি অন্য ইলাহ্ খুজব অথচ
তিনি তােমাদেরকে বিশ্বজগতের উপর শ্রেষ্ঠতু দিয়েছেন? স্মরণ কর, আমি তােমাদেরকে
ফিরআউনের অনুসারীদের হাত হতে উদ্ধার করেছি, যারা তােমাদেরকে নিকৃষ্ট শাস্তি দিত ৷

তারা তোমাদের পুত্র সন্তানকে হত্যা করত এবং তোমাদের নারীদেরকে জীবিতব ৷খত; এতে
ছিল তোমাদের প্রতিপালকের এক মহাপরীক্ষা ৷ (সুরা ৷আ রাফং : ১৩৬ ১৪১)

উপরোক্ত আয়াতে আল্পাহ্ তাআলা বর্ণনা দিচ্ছেন যে, কিভাবে তিনি ফিরআউন ও তার
সেনাবাহিনীকে ডুবিয়ে যেরেছিলেন এবং কিভাবে তাদের ইজ্জতসম্মান ভুলুষ্ঠিত করেছিলেন ৷
আর তাদের মাল-সম্পদ আল্লাহ্ তাআলা কেমনভাবে ধ্বংস করে বনী ইসরাঈলকে তাদের
সমস্ত ধন-সস্পদের উত্তরাধিকারী করে দিয়েছিলেন ৷

যেমন আল্লাহ্ তা জানা বলেনহ’ “এরুপই
ঘটেছিল এবং বনী ইসরাঈলকে করেছিলাম এ সষুদয়ের মেঅধিক্যরী ৷” (সুরা শুআরা : ৫৯)

র্শ্বপেঅনুরুপভাবে আল্লাহ্ তা আলা ইরশাদ করেনং :

,

আমি ইচ্ছে করেছিলাম, সে দেশে যাদেরকে হীনবল করা হয়েছিল, তাদের প্রতি অনুগ্রহ
করতে; তাদেরকে নেতৃত্ব দান করতে ও উত্তরাধিকারী করতে ৷ (সুরা কাসাস : ৫)

আবার অন্য আয়াতে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেনৰু,

যে সম্প্রদায়কে দুর্বল গণ্য করা হত তাদেরকে আমি আমার কল্যাণ প্রাপ্ত রাংজ্যর পুর্বও
পশ্চিমের উত্তরাধিকারী করি এবং বনী ইসরাঈল সম্বন্ধে তে তামার প্রতিপ৷ ৷লকের শুভ বাণী সাত্য
পরিণত হল, যেহেতু তারা ধৈর্য ধারণ করেছিল আর ফিরআউন ও তার সম্প্রদায়ের শিল্প এবং
যে সব প্রাসাদ তারা নির্মাণ করেছিল তা ধ্বংস করেছি ৷ (সুরা আরাফ : ১৩৭ )
আল্লাহ্ তাআলা ফিরআউন ও তার গোষ্ঠীর সকলকে ধ্বংস করে দিলেন ৷ দুনিয়ায়
বিরাজমান তাদের মহা সম্মান ঐতিহ্য তিনি বিনষ্ট করে দিলেন ৷ তাদের রাজা , আমীর-উমারা ও
সৈন্য-সামত্ত ধ্বংস হয়ে গেল ৷ মিসর দেশে সাধারণ প্রজাবর্গ ব্যতীত আর কেউ অবশিষ্ট রইল
না ৷ ইবন আবদুল হাকাম মিসরের ইতিহাস’ গ্রন্থে লিখেছেন, ঐদিন থেকে মিসয়ের শ্রী
লোকেরা পুরুষদের উপর প্রাধান্য লাভ করেছিল, কেননা আমীর-উমারাদের ত্রীরা তাদের চেয়ে
নিম্ন শ্রেণীর সাধারণ লোকদেরকে বিয়ে করতে হয়েছিল ৷ তাই তাদের স্বামীদের উপর স্বভাবতই
তাদের প্রতিপত্তি প্রতিষ্ঠি হয় ৷ এ প্রথা মিসরে আজ পর্যন্ত চলে আসছে ৷

কিতাবীদের মতে, রনী ইসরাঈলকে যে মাসে মিসর ত্যাগের নির্দেশ ৷দেয়৷ ৷হয়েছিল, সে
মাসকেই আল্লাহ তা আলা তাদের বছরের প্রথম মাস বলে নির্ধারণ করে দেন ৷ তাদেরকে হুকুম
দেওয়া হয় যে, তাদের প্রতিটি পরিবার যেন একটি মেষশাবক যবেহ করে ৷ যদি প্রতিটি
পরিবার একটি করে যেষশাবক সংগ্রহ করতে না পারে তাহলে পড়শীর সাথে অংশীদার হয়ে তা

করবে ৷ যবেহ করার পর মেষশাবকের রক্ত তাদের ঘরের দরজার চৌকাটে ছিটিয়ে দিতে হবে,
যাতে তাদের ঘরগুলো চিহ্নিত হয়ে থাকে ৷ তারা এটাকে রান্না করে যেতে পারবে না ৷ তবে
ইা, মেষশাবকের মাথা, পায়া ও পেট ভুনা করে যেতে পারবে ৷ তারা মেষশাবকের কিছুই
অবশিষ্ট রাখবে না এবং ঘরের বাইরেও ফেলতে পারবে না, তারা সাতদিন রুটি দিয়ে নাশৃতা
করবে ৷ সাত দিনের শুরু হবে তাদের বছরের প্রথম মাসের ১৪ তারিখ হতে ৷ আর এটা ছিল
বসম্ভকাল ৷ যখন তারা থানা খাবে তাদের কােমর কােমরবন্দ দ্বারা বাধা থাকবে, পায়ে মুজা
থাকবে, হাতে লাঠি থাকবে, দাড়িয়ে দাড়িয়ে দ্রুত খাবে, রাতের বেলায় খাবারের পর কিছু
খাবার বাকি থাকলে তা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলতে হবে; এটাই তাদের ও পরবতীদৈর জন্যে
ঈদ বা পর্বের দিন রুপে নির্ধারণ করে দেওয়া হয় ৷ এই নিয়ম যতদিন বলবৎ ছিল তাওরাতের
বিধান ততদিন পর্যন্ত বলবৎ ছিল ৷ তাওরাতের বিধান যখন বাতিল হয়ে যায়, তখন এরুপ
নিয়মও রহিত হয়ে যায় ৷ আর পরবর্তীতে এরুপ নিয়ম প্রকৃত পক্ষে রহিত হয়ে গিয়েছিল ৷

কিতাবীরা আরো বলে থাকেন, ফিরআউনের ধ্বংসের পুর্ব রাতে আল্লাহ্ তাআলা
কিবতীদের সকল নবজাতক গ্রিণ্ডে ও নবজাতক প্রার্ণীকে ধ্বংস করে দিয়েছিলেন, যাতে তারা
বনী ইসরাঈলের পিছু যাওয়া থেকে বিরত থাকে ৷ দুপুরের সময় বনী ইসরাঈল বের হয়ে
পড়ল ৷ মিসরের অধিবাসিগণ তখন তাদের নবজাতক সন্তান ও পশুপালের গােকে অভিভুত
ছিল ৷ এমন কোন পরিবার ছিল না, যারা এরুপ গােকে শোকাহত ছিল না ৷ অন্যদিকে মুসা
(আ)-এর প্রতি ওহীর মাধ্যমে নির্দেশ আমার সাথে সাথে বনী ইসরাঈলরা অতি দ্রুত ঘর থেকে
বের হয়ে পড়ল ৷ এমনকি তারা নিজেদের আটার খামিরও তৈরি করে সারেনি, তাদের
পাথেয়াদি চাদরে জড়িয়ে এগুলো কাধে ঝুলিয়ে নিল ৷ তারা মিসরবাসীদের নিকট থেকে বিপুল
পরিমাণ স্বর্ণালংকড়ার ধারস্বরুপ নিয়েছিল ৷ তারা যখন মিসর থেকে বের হয়, তখন শ্ৰীলোক
ব্যতীত তাদের সংখ্যা ছিল প্রায় ৬ লাখ, তাদের সাথে ছিল তাদের পশুপাল ৷ আর তাদের
মিসরে অবস্থানের মেয়াদ ছিল চারশ ত্রিশ বছর ৷ এটা তাদের কিতাবের কথা ৷ ঐ বছরটিকে
তারা নিকৃতির বছর (ব্লুরু৷ ! হ) আর তাদের ঐ ঈদকে নিষ্কৃতির ঈদ’ বলে অভিহিত
করে ৷ তাদের আরো দুটি ঈদ ছিল-ঈদৃল ফাতির ও ঈদুল হামল ৷ ঈদুল হড়ামল ছিল বছরের
প্রথম দিন ৷ এই তিন ঈদ তাদের কাছে খুবই গুরুতুপুর্ণ ছিল এবং তাদের কিভাবে এগুলোর
উল্লেখ ছিল ৷
তারা যখন মিসর থেকে বের হয়ে পড়ল তখন তারা তাদের সাথে দিয়েছিল ইউসুফ
(আ)-এর কফিন এবং তার সুফ নদীর রাস্তা ধরে চলছিল ৷ তার দিনের বেলায় ভ্রমণ করত;
মেঘ তাদের সামনে সামনে ভ্রমণ করত ৷ মেঘের মধ্যে ছিল নুরের স্তম্ভ এবং রাতে তাদের
সামনে ছিল আগুনের স্তম্ভ ৷ এ পথ ধরে তরো সমুদ্রের উপকুলে গিয়ে উপস্থিত হল ৷ সেখানে
তারা পৌছতে না পৌছতেই ফিরআউন ও তার মিসরীয় সৈন্যদল তাদের নিকটে পৌছে গেল ৷
বনী ইসরাঈলরা তখন সমুদ্রের কিনারায় অবতরণ করেছিল ৷ তাদের অনেকেই শঙ্কিত হয়ে
পড়ল ৷ এমনকি তাদের কেউ কেউ বলতে লাগল, এরুপ প্রান্তয়ে এসে মৃত্যুবরণ করার চেয়ে
মিসরের হীনতম জীবন যাপনই বরং উত্তম ছিল ৷ তাদের উদ্দেশে মুসা (আ) বললেন, ভয়
করো না’ ৷ কেননা, ফিরআউন ও তার সেনাবাহিনী এর পর আর তাদের শহরে ফিরে যেতে

পারবে না ৷ কিতাবীরা আরও বলেন, আল্লাহ্ তাআলা মুসা (আ)-কে নির্দেশ দিলেন তিনি যেন
সমুদ্রে নিজ লাঠি দ্বারা আঘাত করে সমুদ্র বিভক্ত করে দেন-যাতে তারা সমুদ্রে প্রবেশ করে ও
শুকনো পথ পড়ায় ৷ দুই দিকে পানি সরে গিয়ে দুই পাহাড়ের আকার ধারণ করল; আর মাঝখানে
শুকনো পথ বেরিয়ে আসে ৷ কেননা, আল্লাহ তাআলা তখন গরম দক্ষিণা বায়ু প্রবাহিত করে
দেন ৷ তখন বনী ইসরাঈলরা সমুদ্র পার হয়ে গেল ৷ আর ফিরআউন তার সেনাবাহিনীসহ বনী
ইসরাঈলকে অনুসরণ করল ৷ যখন সে সমুদ্রের মধ্যভাগে পৌছল, তখন আল্পাহ্ তাআলা মুসা
(আ)-কে নির্দেশ দিলেন, তিনি যেন তার লাঠি দ্বারা সমুদ্রকে আঘাত করেন ৷ ফলে পানি পুর্বের
আকার ধারণ করল ৷ তবে কিতাবীদের মতে, এ ঘটনাটি ঘটেছিল রাতের বেলায় এবং সমুদ্র
তাদের উপর ন্থির হয়েছিল সকাল বেলায় ৷ এটা তাদের বোঝার ভুল এবং এটা অনুবাদ
বিভ্রার্টের কারণে হয়েছে ৷ আল্লাহ্ তড়াআলাই অধিকতর জ্ঞড়াত ৷ তারা আরো বলেন, যখন
আল্লাহ্ তাআলা ফিরআউন ও তার সেনাবাহিনীকে ডুবিয়ে মারলেন, তখন মুসা (আ) ও বনী
ইসরাঈল প্রতিপালকের উদ্দেশে নিম্নরুপ তাসবীহ পাঠ করলেন :

অর্থাৎ-সেই জোতির্ময় প্রতিপালকের তাসবীহ পাঠ করছি, যিনি সেনাবাহিনীকে পর্বুদস্ত
করেছেন এবং অশ্বারোহীদেরকে সমুদ্রে নিক্ষেপ করেছেন, যিনি উত্তম প্ৰতিরােধকারী ও
ৎসিত ৷ এটা ছিল একটি দীর্ঘ তাসবীহ ৷ তারা আরো বলেন, হড়ারুনের বোন নাবীয়াহ
মারয়াম নিজ হাতে একটি দফ১ ধারণ করেছিলেন এবং অন্যান্য ন্তীলোক তার অনুসরণ

করেছিল, সকলেই দফ ও তবলা নিয়ে পথে বের হলো, মারয়াম তাদের জন্যে সুর করে
গাইছিলেন :

“পরাক্রমণড়ালী পবিত্র সেই প্ৰতিপালক যিনি ঘোড়া ও ঘোড়সওয়ারদেরকে সমুদ্রে নিক্ষেপ
করে প্রতিহত করেছেন ৷” এরুপ বর্ণনা তাদের কিভাবে লিপিবদ্ধ রয়েছে ৷

এরুপ বর্ণনা সম্ভবত, মুহাম্মদ ইবন কাব আল কুৱাযী (র) থেকে নেয়া হয়েছে, যিনি
কুরআনের আয়াত এর ব্যাখ্যার বলতেন যে, ইমরানের কন্যা মারয়াম , ঈসা

(আ)-এর মা হচ্ছেন মুসা (আ) ও হারুন (আ)-এর বোন ৷ তার বর্ণনাটি যে অমুলক , তাফসীরে
তা আমরা বর্ণনা করেছি ৷ এটা একটা অসম্ভব ব্যাপার ৷ কেননা, কেউ এরুপ মত পোষণ
করেননি বরং প্রত্যেক তাফসীরকার এটার বিরোধিতা করেছেন ৷ যদি ধরে নেয়া হয় যে, এরুপ
হতে পারে তাহলে তার ব্যাখ্যা হবে এরুপ : মুসা (আ) ও হারুন (আ) এর কোন মারয়াম বিনৃত
ইমরান এবং ঈসা (আ)-এর মা মারয়াম বিনৃত ইমরানের মধ্যে নাম, পিতার নাম ও ভাইয়ের
নামের মধ্যে মিল রয়েছে ৷ যেমন একদা মুগীরা ইবন শুবা (বা) সাহাবীকে নাজরানের
অধিবাসীরা আয়াতাৎশের তাফসীর প্রসঙ্গে প্রশ্ন করেছিল ৷ তিনি জানতেন

১ দফ্ এমন একটি বাদ্যযন্ত্র যায় এক দিকে চামড়া লাগানো থাকে

না তাদেরকে কি বলবেন ৷ তাই তিনি রাসুল (না)-কে এ সম্বন্ধে জিজ্ঞেস করলেন, জবাবে
রাসুলুল্লাহ (সা) র্তাকে বললেন, তুমি কি জান না তারা আম্বিয়ায়েকিরামের নামের সাথে মিল
রেখে নামকরণ করতেন? ইমাম মুসলিম (র) এ হাদীসটি বর্ণনা করেছেন ৷

মারয়ড়ামকে তারা মাবিয়াহ বলত, যেমন রাজার পরিবারের শ্ৰীকে রানী বলা হয়ে থাকে ৷
আমীরের শ্ৰীকে অড়ামীরাহ বলা হয়ে থাকে, যদিও তাদের বাদশাহী কিংবা প্রশাসনে কোন হাত
নেই ৷ নবী পরিবারের সদস্যা হিসাবে র্তাকে মাবিয়াহ বলা হয়েছে ৷ এটি রুপকভাবে বলা
হয়েছে ৷ সত্যি সত্যি তিনি নবী ছিলেন না এবং তার কাছে আল্লাহ তআলার ওহী আসত না ৷
আর মহা খুশির দিন ঈদে তার দফ বাজানো হচ্ছে এ কথার প্রমাণ যে, ঈদে দফ বাজানো
আমাদের পুর্বে তাদের শরীয়তেও বৈধ ছিল ৷ এমনকি এটা আমাদের শ্ারীয়তেও মেয়েদের জন্য
ঈদের দিনে বৈধ ৷ এ প্রসঙ্গে নিম্নে বর্ণিত হাদীসটি প্রণিধানযােগ্য ৷ মিনার দিনসমুহে তথা
কুরবানীর ঈদের সময়ে দুটি বালিকা আয়েশা সিদ্দীকা (বা)এর কাছে দফ বাজাচ্ছিল এবং
রাসুলুল্পাহ (সা) তাদের দিকে পিঠ দিয়ে শুয়ে ছিলেন, হুবুরের চেহারা ছিল দেয়ালের দিকে ৷
যখন আবু বকর (রা) ঘরে ঢুকলেন তখন তাদেরকে ধমক দািলন এবং বললেন, রাসুলুল্পাহ
(সা)এর ঘরে শয়তানের বাদ্যযন্ত্র? রাসুলুল্লাহ (না) বললেন, হে আবু বকর ! তাদেরকে এটা
করতে দাও ৷ কেননা, প্রত্যেক সম্প্রদায়ের জন্যেই রয়েছে উৎসবের দিন এবং এটা আমাদের
উৎসবের দিন ৷ অনুরুপভাবে বিয়ে-শাদীর মজলিসে এবং প্রবাসীকে সংবর্ধনা জানানোর ক্ষেত্রে
একটি বিশেষ ধরনের দফ বাজানো জায়েয আছে-ষ্যা সংশ্লিষ্ট গ্রস্থাদিতে বর্ণিত রয়েছে ৷

কিতাবিগণ আরো বলেন যে, বনী ইসরাঈলরা যখন সমুদ্র অতিক্রম করল এবং সিরিয়ার
উদ্দেশে যাত্রা করল তখন তারা একটি স্থানে তিনদিন অবস্থান করে ৷ সেখানে পানি ছিল না ৷
তাদের মধ্য হতে কিছু সংখ্যক লোক এ নিয়ে নানারুপ সমালোচনা করে ৷ তখন তারা লবণাক্ত
বিস্বাদ পানি খুজে পেল, যা পান করার উপযোগী ছিল না ৷ তখন আল্লাহ্ তাআল লামুসা
(আ) কে নির্দেশ দিলে তিনি একটি কাঠের টুকরো পানির উপর রেখে দিলেন ৷ তখন তা মিঠা
পানিতে পরিণত হল এবং পানকারীদের জন্যে উপাদেয় হয়ে গেল ৷ তখন আল্লাহ তা অ ৷লা মুসা
(আ) কে ফরজ, সুন্নাত ইত্যাদি শিক্ষা দান করলেন এবং প্রচুর নসীহত প্রদান করলেন ৷

মহাপরাক্রমশালী ও আপন কিতাবের রক্ষণাবেক্ষণকারী আল্লাহ্ তাআলা তার কালামে

ইরশাদকরেন

“আর আমি বনী ইসরাঈলকে সমুদ্র পার করিয়ে দেই ৷৩ তারপর তারা প্রতিমা পুজায় রত
এক সম্প্রদায়ের নিকট উপস্থিত হয় ৷ তারা বলল, হে মুসা! তাদের দেবতার মত আমাদের
জন্যেও একটি দেবতা গড়ে দাও ৷ সে বলল, তোমরা তো এক মুর্থ সম্প্রদায়; এসব লোক যাতে
লিপ্ত রয়েছে তাতে৷ বিধ্বস্ত হয়ে এবং তারা বা করেছে তাও অমুলক ৷ (৭ আরাফ :
১৩৮ ১৩৯ )

তারা এরুপ মুর্থতা ও পথভ্রষ্টতার কথা মুসা (আ)-এর কাছে আরব করছিল অথচ তারা
আল্লাহ্ তাআলার নিদর্শনাদি ও কৃদৱত প্রত্যক্ষ করছিল যা প্রমাণ করে যে, মহাসম্মানিত ও
মহাপরাক্রমশালী আল্লাহ্ তাআলার রাসুল যা কিছু নিয়ে প্রেরিত হয়েছেন তা যথার্থ ৷ তারা
এমন একটি সম্প্রদায়ের নিকট উপস্থিত হলো, যারা মুর্তি পুজায় রত ছিল ৷ কেউ কেউ বলেন,
এই মুর্তিগুলো ছিল গরুর আকৃতির ৷ তারা তাদেরকে প্রশ্ন করেছিল যে কেন তারা ব্এগুলোর
পুজা করে? তখনও বা বলেজ্যি যে, এগুলো তাদের উপকার ও অপকার সাধন করে থাকে
এবং প্রয়োজনে তাদের কাচইে উপজীবিকা চাওয়া হয় ৷ বনী ইসরাঈলের কিছু মুর্থ লোক তাদের
কথায় বিশ্বাস করল ৷ তখন এই মুর্থরা তাদের নবী মুসা (আ)-এর কাছে আরব করল যে, তিনি
যেন তাদের জন্যেও দেব-দেবী গড়ে দেন যেমন ঐসব লোকের দেব-দের্বী রয়েছে ৷

মুসা (আ) তাদেরকে প্রতিউত্তরেরললেন, প্রতিমা পুজাকাৰিপণ নির্বোধ এবং তারা
হিদারাঃঙ্ঘ পথে পরিচালিত নয় ৷ আর এসব লোক যাতে লিপ্ত রয়েছে তা তো বিধ্বস্ত হবে এবং
তারা যা করেছে তাও অমুলক ৷ তারপর মুসা (আ) তার সম্প্রদায়কে আল্লাহ্ তাআলার
নিয়ামতরাজি এবং সমকালীন বিশ্বের জাতিসমুহের মধ্যে তাদেরকে জ্ঞানে, শরীয়তের এবং
তাদের মধ্য থেকে রাসুল প্রেরাণর মাধ্যমে গ্রেষ্ঠতু দানের কথা স্মরণ করিয়ে দিলেন ৷ তিনি
তাদেরকে আরো স্মরণ করিয়ে দেন যে, মহাশজ্যি অধিকারী ফিরআউনের কবল থেকে আল্লাহ্
তাআলা তাদেরকে উদ্ধার করেছেন এবং ফিরাউনকেতাদের সম্মুখেই ধ্বংস করে দিয়েছেন ৷
তাছাড়া ফিরআউন ও তার ঘনিষ্ঠ অনুচরগণ যেসব সম্পদ ও সুযোগ-সুবিধা নিজেদের জন্যে
সঞ্চিত ও সংরক্ষিত করে রেখেছিল ও সুরম্য প্রাসাদ গড়েছিল, আল্পাহ্ তাআলা তাদেরকে সে
সবের উত্তরাধিকারী করেছেন ৷ তিনি তাদের কাছে বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেন যে, এক
লা-শরীফ আল্পাহ্ তাআলা ব্যতীত অন্য কেউ ইবাদতের যোগ নয় ৷ কেননা তিনিই সৃষ্টিকর্তা,
রিযিকদাতা ও মহাপরাক্রমশালী ৷ তবে বনী ইসরাঈলের সকলেই তাদের জন্যে দেব-দেবী গড়ে
দেবার দরখাস্ত করেনি বরং কিছু সংখ্যক সুর্য ও নির্বোধ্ লোক এরুপ করেছিল ৷ তাই
আয়াতাৎশ০ বা সম্প্রদায় বলতে তাদের সকল
লোককে নয়, কিছু সং ৎখদ্রকবুবৰ্বা বুঝানো হয়েছে ৷ যেমন সুরায়ে কাহাফের আয়াতে আল্লাহ

তা আলা ইরশাদ করেন :

অর্থাৎ-“সেদিন তাদের সকলকে আমি একত্রকরণ এবং তাদের কাউকেও অব্যাহতি দেব
না এবং তাদেরকে তোমার প্রতিপালকের নিকট উপস্থিত করা হবে সারিবদ্ধডাবে এবং বলা
হবে, তােমাদেরকে প্রথমবার যেভাবে সৃষ্টি করেছিলাম সেভাবেই তোমরা আমার নিকট উপস্থিত
হবেই অথচ তোমরা মনে করতে যে, তোমাদের জন্য প্রতিশ্রুত ক্ষণে আমি তােমাদেয়কে

উপস্থিত করব না ৷” (সুরা কড়াহড়াফ : ৪ ৭ : ৮)
উক্ত আয়াতে বর্ণিত অথচ তোমরা মনে করতে দ্বারা তাদের সকলকে বুঝানো হয়নি বরং
কতক সং খ্যককে বুঝানো হয়েছে ৷ ইমাম আহমদ (র)এ প্রসঙ্গে বর্ণনা করেন যে, আবু ওয়াকিদ

লায়সী (রা) বলেন, হুনাইন যুদ্ধের সময় আমরা রাসুলুল্লাহ (সা)-এর সাথে বের হলাম ৷ যখন
আমরা একটি কুল গাছের কাছে উপস্থিত হলাম তখন আমরা বললাম, হে আল্পাহ্র রাসুল (সা) !
কাফিরদের যেরুপ তরবারি রাখার জায়গা রয়েছে, আমাদের সেরুপ তরবারি রাখার জায়গার
ব্যবস্থা করে দিন ৷ কাফিররা তাদের তরবারি কুল গাছে ঝুলিয়ে রাখে ও তার চারপাশে ঘিরে
বসে ৷ রাসুলুল্লাহ (সা) তখন (আশ্চর্যাৰিত হয়ে) বললেনষ্ক আল্লাহ আকবার! এবং বললেন এটা
হচ্ছে ঠিক তেমনি, যেমনটি বনী ইসরাঈলরা মুসা (আ) কে বলেছিল৪ মি আমাকে কখনই দেখতে পাবে না ৷ অর্থাৎ
মুসা (আ) আল্লাহ্ তাআলার প্রকাশের সময় স্থির থাকতে পারবেন না; কেননা পাহাড় যা
মানুষের তুলনায় অধিকতর স্থির ও কাঠামোগতভ ৷বে অধিক শক্তিশালী ৷ পাহাড়ই যখন আল্লাহ
তা আলার জ্যোতি প্রকাশের সময় স্থির থাকতে পারে না তখন মানুষ কেমন করে প ববে০ এ

জন্যই আল্লাহ্ তা আলা বলেন৪
গো অর্থাৎ তুমি বরং পাহাড়ের প্রতি লক্ষ্য কর৩ তা স্বস্থানে স্থির থা ৷কলে তবে ভুমি

আমাকে দেখতে পারবে

প্রাচীন যুগের কিতাবগুলোতে বর্ণিত রয়েছে যে, আল্লাহ তাআলা মুসা (আ)-কে বললেন,
হে মুসা, কোন জীবিত ব্যক্তি আমাকে দেখলে মারা পড়বে এবং কোন শুষ্ক দ্রব্য আমাকে
দেখলে উলট-পালট হয়ে গড়িয়ে পড়বে ৷ বুখারী ও মুসলিম শরীফে আবু মুসা (বা) হতে বর্ণিত
আছে যে, রাসুলুল্লাহ (সা) ইরশাদ করেছেন যে , আল্লাহ্ তাআলার পর্দা হচ্ছে নুর বা জ্যোতির ৷
অন্য এক বর্ণনা মতে, আল্লাহ তাআলার পর্দা হচ্ছে আগুন ৷ যদি তিনি পর্দা সরান তাহলে তার
চেহারার ঔজ্জ্বল্যের দরুন যতদুর তার দৃষ্টি পৌছে সবকিছুই পুড়ে ছাই হয়েযাবে ৷

আবদুল্লাহ্ ইবন আব্বাস (বা) আয়াতাংশ এর তাফসীর প্রসঙ্গে
বলেন, এটা হচ্ছে আল্লাহ্ তা আলড়ার ঐ নুর যা কোন বস্তুর সামনে প্রকাশ করলে তা ঢিকতে
পারবে না ৷ এজন্যই অ ৷ল্লাহ্ তা আলা ইরশাদ করেছেন :

“যখন তার প্রতিপালক পাহাড়ে জ্যোতি প্রকাশ করলেন তখন তা পাহাড়কে চুর্ণ বিচুর্ণ
করল ৷ আর মুসা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ল, যখন সে জ্ঞান ফিরে পেল তখন সে বলে উঠল৪
মহিমময় তুমি , আমি অনুতপ্ত হয়ে তােমাতেই প্রত্যাবর্তন করলাম এবং ঘুমিনদেব মধ্যে আমিই
প্রথম ৷ ”

মুজাহিদ (র)
আয়াতাংশ-এর তাফসীর প্রসঙ্গে বলেনং :

এটার অর্থ হচ্ছে পাহাড় তোমার চাইতে বড় এবং কাঠামােতেও তোমার চ ইভ্রু
অধিকতর শক্ত, যখন তার প্রতিপালক পাহাড়ে জ্যোতি প্রকাশ করলেন, মুসা (আ) পাহাড়ের
প্রতি দৃষ্টি নিক্ষেপ করে দেখেন, পাহাড় স্থির থাকতে পারছে না ৷ পাহাড় সামনের দিকে অগ্রসর
হচ্ছে, প্রথম ধাক্কায় তা চুর্ণ-বিচুর্ণ হয়ে গেল ৷ মুসা (আ) প্রত্যক্ষ করছিলেন পাহাড় কি করে ৷
অতঃপর তিনি সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়লেন ৷ ইমাম আহমদ (ব) ও তিরমিযী (ব ) হতে বর্ণিত এবং
ইবন জারীর (র) ও হাকিম (র) কর্তৃক সত্যায়িত এ ৰিববণটি আমি আমার তাফসীর গ্রন্থে বর্ণনা
করেছি ৷ ইবন জারীর (ব) আনাস (রা) সুত্রে বর্ণিত রিওয়ায়াতে অতিবিক্ত এটুকু রয়েছে যে
একদিন রাসুলুল্লাহ (সা) আয়াতাংশ তিলাওয়াত
করেন এবং আঙ্গুলে ইশারা করে বলেন, এভাবে পাহাড় ধসে গেল বলে রাসুলুল্পাহ (সা)
বৃদ্ধাঙ্গুলিকে কনিষ্ঠা আঙ্গুলেব উপরের জােড়ায় স্থাপন করলেন ৷

সুদ্দী (ব) ইবন আব্বাস (রা) থেকে বর্ণনা করেন, তিনি তার জ্যোতি কনিষ্ঠ অঙ্গুলির
পরিমাণে প্রকাশ করার পাহাড় চুর্ণ-বিচুর্ণ হয়ে গেল অর্থাৎ মাটি হয়ে গেল ৷ আয়াতাৎশ
উল্লেখিত এর অর্থ হচ্ছে বেভুশ হয়ে যাওয়া ৷ কাতাদা (ব) বলেন এটার
অর্থ হচ্ছে মারা যাওয়াত তবে প্রথম অর্থটি বিশুদ্ধতর ৷ কেননা, পরে আল্লাহ তা আলা বলেছেন :
দ্বুক্রো এেষ্ কেননা বেহুশ হবার পরই জ্ঞ ন ফিরে পায় ৷ আয়াতাৎ
৷ (মহিমময় তুমি, আমি অনুতপ্ত হয়ে তােমাতেই প্রত্যাবর্তন
করলাম এবং ঘুমিনদেব আমিই প্রথম ৷) অর্থাৎ আল্লাহ যেহেতু মহিমময় ও মহাসম্মানিত
সেহেতু কেউ তাকে দেখতে পারবে না ৷ মুসা (আ) বলেন, এর পর আর কোন দিনও তোমার
দর্শনের আকভক্ষা করব না ৷ আমিই প্রথম মুমিন অর্থাৎ তোমাকে কোন জীবিত লোক দেখলে
মারা যাবে এবং কোন শুষ্ক বন্তু দেখলে তা গড়িয়ে পড়বে ৷ ৰুখাবী ও মুসলিম শরীফে আবু
সাঈদ খুদরী (ব) থেকে বর্ণিত রয়েছে ৷ রাসুলুল্লাহ (সা) ইবশাদ করেন : “আমাকে তোমরা
আম্বিয়ায়ে কিরামের মধ্যে শ্রেষ্ঠ বলে প্রাধান্য দিও না ৷ কেননা, কিয়ামবুত তব দিন যখন মানব
জাতি জ্ঞানহারা হয়ে যাবে, তখন আমিই সর্বপ্রথম জ্ঞান ফিরে পাব ৷ আর তখন আমি মুসা
(আ) ৫-ক আল্লাহ তাআলার আরশের কাছে স্তম্ভ ধরে থাকতে দেখতে পাব ৷ আমি জানি না,
তিনি কি আমার পুর্বেই জ্ঞান ফিরে পাবেন, না কি তাকে তুর পাহাড়ে জ্ঞান হারাবার প্রতিদান
দেয়৷ হবে ৷’ পাঠটি বুখারীর ৷

আল-ৰিদায়া ওয়ান নিহায়া (১ম খণ্ড) ৮০-

এ হাদীসের প্রথম দিকে এক ইহুদীর ঘটনা রয়েছে ৷ একজন আনসারী তাকে চড়
মেরেছিলেন যখন সে বলেছিল : অর্থাৎ না,
এমন সভার শপথ করে বলছি যিনি মুসা (আ)-কে সমস্ত বনী আদমের মধ্যে অধিকতর সম্মান
দিয়েছেন ৷ তখন আনসারী প্রশ্ন করেছিলেন আল্লাহ কি মুহাম্মদ (সা) থেকেও মুসা (আ)-কে
অধিক সম্মান দিয়েছিলেন? ইহুদী বলল, ইা, এ সময় রাসুলুল্লাহ (সা) ইরশাদ করেন :

বুখারী ও মুসলিম শরীফে আবু হুরায়রা (বা) হতেও
অনুরুপ বর্ণনা রয়েছে ৷ এই হড়াদীসে , অর্থাৎ মুসা (আ) থেকে
আমাকে অপ্রাধিকার দেবে না, কথাঢিরও উল্লেখ রয়েছে ৷ এরুপ নিষেধ করার কারণ বিভিন্ন হতে
পারে ৷ কেউ কেউ বলেন, রড়াসুলুল্লাহ (সা) এটা বিনয় প্রকাশ করার জন্য বলেছিলেন ৷ আবার
কেউ কেউ বলেন, এটার অর্থ হচ্ছে আমার প্রতি পক্ষপাতিতৃ করে কিৎবা আম্বিয়ায়ে কিরামকে
তুচ্ছ করার উদ্দেশ্যে আমার অগ্ৰাধিকার বর্ণনা করবে না ৷

অথবা এটার অর্থ হচ্ছে এরুপ : এটা তোমাদের কাজ নয় বরং আল্লাহ্ তাআলাই কোন
নবীকে অন্য নবীর উপর মর্যাদা দান করে থাকেন ৷ এই মর্যাদা ও অগ্রাধিকার কারো অভিমতের
উপর নির্ভরশীল নয় ৷ এই মর্যাদা অভিমতের মাধ্যমে প্রমাণিত হয় না বরং আল্লাহ তাআলার
ওহীর উপর নির্ত্যাশীল ৷ যিনি বলেছেন, রড়াসুলুল্লাহ (সা) সকলের মধ্যে উত্তম’ এই তথ্যটি
জানার পুর্বে রাসুলুল্লাহ (সা) এরুপ বলতে নিষেধ করেছিলেন, যখন তিনি জানতে পারলেন যে,
তিনিই সকলের মধ্যে উত্তম তখন এ নিষেধাজ্ঞাটি রহিত হয়ে যায় ৷ তার এ অভিমত
সন্দেহমুক্ত নয় ৷ কেননা, উপরোক্ত হাদীসটি আবু সাঈদ খুদরী (র) ও আবু হুরায়রা (বা) হতে
বর্ণিত হয়েছে ৷ আর আবুহুরায়রা (বা) খায়বর যুদ্ধের বছরে মদীনায় হিজরত করেছিলেন ৷ তাই
খায়বর যুদ্ধের পর রাসুলুল্লাহ (সা) নিজের গ্রেষ্ঠত্বের কথা জানতে পেয়েছেন, এর সম্ভাবনা
ক্ষীণ ৷ আল্লাহ তাআলাই সর্বজ্ঞ ৷ তবে রাসুলুল্লাহ (সা) যে সমস্ত মানব তথা সমস্ত সৃষ্টির সেরা
এতে কোন সন্দেহের অবকাশ নই ৷

,

আল্লাহ্ ৩াআলা ইরশাদ করেন আেমরাই শ্রেষ্ঠ
উম্মত, মানব জাতির জন্য তোমাদের আবির্ভাব হয়েছে ৷ ’ (সুরা আলে ইমরান : ১১০) আর
উম্মতের পরিপুতাি তাদের নবীর মান-মর্যাদার দ্বারাই প্রতিষ্ঠিত হয় ৷ হাদীসের সর্বোচ্চ সুত্র তথা
মুতাওয়াতির বর্ণনা দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে যে, রাসুলুল্লাহ (সা) ইরশাদ কবেছেন্ স্কিয়ামতের
দিন আমি থাকর আদম সন্তানদের সর্দার ৷ এটা আমার পর্ব নয় ৷ অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সা)
মাকামে মাহমুদ যে কেবল তারই জন্য নির্দিষ্ট তা তিনি উল্লেখ করেন ৷ মাকামে মাহমুদ পুর্বের
ও পরের সকলের কাছেই ঈর্ষণীয় এবং এই মর্যাদা অন্য সব নবী-রাসুলের নাগালের বাইরে
থাকবে ৷ এমনকি নুহ (আ), ইব্রাহীম (আ), মুসা (আ) এবং ইসা ইবন মারয়াম (আ) প্রমুখ
বিশেষ মর্যাদাসম্পন্ন নবীপণও এ গৌরব লাভ করবেন না ৷

হাদীসে উক্ত উপরোক্ত বাক্য দ্বারা বোঝা যায়, বড়ান্দাদের আমলের ফয়সালা করার সময়
আল্লাহ তাআলা যখন জ্যোতি প্রকাশ করবেন, তখন কিয়ামতের মাঠে সৃষ্টিকুল জ্ঞানহারা হয়ে

যাবে ৷ অতিরিক্ত ভয়-ভীতি ও আতংকগ্রস্ততার জন্যই তারা এরুপ জ্ঞানহারা হবে ৷ তাদের মধ্যে
সর্বপ্রথম যিনি জ্ঞান ফিরে পারেন তিনি হচ্ছেন সর্বশেষ নবী এবং সব নবীর চেয়ে আসমান
যমীনের প্রতিপালকের প্রিয়তম মুহাম্মদ (সা) ৷ তিনি মুসা (আ) কে আরণের স্তম্ভ ধরে থাকতে
দেখবেন ৷ সত্যবাদী নবী মুহাম্মদ (সা) বলেন :

অর্থাৎ আমি জানি না তার জ্ঞানহারা হওয়া কি অতি হালকা ছিল কেননা তিনি দুনিয়ার
একবার জ্ঞানহার৷ হয়েছিলেন, নাকি তাকে তুর পাহাড়ে জ্ঞান হারানাের প্রতিদান দেয়৷ হয়েছে
অর্থাৎ তিনি আদৌ জ্ঞা ৷নহার৷ হননি ৷ এতে রয়েছে মুসা (আ) এর জন্য একটি বড় মর্যাদা ৷ তবে
এই বিশেষ মর্যাদা ৷র কারণে তার সার্বিক মর্যাদা বান বুঝায় না আর এজন্যই রাসুলুল্লাহ (সা ) মুসা
(আ)-এর মর্যাদা ও ফযীলতের দিকে এভাবে ইং গিত ৩করেন, কেননা যখন ইহুদী বলেছিল ং
সমগ্র
মানব জাতির উপর শ্রেষ্ঠতৃ দিয়েছেন, আনসারী ইহুদীর ণালে চপেটাঘাত করায় মুসা (আ) এর
সম্পর্কে কেউ বিরুপ মনোভাব পোষণ করতে পারে তাই রাসুলুল্লাহ্ (না) তার মর্যাদা ও মাহাত্ম্য
বর্ণনা করেছিলেন ৷

আল্লাহ্ তাআলা ইরশাদ করেন, হে মুসা! আমি তোমাকে আমার রিসালাত এবং
বাক্যালাপ দ্বারা তোমাকে মানুষের উপর গ্রেষ্ঠতৃ দিয়েছি অর্থাৎ সমসাময়িক যুগের লোকদের
উপর পুর্ববর্তীদের উপর নয়, কেননা ইব্রাহীম (আ) মুসা (আ) থেকে উত্তম ছিলেন ৷ যা
ইব্রাহীম (আ) এর কাহিনীর মধ্যে বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়েছে ৷ আবার তার পরবর্তীদের
উপরও নয়, কেননা মুহাম্মদ (সা)ত তাদের উভয় থেকেই উত্তম ছিলেন ৷ যেমন মি রাজের রাতে
সকল নবী-রাসুলের উপর মুহাম্মদ (সা )-এর শ্রেষ্ঠতৃ প্রকাশ পেয়েছে ৷ যেমন রাসুলুল্লাহ (সা)
ইরশাদ করেছেন :অর্থাৎ আমি
এমন মর্যাদায় অর্শ্ব ৩ হব যার আখাডক্ষ৷ সৃষ্টিকুলের সকলেই করবে, এমনকি ইব্রাহীম

আল্লাহ তাআলার বাণীন্ত্র শুষ্ট্রি অর্থাৎ আমি যে
রিসা ৷লাত তোমাকে দান করেছি তা শক্তভ৷ রে গ্রহণ কর, তার চাইতে বেশি এবং
কৃতজ্ঞদের অন্তর্ভুক্ত হও ৷

আল্লাহ্ তা আলা বলেন ং “আমি তার জন্যে ফলকে সর্ববিষয়ে উপদেশ ও সকল বিষয়ের
স্পষ্ট ব্যাখ্যা লিখে দিয়েছি ৷ ফলকগুলোর উপাদান ছিল খুবই মুল্যবান ৷ সহীহ গ্রন্থে আছে যে,
আল্লাহ তাআলা নিজ কুদরতী হাতে মুসা (আ) এর জন্য তাওরাত লিখেছিলেন, তার মধ্যে ছিল
উপদেশাবলী এবং বনী ইসরাঈলের প্রয়োজনীয় হালাল হারামের বিস্তারিত ব্যাখ্যা ৷ আল্লাহ
তা জানা বলেন, অর্থাৎ এগুলোকে সুদৃঢ়ভাবে লেক নিয়তে ধর ৷ তারপর বলেন
অর্থাৎ তোমার সম্প্রদায়কে নির্দেশ দাও তারা যেন
এগুলোর যা উত্তম তা গ্রহণ করে ৷ অর্থাৎ তারা যেন তার উত্তম ব্যাখ্যা গ্রহণ করে ৷ উপরোক্ত
আয়াতে উল্লেখিত এর অর্থ হচ্ছে তারা আমার আনুগত্য

পরিহারকারী, আমার আদেশের বিরোধী ও আমার রাসুলদের মিথ্যা প্রতিপন্নকারীদের পরিণাম
গোপন রাখছে ৷ আমি শীঘ্রই সত্য-ত্যাপীদের বাসস্থান তােমাদেরকে দেখার ৷

আয়াতে উল্লেখিত

অর্থাৎ-শ্ পৃথিবীতে যারা অন্যায়ভাবে দম্ভ করে বেড়ায় তাদের দৃষ্টি আমার নিদর্শন হতে
ফিরিয়ে দেব ৷ তারা এগুলোর তাৎপর্য ও মুল অর্থ বুঝতে অক্ষম থাকবে; তারা আমার
প্রত্যেকটি নিদর্শন ও অলৌকিক ঘটনা প্রত্যক্ষ করার পরও তাতে বিশ্বাস স্থাপন করবে না ; তারা
সৎপথ দেখলেও এটাকে পথ বলে গ্রহণ করবে না, এ পথে চলবে না, এ পথের অনুসরণ করবে
না ৷ কিভু তারা ভ্রান্ত পথ দেখলে এটাকে তারা পথ হিসেবে গ্রহণ করবে এটা এজন্য যে তারা
আমার নিদশ্নিকে প্র লাখ্যান করেছে, মিথ্যা প্রতিপন্ন করেছে; এগুলো থেকে তারা গাফিল
রয়েছে; এগুলোর অর্থ ও তাৎপর্য বৃঝতে৩ ৩তারা ব্যর্থ হয়েছে এবং সে অনুযায়ী আমল করা থেকে
বিরত রয়েছে ৷ যারা আমার নিদর্শন ও পরকালের সাক্ষা৩ তকে মিথ্যা ৷প্রতিপন্ন করে তাদের কর্ম

নিম্ফল হবে ৷ তারা বা করবে তদনুযায়ীই তাদেরকে প্ৰতিফল দেয়৷ হবে ৷ (সুরা আ যায়১
১ : ৬ ১ : ৭ )

বনী ইসরাঈলেৱ বাছুর পুজার বিবরণ

আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন ং

“মুসার সম্প্রদায় তার অনুপস্থিতিতে নিজেদের অলংকার দ্বারা গড়ল একটি বাছুর একটি
অবয়ব, যা হলো রব করত ৷ তারা কি দেখল ন যে, এটা তাদের সাথে কথা বলে নাও
তাদেরকে পথও দেখায় না ? তারা এটাকে উপাস্যরুপে গ্রহণ করলে এবং তারা ছিল জালিম ৷
তারা যখন অনুতপ্ত হল ও দেখল যে, তারা বিপথগামী হয়ে গিয়েছে, তখন তারা বলল,
আমাদের প্রতিপালক যদি আমাদের প্রতি দয়া না করেন ও আমাদেরকে ক্ষমা না করেন তবে
আমরা তাে ক্ষতিগ্রস্ত হবই ৷ মুসা যখন ক্রুদ্ধ ও ক্ষুব্ধ হয়ে তার সম্প্রদায়ের কাছে প্রত্যাবর্তন
করল, তখন বলল, আমার অনুপন্থিতিতে তোমরা আমার কত নিকৃষ্ট প্রতিনিধিত্ব করেছ ৷
তোমাদের প্রতিপালকের আদেশের পুর্বে তোমরা ত্বরান্বিত করলে? এবং সে ফলকগুলো ফেলে
দিল আর তার ভাইকে চুলে ধরে নিজের দিকে টেনে আনল ৷ হারুন বললেন, হে আমার
সহোদর ! লোকেরা তো আমাকে দুর্বল ঠাউরিয়েছিল এবং আমাকে প্রায় হত্যা করেই ফেলেছিল ৷
তুমি আমার সাথে এমন করো না যাতে শক্ররা আনন্দিত হয় এবং আমাকে জালিমদের অন্তর্ভুক্ত
করো না ৷ মুসা বলল, হে আমার প্রতিপালক ৷ আমাকে ও আমার ভাইকে ক্ষমা করো এবং
আমাদেরকে তোমার রহমতের মধ্যে দাখিল কর ৷ তুমিই শ্রেষ্ঠ দয়ালু ৷ যারা বাছুরকে
উপাস্যরুপে গ্রহণ করেছে, পার্থিব জীবনে তাদের উপর তাদের প্ৰতিপালকের (ক্রাধ ও লাঞ্চুনা
আপতিত হবেই ৷ আর এভাবে আমি মিথ্যা রচনাকারীদেরকে প্ৰতিফল দিয়ে থাকি ৷ যারা
অসৎকার্য করে তারা পরে তওবা করলে ও ঈমান আনলে তোমার প্রতিপালক তো পরম
ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু ৷ মুসার ক্রোধ যখন প্রশমিত হলো তখন সে ফলকগুলো তুলে নিল ৷
যারা তাদের প্রতিপালককে ভয় করে তাদের জন্য এতে যা লিখিত ছিল তাতে ছিল পথনির্দেশ ও
রহমত ৷ (সুরা আরাফ : ১ ৪৮ ১ ৫৪ )

অন্যত্র আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন০ :

অর্থাৎ হে মুসা! তোমার সম্প্রদায়কে পশ্চাতে ফেলে তোমাকে তৃর৷ করতে বাধ্য করল
কিসাে সে বলল, এই তো তারা আমার পশ্চারুত এবং হে আমার প্রবিপালক ! আমি তৃবায়
৫তামার কাছে আসলাম, তুমি সন্তুষ্ট হবে এ জন্য ৷ তিনি বললেন, আমি তোমার সম্প্রদায়কে
পরীক্ষায় ফেলেছি তোমার চলে আসার পর এবং সামিরী তাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছে ৷ তারপর
মুসা তার সম্প্রদায়ের কাছে ফিরে গেল ক্রুদ্ধ ও ক্ষুব্ধ হয়ে ৷ সে বলল, হে আমার সম্প্রদায়!
তোমাদের প্ৰর্টপ লক কি ৫তামাদেরকে এক উত্তম প্রতিশ্রুতি দেননিঃ তবে কি প্রতিশ্রুতিকাল
তোমাদের কাছে সুদীর্ঘ হয়েছে; না তোমরা চেয়েছ তোমাদের প্রতি আপতিত হোক তোমাদের
প্রতিপালকের ক্রোধ, যে কারণে তোমরা আমার প্রতি প্রদত্ত অংগীকার তংগ করলে? ওরা বলল,
আমরা তোমার প্রতি প্রদত্ত অংগীক৷ ৷র স্বেচ্ছায় ভঙ্গ করিনি, তবে আমাদের উপর চা ৷পিয়ে দেয়া
হয়েছিল লোকের অলংকারের বোঝা এবং আমরা তা অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ করি অনুরুপভ্যবে
সামিরীও নিক্ষেপ করে ৷৩ তারপর সে ওদের জন্যে গড়ল একটা বাছুর, একটা অবয়ব, যা হাম্বা
বব করত ৷ ওরা বলল, “এটাও তামাদের ইলাহ এবং মুসারও ইলাহ, কিন্তু মুসা ভুলে গিয়েছে ৷
তবে কি ওরা ভেবে দেখে না যে, এটা তাদের কথায় সাড়া দেয় না এবং তাদের কোন ক্ষতি
অথবা উপকার করবার ক্ষমতাও রাখে না ৷ হারুন৩ তাদেরকে পুর্বেই বলেছিল, হে আমার
সম্প্রদায়! এটার৷ দ্বারা তো কেবল তামাদেরকে পরীক্ষায় ফেলা হয়েছে ৷ তোমাদের প্রতিপালক
দয়াময় ৷ সুতরাং তোমরা আমার অনুসরণ কর এবং আমার আদেশ মেনে চল ৷ ওরা বলেছিল,
আমাদের কাছে মুসা ফিরে না আসা পর্যন্ত আমরা এটা ৷র পুজা হত ৩কিছুভ্রু তই বিরত হয় না ৷
মুসা বলল, হে হারুন! তুমি যখন দেখলে তারা পথভ্রষ্ট হয়েছে তখন কিসে৫ তামাকে নিবৃত্ত
করল, আমার অনুসরণ করা থেকে ? তবে কি তুমি আমার আদেশ অমান্য করলে? হারুন বলল,
হে আমার সহােদর আমার দা ৷ড়ি ও চুল ধ্রো না ৷ আমি আশংকা করেছিলাম যে, তুমি বলবে,
তুমি বনী ইসরাঈলদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করেছ ও তুমি আমার বাক্য পালনে যত্নবান হওনি ৷

মুসা বলল, হে সামিরী! তে ৷মার ব্যাপার কি? যে বলল, আমি দেখেছিলাম যা ওরা দেখেনি

তারপর আমি সেই দুতের (জিবরাঈলের) পদচিহ্ন থেকে এবং মুষ্ঠি (ধুলা) নিয়েছিলাম এবং
আমি এটা নিক্ষেপ করেছিলাম এবং আমার মন আমার জন্য শোভন করেছিল এইরুপ করা ৷”
মুসা বলল, দুর হও, তোমার জীবদ্দশায় তোমার জন্য এটাই রইল যে তুমি বলবে “আমি
অম্পৃশ্য” এবং তে ৷মার জন্য রইল একটি নির্দিষ্ট মেয়াদ, তোমার বেলায় যার ব্যতিক্রম হবে না
এবং তৃমি৫ তামার সেই ইলাহের প্রতি লক্ষ্য কর যার পুজায়তু মি ব্ব৩ ছিলে; আমরা ওটাকে

জ্বালিয়ে দেবই ৷ অতঃপর ওটাকে বিক্ষিপ্ত করে সাগরে নিক্ষেপ কররই ৷ তোমাদের ইলাহ তো
কেবল আল্লাহই, যিনি ব্যতীত অন্য কোন ইলাহ নেই ৷৩ তার জ্ঞান সর্ববিষয়ে ব্যাপ্ত ৷ (সুরা তাহা
৪ ৮৩ ৯৮ )

উপরোক্ত আয়াতসমুহে আল্লাহ তাআলা বনী ইসরাঈলের ঘটনা বর্ণনা করেছেন ৷ মুসা

(আ) যখন আল্লাহ তাআলা নির্ধারিত সময়ে উপনীত ৩হলেন, তখন তিনি তুর পর্বতে অবস্থান
করে আপন প্রতিপালকের সাথে একান্ত কথা বললেন ৷ মুসা (আ ৷ আল্লাহ্ তা আলার নিকট
বিভিন্ন বিষয়ে জ নতে চান এবং আল্লাহ্ তা আল৷ সে সব বিষয়ে৩ তাকে জ ৷নিয়ে দেন ৷ তাদের
মধ্যকার এক ব্যক্তি যাকে হারুন আস সামিরী বলা হয় সে যেসব অলংকার ধারস্বরু প নিয়েছিল
সেগুলো দিয়ে সে একটি বাছুর-মুর্তি তৈরি করল এবং বনী ইসরাঈলের সামনে ফিরআউনকে
আল্লাহ তাআলা ডুবিয়ে যাবার সময় জিবরাঈল (আ)-এর ঘোড়ার পায়ের এক মুষ্ঠি ধুলা
মুর্তিটির ভিতরে নিক্ষেপ করল ৷ সাথে সাথে বাছুর মুর্তিটি জীবন্ত বাছুরের মত হলো হলো
আওয়াজ দিতে লাগল ৷ কেউ কেউ বলেন, এতে তা রক্ত-মাংসের জীবন্ত একটি বাছুরে
রুপান্তরিত হয়ে যায় আর তা হলো হলো রব করতে থাকে ৷ কাতাদ৷ (র) প্রমুখ মুফাসসিরীন এ
মত ব্যক্ত করেছেন ৷ আবার কেউ কেউ বলেন, যখন এটার পেছন দিক থেকে বাতাস ঢুকত
এবং মুখ দিয়ে বের হত তখনই হলো হলো আওয়াজ হত যেমন সাধারণত গরু ডেকে থাকে ৷
এতে তারা এর চতুর্দিকে নাচতে থাকে এবং উল্লাস প্রকাশ করতে থাকে ৷ তারা বলতে লাগল,
এটাই তোমাদের ও মুসা (আ) এর ইলাহ, কিন্তু তিনি ভুলে গেছেন ৷ অর্থাৎ মুসা (আ) আমাদের
নিবল্টস্থ প্রতিপালককে ভুলে গেছেন এবং অন্যত্র গিয়ে তাকে ঘোজাখুজি করছেন অথচ
প্রতিপালক তো এখানেই রয়েছেন ৷ (নির্বো ধরা যা বলছে আল্লাহ তাআলা তার বহু বহু উর্ধে,
তার নাম ও গুণগুলো এসব অপবাদ থেকে পুত পবিত্র এবং আল্লাহ্ ৷ আলা প্রদত্ত নিয়ামত
সমুহও অগণিত) তারা যেটাকে ইলাহরুপে গ্রহণ করেছিল তা বড় জো র একটা ৷জস্তু বা শ্৷ ৷য়তান
ছিল ৷৩ তাদের এই ভ্রান্ত ধারণার অসারতা বর্ণনা প্রসঙ্গে আল্লাহ তা জানা বলেন, তারা কি
দেখে না যে, এই বাছুরটি তাদের কথার কোন উত্তর দিতে পারে না এবং এটা তাদের কোন
উপকার বা অপকার করতে পারে না ৷ অন্যত্র বলেন, তারা কি দেখে না যে, এটা তাদের সাথে
কথা বলতে পারে না এবং তাদেরকে পথনির্দেশ করতে পারে না ৷ আর এরা ছিল জালিম ৷ (৭
আরাফ : ১৪৮)

এখানে আল্লাহ তাআলা উল্লেখ করেন যে, এ জন্তুটি তা ৷দের সাথে কথা বলতে পারে না,
তাদের কোন কথার জবাব দিতে পারে না, কোন ক্ষতি করার ক্ষমতা রাখে না কিৎবা কোন
উপকার করারও শক্তি রাখে না,৩ তাদেরকে পখনির্দেশও করতে পারে না, তারা তাদের আত্মার

প্রতি জুলুম করেছে ৷ তারা তাদের এই মুর্থতা ও বিভ্রান্তির অসারতা সম্বন্ধে সম্যক অবগত ৷
“অতঃপর তারা যখন তাদের কৃতকর্মের জন্যেঅনুতপ্ত হল এবং অনুভব করতে পারল যে , তারা
ভ্রান্তির মধ্যে রয়েছে তখন তারা বলতে লাগল, যদি আমাদের প্রতিপালক আমাদের প্রতি দয়া
না করেন এবং আমাদের ক্ষমা না করেন, তাহলে আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে পড়ব ৷ ”
(৭ আরাফ : ১৪৯)
অতঃপর মুসা (আ) তাদের কাছে ফিরে আসলেন এবং তাদের বাছুর পুজা করার বিষয়টি
জানতে পারলেন ৷ তার সাথে ছিল বেশ কয়েকটি ফলক যেগুলোর মধ্যে তাওরাত লিপিবদ্ধ
ছিল, তিনি এগুলো ফেলে দিলেন ৷ কেউ কেউ বলেন, এগুলোকে তিনি ভেঙ্গে ফেলেন ৷
তাবীরা এরুপ বলে থাকে ৷ এরপর আল্লাহ তাআলা এগুলোর পয়িরৰর্ত অন্য ফলক দান
করেন ৷ কুরআনুল করীমের ভাষ্যে এর স্পষ্ট উল্লেখ নেই তবে এত দুর আছে যে, মুসা (আ)
তাদের কার্যকলাপ প্রত্যক্ষ করে, ফলকগুলাে ফেলে দিয়েছিলেন ৷ কিতাবীদের মতে, সেখানে
ছিল মাত্র দুইটি ফলক ৷ কুরআনের আয়াত দ্বারা বোঝা যায় যে, ফলক বেশ কয়েকটিই ছিল ৷
আল্লাহ্ তাআলা যখন তাকে তার সম্প্রদায়ের বাছুর পুজার কথা অবগত করেছিলেন , তখন মুসা
(আ) তেমন প্রভাবান্বিত হননি ৷ তখন আল্লাহ্ তাকে তা নিজ চোখে প্রত্যক্ষ করতে নির্দেশ
দেন ৷ এ জন্যেই ইমাম আহমদ (র) ও ইবন হিব্বান (র) কর্তৃক বর্ণিত হাদীসে রয়েছে যে ,
রসুলুল্লাহ (না) ইরশাদ করেন অর্থাৎ সংবাদ প্রাপ্তি এবং প্রত্যক্ষ
দর্শন সমান নয় ৷ অতঃপর মুসা (আ) তাদের দিকে অগ্রসর হলেন এবং তাদেরকে ভর্বৃসনা
করলেন এবং তাদের এ হীন কাজের জন্যে তাদেরকে দােষারোপ করলেন ৷ তখন তার কাছে

তারা মিথ্যা ওযর আপত্তি পেশ করে বলল :

অর্থাৎ- তারা বলল, আমরা তোমার প্রতি প্রর্দত্ত অঙ্গীকার স্বেচ্ছায় ভঙ্গ করিনি তবে
আমাদের উপর চাপিয়ে দেয়া হয়েছিল লোকের অলংকারের বোঝা এবং আমরা তা অগ্নিকুণ্ডে
নিক্ষেপ করি ৷ অনুরুপতাবে সামিরীও নিক্ষেপ করে ৷ (সুরা তা-হা : ৮৭)

তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত ফিরআউন সম্প্রদায়ের অলংকারের অধিকারী হওয়াকে তারা
পাপকার্য বলে মনে করতে লাগল অথচ আল্লাহ্ তাআলা এগুলোকে তাদের জন্য বৈধ করে
দিয়েছিলেন ৷ অথচ তারা মহা পরাক্রমশালী অদ্বিতীয় মহাপ্রতুর সাথে হলো হড়াম্ব৷ বরের অধিকারী
বাছুরের পুজাকে তাদের মুর্থতা ও নির্বৃদ্ধিতার কারণে পাপকার্য বলে বিবেচনা করছিল না ৷
অতঃপর মুসা (আ) আপন সহােদর হারুন (আ)-এর প্রতি মনােযোপী হলেন এবং তাকে
বললেন : মোঃ শু,ঠুকুপু১র্তৃ হে হড়ারুন! তুমি যখন দেখলে তারা পথভ্রষ্ট হয়েছে, তখন কিসে
তোমাকে নিবৃত্ত করল আমার অনুসরণ করা থেকে? (সুরা তা-হা : ৯২)

অর্থাৎ যখন তৃ তাদের কর্মকাণ্ডের ব্যাপারটি দেখলে তখন ঢুমি কেন আমাকে সে সম্বন্ধে

অবহিত করলে না? তখন তিনি বললেন,

আমি আশংকা করেছিলাম যে, তুমি বলবে যে, তুমি বনী ইসরাঈলদের মধ্যে
বিভেদ সৃষ্টি করেছ ৷ (সুরা তা-হা : ৯৪)

অর্থাৎ তুমি হয়ত বলতে, তুমি তাদেরকে ছেড়ে আমার কাছে চলে আসলে অথচ আমি
তোমাকে তাদের মধ্যে আমার প্রতিনিধি নিযুক্ত করে এসেছিলাম ৷

আল্লাহ্ তাআলা বলেন

“মুসা বলল, হে আমার প্রতিপালক ! আমাকে ও আমার ভাইকে ক্ষমা কর এবং আমাদেরকে
তোমার রহমতের মধ্যে দাখিল কর ৷ তৃমিই শ্রেষ্ঠ দয়ালু ৷ (সুরা আরাফ : ১৫১)

হারুন (আ) তাদেরকে এরুপ জঘন্য কাজ থেকে কঠোরভাবে নিষেধ করেছিলেন এবং

তাদেরকে কঠোরভাবে ভর্ধসনা করেছিলেন ৷ যেমন আল্লাহ্ তাআলা ইরশাদ করেন :

ও অর্থাৎ হারুন তাদেরকে
পুর্বেই বলেছিল, হে আমার সম্প্রদায়! এর দ্বারা তো কেবল তোমাদেরকে পরীক্ষায় ফেলা
হয়েছে ৷ অর্থাৎ আল্লাহ তাআলা এ বাছুর ও এর হলো রবকে তোমাদের জন্যে একটি পরীক্ষার
বিষয় করেছেন ৷

নিশ্চয়ই তোমাদের প্রতিপালক খুবই দয়াময় অক্ট্রৎ এ বাছুর তোমাদের প্রভু নয় ৷ (সুরা

তা-হা : ৯০ আয়াত) সুতরাং আমি যা বলি তার অনুসরণ
কর এবং আমার আদেশ মান্য কর ৷ তারা বলেছিল, আমাদের কাছে মুসা ফিরে না আসা পর্যন্ত
আমরা এটার পুজা থেকে কিছুতেই বিরত হয় না ৷” (সুরা তা-হা ব্র ৯১) ৷ আল্লাহ তাআলা
হারুন (আ) সম্পর্কে সাক্ষ্য দিচ্ছেন আর আল্লাহ্ তাআলার সাক্ষ্যই যথেষ্ট ৷ যে হারুন (আ)
তাদেরকে এরুপ জঘন্য কাজ থেকে নিষেধ করেছিলেন, তাদেরকে ভৎসনা করেছিলেন কিভু
তারা তার কথা মানা করেনি ৷ অতঃপর মুসা (আ) সড়ামিরীর প্রতি মনােযােগী হলেন এবং
বললেন, “তুমি যা করেছ কে তোমাকে এরুপ করতে বলেছিল ?” উত্তরে সে বলল, “আমি
জিবরাঈল (আ)-কে দেখেছিলাম, তিনি ছিলেন একটি ঘোড়ার উপর সওয়ার তখন আমি
জিবরাঈল (আ)-এর ঘোড়ার পায়ের ধুলা সংগ্রহ করেছিলাম ৷” আবার কেউ কেউ বলেন :
সামিরী জিবরাঈল (আ)-কে দেখেছিল ৷ জিবরাঈল (আ)-এর ঘোড়ার খুর যেখানেই পড়ত
অমনি সে স্থানটি ঘাসে সবুজ হয়ে যেত ৷ তাই সে ঘোড়ার খুরের নিচের মাটি সংগ্রহ করল ৷
এরপর যখন সে এই স্বর্ণ-নির্মিত বড়াছুরের মুখে ঐ মাটি রেখে দিল, তখনই সে আওয়াজ করতে
লাগল এবং পরবর্তী ঘটনা সংঘটিত হল ৷ এজনােই সামিরী বলেছিল-ষ্আমার মন আমার
জন্যে এরুপ করা শোভন করেছিল ৷ ’ তখন মুসা (আ) তাকে অভিশাপ দিলেন এবং বললেন,
তুমি সব সময়ে বলবে অর্থাৎ আমাকে কেউ স্পর্শ করবে না কেননা, যে এমন
জিনিস স্পর্শ করেছিল যা তার স্পর্শ করা উচিত ছিল না ৷ এটা তার দুনিয়ার শাস্তি ৷ অতঃপর
আখিরাতের শাস্তির কথাও তিনি ঘোষণা করেন ৷ অত্র আয়াতে উল্লেখিত কে কেউ
কেউ পাঠ করেছেন অর্থাৎ এর ব্যতিক্রম হবে না’ স্থলে আমি ব্যতিক্রম করব
না ৷ ’ অতঃপর মুসা (আ) বাছুরটি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেললেন ৷

আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া (১ম ঘ্নে)

এ অভিমত টি কাতাদ৷ (র) প্রমুখের ৷ আবার কেউ কেউ বলেন, উখ৷ দিয়ে তিনি বাছুর
মুর্তিটি ধ্বংস করেছিলেন ৷ এ অভিমতটি আলী (রা) , আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা) প্রমুখের ৷
কিতাবীদের ভাষাও তাই ৷ অতঃপর এটাকে মুসা (আ) সমুদ্রে নিক্ষেপ করলেন এবং বনী
ইসরাঈলকে সেই সমুদ্রের পানি পান করতে নির্দেশ দিলেন ৷ত তারা পানি পান করল ৷ যারা
বাছুরের পুজা করেছিল, বাছুরের ছাই তাদের ঠোটে লেগে রইল যাতে বোঝা গেল যে, তারাই
ছিল এর পুজারী ৷ কেউ কেউ বলেন, তাদের রং হলদে হয়ে যায় ৷

আল্লাহ তা আলা মুসা (আ) সম্বন্ধে আরও বলেন যে, তিনি বনী ইসর৷ ঈলকে বলেছিলেনর্গেৰু :

অর্থাৎ তোমাদের ইলাহ তো কেবল আল্লাহই যিনি বাতীত ৩অন্য কোন ইলাহ নেই ৷ তার
জ্ঞান সর্ববিষয়ে ব্যপ্ত ৷ ’

আল্লাহ তা ব্লেআটু৷ আরো বলেন০ ং

অর্থাৎ- যায়৷ বাছুরকে উপাস্যরুপে গ্রহণ করেছে পার্থিব জীবনে তাদের উপর তাদের

প্রতিপালকের ক্রোধ ও লাঞ্চুনা আপতিত হবেই, আর এভাবে আমি মিথ্যা রচনাকারীদের
প্রতিফল দিয়ে থাকি ৷ ’ (সুরা আরাফ : ১৫২)

বাস্তবিকই বনী ইসরাঈলের উপর এরুপ ৫ক্রা ধ ও লাঞ্চুন ই আপতিত হয়েছিল ৷ প্রাচীন
আলিমপণের কেউ কেউ বলেছেন, আয়াতাত্শ এর মাধ্যমে
কিয়ামত পর্যন্ত আগমনকারী প্রতিটি বিদআত উদ্ভাবনকা বীর এরুপ অবশ্যম্ভ৷ ৷বী পরিণামের কথা
বলা হয়েছে ৷ অতঃপর আল্লাহ তাআলা আপন ধৈর্যশীলতা, সৃষ্টির প্রতি তার দয়া ও তওবা
কবুলের ব্যাপারে বন্দোদের উপর তার অনুগ্নহের কথা বর্ণনা করে বলেন, যায়৷ অসৎ কার্য করে
তারা পরে তওবা করলে ও ঈমান আনলে তোমার প্রতিপালক তাে পরম ক্ষমাশীল, পরম
দয়ালু ৷’ (সুরা আরাফ০ : ১৫৩) ৷

কিভু বাছুর পুজারীদের হত আর শাস্তি ব্যতীত আল্লাহ্ তা আলা কোন তওবা কবুল করলেন

না ৷ যেমন আল্লাহ তা আলা ইরশাদ করেন০
fl;

আর স্মরণ কর, যখন মুসা আপন সম্প্রদায়ের লোককে বলল, হে আমার সম্প্রদায় !
বাছুরকে উপাস্যরুপে গ্রহণ করে তোমরা নিজেদের প্রতি ঘোর অত্যাচার করেছ ৷ সুতরাং তোমরা
তোমাদের স্রষ্টার পানে ফিরে যাও , এবং তোমরা নিজেদেরকে হত্যা কর ৷ তোমাদের স্রষ্টার কাছে

এটাই শ্রেয় ৷ তিনিও তামাদের প্রতি ক্ষমাপরবশ হবেন ৷ তিনি অ৩ তান্ত ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু ৷
(সুরা বাক্য রা ৫৪)

কথিত আছে একদিন ভে ৷রবেলা যারা বাছুর পুজা করেনি তারা তরবারি হাতে নিল;
অন্যদিকে আল্লাহ৩ তা অড়ালা তাদের প্রতি এমন ঘন কুয়াশা অবতীর্ণ করলেন যে প্রতিবেশী
প্রতিবেশীকে এবং একই বংশের একজন অন্যজনকে চিনতে পারছিল না ৷ তারা বাছুর
পুজারীদেরকে পাইকারী হারে হত্যা করল এবং তাদের মুলোৎপাটন করে দিল ৷ কথিত রয়েছে
তারা ঐ দিনের একই প্রভাতে সত্তর হাজার লোককে হত্যা করেছিল ৷

অতংপর আল্লাহ তাআলা বলেনং :

অর্থাৎ “যখন মুসার ণ্ক্রাধ প্রশমিত হল তখন সে ফলকগুলাে তুলে নিল ৷ যারা তাদের
প্রতিপালককে ভয় করে তাদের জন্য ওতে যা লিখিত ছিল তাতে ছিল পথনির্দেশ ও রহমত৷ ৷”
(সুরা আরাফং : ১৫৪)

আয়াতাৎশে উল্লেখিত দ্বারা কেউ কেউ প্রমাণ
করেন যে, ফলকগুলাে ভেঙে গিয়েছিল ৷ তবে এই প্রমাণটি সঠিক নয় ৷ কেননা কুরআনের
শব্দে এমন কিছু পাওয়া যায় না যাতে প্রমাণিত হয় যে, এগুলো ভেঙে গিয়েছিল ৷ আবদুল্লাহ
ইবন আব্বাস (রা) ফিৎনা সম্বলিত হাদীসসমুহে উল্লেখ করেছেন যে, তাদের বাছুর পুজা
ঘটনাটি ছিল তাদের সমুদ্র পার হবার পর ৷ এই অভিমতটি অযৌক্তিক নয়; কেননা তারা যখন
সমুদ্র পার হলো তখন, তারা বলেছিল, হে মুসা! তাদের যেমন ইলাহসমুহ রয়েছে আমাদের
জন্যেও তেমন একটি ইলাহ্ গড়ে দাও ৷ ” (সুরা আরাফ : ১০৮)

অনুরুপ অভিমত কিতাবীরা প্রকাশ করে থাকেন ৷ কেননা, তাদের বাছুর পুজার ঘটনাটি
ছিল বায়তৃল মুকাদ্দাস শহরে আগমনের পুর্বে ৷ বাছুর পুজারীদেরকে হত্যা করার যখন হকুম
দেয়া হয়, তখন প্রথম দিনে তিন হাজার লোককে হত্যা করা হয়েছিল ৷ অতঃপর মুসা (আ)
তাদের জন্যে ক্ষমা প্রার্থনা করলেন ৷ তাদের ক্ষমা করা হল এই শর্তে যে, তারা বায়তুল

মুকাদ্দাসে প্রবেশ করবে ৷ আল্লাহ তড়াআলা ইরশাদ করেনং :

”মুসা তার নিজ সম্প্রদায় থেকে সত্তরজন লোককে আমার নির্ধারিত স্থানে সমবেত হবার
জন্যে মনোনীত করল ৷৩ তারা যখন ভুমিকম্প দ্বারা আক্রান্ত হল, তখন মুসা বলল, হে আমার
প্রতিপালক! তুমি ইচ্ছা করলে পুর্বেই তো তাদেরকে এবং আমাৰুকও ধ্বং স করতে পারতে ৷
আমাদের মধ্যে যারা নির্বোধ তারা বা করেছে সেজন্য কি তুমি আমাদেরকে ধ্বংস করবেঃ এটা
তো শুধু তোমার পরীক্ষা, যা দিয়ে তুমি যাকে ইচ্ছে বিপথগামী কর এবং মাঝে ইচ্ছে সৎপথে
পরিচালিত কর ৷ তৃমিই তো আমাদের অভিভাবক ৷ সুতরাং আমাদের ক্ষমা কর ও আমাদের
প্রতি দয়া কর এবং ক্ষমাশীলদের মধ্যে ত্মিই তো শ্রেষ্ঠ ৷ আমাদের জন্য নির্ধারিত কর দুনিয়া ও
আখিরাঃ তর কল্যাণ, আমরা তোমার নিকট প্ৰত্যাবতনি করেছি ৷ আল্লাহ বলেন, আমার শাস্তি
যাকে ইচ্ছে দিয়ে থাকি, আর আমার দয়া, তাতো প্রত্যেক বন্তুতে ব্যাপ্ত ৷ সুতরাং × আমি এটা
তাদের জন্য নির্ধারিত করব, যারা তাকওয়৷ অবলম্বন করে, যাকাত দেয় ও আমার নিদর্শনে
বিশ্বাস করে ৷ যায়৷ অনুসরণ করে বড়ার্তাবাহক উঘী নবীর, যার উল্লেখ তাওরাত ও ইঞ্জিল, যা
তাদের নিকট রয়েছেত তাতে তারা লিপিবদ্ধ পায়, যে তাদেরকে সৎকা জের নির্দেশ দেয় ও
অসৎকার্যে বাধা দেয়, যে তাদের জন্য পবিত্র বস্তু হ লাল করে ও অপবিত্র বস্তু হড়ারাম করে এবং
যে যুক্ত করে তাদেরকে তাদের গুরুভার থেকে ও শৃৎখল থেকে যা তাদের উপর ছিল ৷ সুতরাং
যারা তার প্রতি ঈমান আনে, তাকে সম্মান করে, তাকে সাহায্য করে এবং যেই নুর তার সাথে
অবতীর্ণ হয়েছে তার অনুসরণ করে তারাই সফলকাম ৷ ” (সুরা আরাফ : ১ ৫ ৫ ১ ৫ ৭ )

সুদ্দী (র) আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা) ও অন্যান্য যুফাসৃসির উল্লেখ করেন যে, এই
সত্তরজন ছিলেন বনী ইসরাঈলের উলামায়ে কিয়াম ৷ আর তাদের সাথে ছিলেন মুসা (আ),
হারুন (আ), ইউশা (আ) নদোব ও আবীছ ৷ বনী ইসরাঈলের যারা বাছুর পুজা করেছিল তাদের
পক্ষ থেকে ক্ষমা প্রার্থনার জন্যে তারা মুসা (আ)-এর সাথে গিয়েছিলেন ৷ আর তাদেরকে হুকুম
দেয়৷ হয়েছিল তারা যেন পবিত্রতা ৷ও পরিচ্ছন্নত৷ অর্জন করে গোসল করে ও সুগন্ধি ব্যবহার
করে ৷ তখন তারা মুসা (আ)-এর সাথে আগমন করলেন, পাহাড়ের নিকটবর্তী হলেন;
পাহাড়ের উপরে ঝুলন্ত ছিল মেঘখণ্ড, নুরের স্তম্ভ ছিল সুউচ্চ ৷ মুসা (আ) পাহাড়ে আরোহণ
করলেন ৷ বনী ইসরাঈলর৷ দাবি করেন যে, তারা আল্লাহ তাআলার কালাম শুনেছেন ৷ কিছু
ৎখ্যক তাফসী রকার তাদের এ দাবিকে সমর্থন করেছেন এবং বলেছেন, সুরায়ে বাকারার ৭৫

নং আয়াবুত উল্লেখিত আল্লাহ তা আলার বাণী শ্ররণকারী যে দলটির কথা বলা হয়েছে,
সত্তরজবুনর দলের দ্বারাও একই অর্থ নেয়া হয়েছে ৷

রাবুয় বাকারায় আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেবুছন০ :

অর্থাৎ তোমরা কি এই আশা কর যে, তারা তোমাদের কথায় ঈমান আনবুব, যখন

তাদের একদল আল্লাহর বাণী শ্রবণ করে ৷৩ তারপর তা বুঝবার পর বুজবুন-শুবুন এটা বিকৃত
করে ৷ (সুরা বড়াকারা : ৭৫)

তবে এ আয়াতে যে শুধু তাদের কথাই বলা হয়েছে, এটাও অপরিহার্য নয় ৷ কেননা, আল্লাহ
তা আশা অন্যত্র ইরশাদ করেন ং
ষ্লোঃ
অর্থাৎ “মুশ্ারিকদের মধ্যে বুকউবু তামার কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করলে তুমি তাবুক আশ্রয়
দেবে যাতে সে আল্লাহর বাণী শুনতে পড়ায়, অতঃপর তাকে নিরাপদ স্থানে পৌছিবুয় দেবে ৷
কারণ তারা অজ্ঞ লোক ৷” (সুরা তওবা০ : ৬)

অর্থাৎ তাবলীগের খাতিরে তাবুক আল্লাহ্ তা আলার বাণী শোনাবার জন্যে হকুম দেয়া
হয়েছে, অনুরুপভাবুব তারাও মুসা (আ) থেকে তাবলীগ হিসেবে আল্লাহ তা আলার বাণী
শুনেছিবুলন ৷ কিত ৷বীরা আরো মনে করে যে, এ সত্তর ব্যক্তি আল্লাহ তা আলাবুক দেবুখছিল ৷
এটা তাদের ভ্রান্ত ধারণা বৈ আর কিছুই নয় ৷ কেননা, তারা যখন আল্লাহ তা আলাবুক দেখবুত

“স্মরণ কর, যখন তোমরা হে মুসা ৷৷ আমরা আল্লাহবুক প্রতাক্ষভাবুব না দেখা

পর্যন্ত তোমাকে কখনও বিশ্বাস করব না ৷ তখন তোমরা বজ্রাহত হবুয়ছিবুল, আর তোমরা

নিজেরাই বুদখছিবুল, মৃতু র পর তোমাদের পুনর্জীবিত করলাম, যাবুত তোমরা কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন
কর ৷’ ’(সুরা বাক বা ং ৫৫ ৫৬)

অন্যত্র আল্লাহ ত ৷আলা ইরশাদ করেনং :

অর্থাৎ-“তারা যখন ভুমিকম্প দ্বারা আক্রান্ত হল তখন মুসা বলল, হে আমার প্রতিপালক
তুমি ইচ্ছে করলে পুর্বেই তো তাদেরকে এবং আমাবুকও ধ্বং স করতে পারবুত ৷ ”

মুহাম্মদ ইবন ইসহাক (র) বলেন, ”মুসা (আ) বনী ইসরাঈল থেকে সত্তরজন সদস্যকে
তাদের বুশ্রষ্ঠবুৎ র ক্রমানুযায়ী মনোনীত করেছিলেন এবং তাদেরকে বলেছিলেন, আল্লাহ

তাআলার দিকে প্রত্যাগমন কর, নিজেদের কৃতকর্মের জন্য তওবা কর এবং তোমাদের মধ্যে
যারা বাছুর পুজা করে অন্যায় করেছে তাদের পক্ষ থেকে আল্লাহ তাআলার কাছে তোমরা
তওবা কর; তোমরা সিয়াম আদায় কর; পবিত্রতা অর্জন কর ও নিজেদের জামা-কাপড়
পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কর ৷” অতঃপর আপন প্রতিপালক কর্তৃক নির্ধারিত সময়ে সীনাই মরুভুমির
তুর পাহাড়ে মুসা (আ) তাদেরকে নিয়ে বের হয়ে পড়লেন ৷ আর তিনি কোন সময়ই আল্লাহ
তাআলার অনুমতি ব্যতীত সেখানে গমন করতেন না ৷ আল্লাহ তাআলার কালাম শ্যেনাবার
জন্যে তাদের সেই সত্তরজন মুসা (আ ) ন্কে অনুরোধ করল ৷ মুসা (আ) বললেন, আমি একাজটি
করতে চেষ্টা করব ৷ মুসা (আ) যখন পাহাড়ের নিকটবর্তী হলেন, তখন তার উপর যেঘমালার
স্তম্ভ নেমে আসল এবং তা সমস্ত পাহাড়কে আচ্ছন্ন করে ফেলল ৷ মুসা (আ) আরও নিকটবর্তী
হলেন এবং মেযমালায় ঢুকে পড়লেন, আর নিজের সম্প্রদায়কে বলতে লাগলেন, তোমরা
নিকটবর্তী হও ৷ ’ মুসা (আ) যখন আল্লাহ তাআলার সাথে কথা বলতেন, তখন মুসা (আ)-এর
মুখমণ্ডালর উপর এমন উজ্জ্বল নুরের প্রতিফলন ঘটত যার দিকে বনী আদমের কেউ দৃষ্টি
নিক্ষেপ করতে পারত না ৷ তাই সামনে পর্দা ঝুলিয়ে দেয়া হল, সম্প্রদায়ের লোকেরা অ্যাসর
হলেন এবং মেঘমালায় ঢুকে সিজদাবনত হয়ে পড়লেন ৷ আল্লাহ তাআলা যখন মুসা (আ )-এর
সাথে কথা বলছিলেন, মুসা (আ)-কে বলছিলেন, এটা কর , ঐটা করো না ৷ তখন তারা আল্লাহ
তাআলার কথা শুনছিলেন ৷ আল্লাহ তাআলা যখন তার নির্দেশ প্রদান সম্পন্ন করলেন এবং মুসা
(আ) থেকে যেঘমালা কেটে গেল ও সম্প্রদায়ের দিকে তিনি দৃষ্টি দিলেন, তখন তারা বলল, হে
মুসা ! আমরা তোমার কথায় বিশ্বাস করি না, যতক্ষণ না আমরা আল্লাহকে প্রকাশ্য দেখতে
পাই ৷ তারা তখন বজ্বাহত হল ও তাদের থেকে তাদের রুহ বের হয়ে পড়ল ৷ তাতে তারা
সকলেই মৃত্যুবরণ করল ৷

তৎক্ষণাৎ মুসা (আ) আপন প্ৰতিপালককে ডাকতে লাগলেন এবং অনুনয় বিনয় করে
আরবী জানাতে লগেলেন :

অর্থাৎ “হে আমার প্রতিপালক ! তুমি ইচ্ছে করলে পুর্বেই তো তাদেরকে এবং আমাকেও
ধ্বংস করতে পারতে ৷ আমাদের মধ্যে যারা নির্বোধ, তারা বা করেছে সেজন্য তুমি আমাদেরকে
কি ধ্বংস করবেঃ

”অন্য কথায়, আমাদের মধ্য হতে নির্বোধরা যা করেছে; তারা বাছুরের পুজা করেছে ৷
তাদের এ কাজের সাথে আমাদের কোন সম্পর্ক নেই ৷ আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা), মুজাহিদ
(র), কাতাদা (র) ও ইবন জুরায়জ (র) বলেন, বনী ইসরাঈলরা বজ্বাঘাতে আক্রান্ত হয়েছিল,
কেননা তারা তাদের সট্রুপ্নদায়কে বাছুর পুজা থেকে বিরত রাখেনি ৷ উক্ত আয়াতে উল্লেখিত
আয়াতাৎশ এর অর্থ হচ্ছে, এটা তোমার প্রদত্ত পরীক্ষা ছাড়া কিছুই
নয় ৷ ’ এ অভিমতটি আব্দুল্লাহ ইবন আব্বাস (বা) , সাঈদ ইবন জুবাইর (রা) , আবুল আলীয়া
(র) , রাবী ইবন আনাস (র) ও পুৰ্বাপরের অসংখ্য উলামায়ে কিরামের ৷ অর্থাৎ হে আল্লাহ !
তৃমিই এটা নির্ধারিত করে রেখেছিলে, বা তাদেরকে এটার দ্বারা পরীক্ষা করার জন্যে বাছুর পুজা
করার বিষয়টি সৃষ্টি করেছিলে ৷

যেমন অন্য আয়াতে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন০ ং

অর্থাৎ “হারুন তাদেরকে পুর্বেই বলেছিল, হে আমার সম্প্রদায়! বাছুর পুজা দ্বার তো
কেবল তােমাদেরকে পরীক্ষায়ই ফেলা হয়েছে ৷” (সুরা তা-হাং : ৯০)

এজন্য মুসা (আ) বলেছিলেনং :
অর্থাৎ “তুমিই এই পরীক্ষা দ্বারা যাকে ইচ্ছে পথভ্রষ্ট কর এবৎ যাকে ইচ্ছে হিদায়ত কর ৷
তুমিই নির্দেশ ও ইচ্ছার মালিক ৷ তুমি যা নির্দেশ বা ফয়সাল৷ কর তা বাধা দেয়ার মত কারো

শক্তি নেই এবং কেউ তা করতে পারে না ৷

তুমিই তাে আমাদের অভিভাবক, সুতরাং আমাদেরকে ক্ষমা কর ও আমাদের প্রতি দয়া কর

এবং ক্ষমাশীলদের মধ্যে তুমিই তো শ্রেষ্ঠ ৷ আমাদের জন্য নির্ধারিত কর ইহকা ৷ল ও পরকালের

কল্যাণ, আমরা তােমা র নিকট প্রত্যাবর্তন করেছি এবং অনুনয় বিনয় সহকারে তােমাকেই স্মরণ
করেছি ৷

উপরোক্ত তাফসীরটি আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা), মুজাহিদ, সাঈদ ইবন জুবাইর, আবুল
আলীয়া, ইবরাহীম তায়মী, যাহ্হাক, সুদ্দী, কাত ৷দা (র) ও আরো অনেকেই এরুপ ব্যাখ্যা

করেছেন ৷ আভিধানিক অর্থও তইি ৷

অর্থাৎ–আমি যেসব বস্তু সৃষ্টি করেছি এগুলোর কারণে আমি মাঝে ইচ্ছে শাস্তি প্রদান
করব ৷ আমার রহমত তা তো প্ৰতেক বন্তুতে ব্যাপ্ত ৷ (সুরা আরাফ : ১৫৬)

সহীহ্ বুখারী ও সহীহ্ মুসলিমে আছে, রাসুলুল্লাহ (সা) ইরশাদ করেছেন : “আল্লাহ

তাআলা যখন আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীর সৃজন সমাপ্ত করেন তখন তিনি একটি লিপি লিখলেন

ও আরশের উপর তার কাছে রেখে দিলেন, তাতে লেখা ছিল
“নিশ্চয়ই আমার রহমত আমার গযবকে হার মানায়’ ৷’

আল্পাহ তা আলা ইরশাদ করেন০ সুতরাং এটা আমি তাদের জন্যে নির্ধারিত করব যারা
তাকওয়া অবলম্বন করবে, যাকাত দেবে ও আমার নিদর্শনে বিশ্বাস করবে ৷” অর্থাৎ আমি
সুনিশ্চিতভাবে তাদেরকেই রহমত দান করব যারা এসব গুণের অধিকারী হবে ৷ “আর যারা
বার্তাবাহক উথী নবীর অনুসরণ করবে’ এখানে মুসা (আ)-এর কাছে আল্লাহ তা জানা
মুহাম্মদ (না) ও তার উষ্মত সম্বন্ধে উল্লেখ করে তাদের মর্যাদার প্রতি ইঙ্গিত করেছেন এবং মুসা
(আ)-এর সাথে একান্ত আলাপে আল্লাহ্ তা’আলা এ বিষয়টিও জানিয়ে দিয়েছিলেন ৷ আমার
তাফসীর গ্রন্থে এই আয়াত ও তার পরবর্তী আয়াতের তাফসীর বর্ণনাকালে আমি এ সম্পর্কে
বিস্তারিত প্রয়োজনীয় আলোচনা পেশ করেছি ৷

কাতাদা (র) বলেন, মুসা (আ) বলেছিলেন, “হে আমার প্রতিপালক! ফলকে আমি এমন
এক উম্মতের উল্লেখ দেখতে পাচ্ছি যারা হবে শ্রেষ্ঠ উম্মত, মানব জাতির জন্য তাদের আবির্ভাব
হবে, তারা সৎ কার্যের নির্দেশ দান করবে, অসৎ কাজে নিষেধ করবে ৷ হে প্রতিপালক!
তাদেরকে আমার উম্মত করে দিন আল্লাহ ৷ আলা বললেন, না, ওরা আহমদের উম্মত৷ ’
পুনরায় মুসা (আ) বললেন, হে আমার প্রতিপালক ! ফলকে আমি একটি উম্মতের উল্লেখ পাচ্ছি
যারা সৃষ্টি হিসেবে সর্বশেষ কিন্তু জান্নাতে প্রবেশ করার ক্ষেত্রে সর্বপ্রথম ৷ হে আমার প্রতিপালক !
তাদেরকে আমার উম্মত করে দিন!’ আল্লাহ তাআলা বললেন, না, এরা আহমদের উম্মত ৷
আবার মুসা (আ) বললেন, হে আমার প্রতিপালক ! ফলকে আমি একটি উম্মতের উল্লেখ পাচ্ছি,
যাদের অত্তরে আল্লাহ তাআলার কালাম সুরক্ষিত, অর্থাৎ ওরা আল্লাহ তাআলার কালামের
হাফিজ ৷ তারা হিফজ হতে আল্লাহ তা আলার কালাম তিলাওয়াত ৩করবেন ৷ উম্মতে মুহড়াম্মদীর
পুর্বে যেসব উষ্মত ছিলেন তারা দেখে দেখে আল্লাহ তা জানার কালাম তিলাওয়াত করতেন ৷
বিন্দু যখন তাদের থেকে আল্লাহ তা জানার ক ৷লাম উঠিয়ে নেয়া হতো, তখন তারা আর কিছুই
তিলাওয়াত করতে পারতো না ৷ কেননা, তারা আল্লাহ তা আলার কালামের কোন অং শ্ইি হিফজ
করতে পারেনি ৷ তারা পরবর্তীতে আল্লাহ তা জানার কালামকে আর চিনতেই সক্ষম হতো না ৷
কিন্তু উম্মতে মুহাষ্মদীকে আল্লাহ তাআলার কালাম হিফজ করার তাওফীক দান করা হয়েছে, যা
অন্য কা ৷উকে দান করা হয়নি ৷ মুসা (আ) বললেন, হে আমার প্রতিপালক ওদেরকে আমার
উম্মত করে দিন’ ৷ আল্লাহ৩ তা জানা বললেন, ,না ওরা আহমদের উষ্মত ৷

মুসা (আ) আবারো বললেন, “হে আমার প্রতিপালক ফলকে আমি এমন একটি উম্মতের
উল্লেখ পাচ্ছি, যারা তাদের পুর্বের আসমানী কিতাবসমুহের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করার এবং শেষ
কিতাবের প্ৰতিও বিশ্বাস স্থাপন করবে ৷ তারা পথভ্রষ্ট বিভিন্ন গোত্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে,
এমনকি আখেরী যামানার একচক্ষুবিশিষ্ট মিথ্যাবাদী দাজ্জালের বিরুদ্ধেও জিহাদ করবে ৷
তাদেরকে আমার উন্নত করে দিন ৷ ” আল্লাহ তাআলা বললেন, না, ওরা আহমদের উম্মত ৷ ’
মুসা (আ) পুনরায় বললেন, “হে আমার প্রতিপালক ফলকে আমি এমন একটি উম্মতের উল্লেখ
পাচ্ছি৷ যার ৷আল্লাহ তা আলার নামের সাদকা খয়রাত নিজেরা খাবে কিত্তু তাদেরকে এটার জন্যে
আবার পুরস্কারও দেয়া হবে ৷” উম্মতে মুহাম্মদীর পুর্বে অন্যান্য উষ্মতের কোন ব্যক্তি যদি সাদকা
করত এবং তা আল্লাহ তাআলার দরবারে কবুল হত তখন আল্লাহ তাআলা আগুন প্রেরণ
করতেন এবং সে আগুন তা পুড়িয়ে দিত ৷ কিত্তু যদি তা কবুল না হত তাহলে আগুন তা
পােড়াত না ৷ বরং এটাকে পশু-পাখিরা খেয়ে ফেলত এবং আল্লাহ তাআলা ঐ উষ্মতের ধনীদের
সাদকা দরিদ্রদের জন্যে গ্রহণ করবেন ৷ মুসা (আ) বললেন, “হে আমার প্রতিপালক ৷ এদেরকে
আমার উষ্মত বানিয়ে দিন ৷ আল্লাহ তাআলা বললেন, না, ওরা আহমদের উম্মত ৷ মুসা (আ)
পুনরায় বললেন, “ফলকে আমি এমন এক উম্মতের উল্লেখ পাচ্ছি, তারা যদি একটি নেক কাজ
করতে ইচ্ছে করে অথচ পরবর্তীতে তা করতে না পারে, তাহলে তাদের জন্য একটি নেকী লেখা
হবে ৷ আর যদি তা তারা করতে পারে, তাহলে তাদের জন্যে দশ থেকে সাতশত গুণ পর্যন্ত
নেকী দেয়৷ হবে ৷ ওদেরকে আমার উষ্মত করে দিন !” আল্লাহ তাআলা বললেন, “না, ওরা
আহমদের উম্মত ৷” মুসা (আ) পুনরায় বললেন, “আমি ফলকে এমন একটি উম্মতের উল্লেখ

পাচ্ছি যারা অন্যদের জন্যে কিয়ামতের দিন সুপারিশ করবে এবং তাদের সে সুপারিশ কবুলও
করা হবে ৷ তাদেরকে আমার উম্মত করে দিন ৷” আল্লাহ তাআলা বললেন, “না, এরা
আহমদের উষ্মত ৷ ”

কাতাদা (র) বলেন, আমাদের কাছে বর্ণনা করা হয়েছে যে, অতঃপর মুসা (আ) ফলক
ফেলে দিলেন এবং বললেন হে আল্লাহ ! আমাকেও
আহমদের উম্মতে শামিল করুন ৷ অনেকেই মুসা (আ) এর এরুপ মুনাজাত উল্লেখ করেছেন
এবং ঘুনাজাতে এমন বিষয়াদি সম্বন্ধে উল্লেখ রয়েছে, যেগুলোর কোন ভিত্তি খুজে পাওয়া যায়
না ৷ তাই বিশুদ্ধ হাদীস ও রাণীসমুহেয় মাধ্যমে প্রাপ্ত এ সংক্রান্ত বিবরণ আল্লাহ তাআলার
সাহায্য, তাওফীক, হিদায়াত ও সহায়তা নিয়ে পেশ করব ৷

হাফিজ আবু হড়াতিম মুহাম্মদ ইবন হড়াতিম ইবন হিব্বড়ান (র) তার বিখ্যাত সহীহ’ গ্রন্থে
জান্নাতীদের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন মর্যাদা সম্পর্কে আল্লাহ তাআলার কাছে মুসা (আ ) এর জিজ্ঞাসা
সম্পর্কে বলেন : মুপীরা ইবন তারা (বা) থেকে বর্ণিত, তিনি রাসুল (সা) থেকে বর্ণনা করেন যে,
মুসা (আ) আল্লাহ তাআলাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, জান্নাভীদের মধ্যে মর্যাদার সর্বনিম্ন কে ?
আল্লাহ তাআলা বলেন, জান্নড়াভীগণ জান্নড়াতে প্রবেশ করার পর এক ব্যক্তি আগমন করবে ৷
তখন তাকে বলা হবে, তুমি জান্নাতে প্রবেশ কর ৷ যে ব্যক্তি বলবে, আমি (কমন করে জান্নাতে
প্রবেশ করবো অথচ লোকজন সকলেই নিজ নিজ স্থান করে নিয়েছে ও নির্ধারিত নিয়ামত লাভ
করেছে ৷ তাকে তখন বলা হবে যে, যদি তোমাকে দুনিয়ার রাজাদের কোন এক রাজার রাজেব্রর
সমান জান্নাত দেয়া হয়, তাহলে কি তুমি সন্তুষ্ট হবো উত্তরে সে বলবে, ইশ্বা , আমার
প্রতিপালকৰু’ তাকে তখন বলা হবে, তোমার জন্যে এটা এটার ন্যায় আরো একটা এবং এটার
ন্যায় আরো এক জান্নাত ৷ সে তখন বলবে, হে আমার প্রতিপালক ! আমি সন্তুষ্ট ৷ ’ তখন তাকে
বলা হবে, এর সাথে রয়েছে তোমার জন্যে যা তোমার মন চাইবে ও যাতে চোখ জুড়াবে ৷ ’ মুসা
(আ) আল্লাহ তাআলড়ার কাছে জানতে চান, জান্নাডীদের মধ্যে সর্বোচ্চ মর্যাদার অধিকারী ৫ক?’
আল্লাহ্ তাআলা বললেন, “তাদের সম্বন্ধে আমি তোমাকে বলছি, তাদের মর্যাদার বৃক্ষটি আমি
নিজ কুদরতী হাতে রোপণ করেছি এবং তা চুড়ান্ত পর্যায়ে পৌছিয়েছি- তা এমন যা কোন দিন
কোন চোখ দেখেনি, কোন কান শুনেনি এবং যা কোন আদম সন্তানের কল্পনায় আসেনি ৷”

এ হাদীসের বক্তব্যের যথার্থতার প্রমাণ বহন করে কুরআন মজীদের নিম্নোক্ত আয়াত

ঠো

অর্থাৎ “কেউই জানে না তাদের জন্য নয়ন প্রীতিকর কি লুক্কায়িত রাখা হয়েছে তাদের
কৃতকর্মের পুরস্কার স্বরুপ ৷” (৩২ সাজদা : ১ ৭)

অনুরুপভাবে ইমাম মুসলিম (র) ও ইমাম তিরমিযী (র) সুফিয়ান ইবন উয়াইনা (র) সুত্রে
বর্ণনা করেন, মুসলিমের পাঠ হচ্ছে (ত্রেব্র অতঃপর তাকে বলা হবে যদি
পৃথিবীর কোন রাজার রাজ্যের সমতুল্য তোমাকে দান করা হয় তাতে কি তুমি সন্তুষ্ট হবো তখন
যে ব্যক্তি বলবে, হে আমার প্রতিপালক ! আমি এতে সত্তুষ্ট ৷ ’ আল্লাহ তাআলা বলবেন, তোমার
জন্যে রয়েছে এটা, এটার অনুরুপ এবং এটার অনুরুপ ৷ এটার অনুরুপ, আরো এটার অনুরুপ

আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া (১ম ঞ্জো)

পঞ্চম বারের পর সে ব্যক্তি বলবে : হে আমার প্রতিপালক! এটাতে আমি সন্তুষ্ট ৷ ’ অতঃপর
বলা হবে, এটা তো তোমার জন্যে থাকবেই এবং তার সাথে আরো দশগুণ, আর এছাড়াও
তোমার জন্যে থাকবে যা তোমার মনে চাইবে ও যাতে তোমার চোখ জুড়াবে ৷ ’ তখন সে ব্যক্তি
বলবে, হে আমার প্রতিপালক! আমি সন্তুষ্ট ৷’ আর মুসা (আ) বললেন : হে আমার
প্রতিপালক ! এরাই তাহলে মর্যাদার সর্বোচ্চ?’ তখন আল্লাহ তাআলা বললেন, তাদের সম্মানের
বৃক্ষ আমি নিজ হাতে বোপণ করেছি এবং সম্মানের পরিচর্যার কাজও আমিই সমাপ্ত করেছি ৷
তাদের এত নিয়ামত দেয়৷ হবে, যা কোন চোখ দেখেনি, কোন কান শুনেনি এবং কোন
মানবহৃদয় এর কল্পনাও করেনি’ ৷ ইমাম মুসলিম (র) বলেন, কুরআন মজীদের আয়াতে তার
যথার্থতার প্রমাণ রয়েছে

ইমাম তিরমিযী (র) হাদীসটি হাসান’ ও সহীহ বলেছেন ৷ কেউ কেউ বলেন, হাদীসটিকে

মওকুফ বললেও বিশুদ্ধ মতেত তা মারফু ৷ ইবন হিব্বান (র)৩ তা ৷র সহীহ’ গ্রন্থে মুসা (আ) কর্তক
তার প্রতিপালককে সাতটি প্রশ্ন জিজ্ঞাসা প্রসঙ্গে বলেন ং

আবু হরায়রা (রা) রাসুলুল্পাহ (যা) থেকে বর্ণনা করেন ৷ একদিন মুসা (আ) আপন
প্রতিপা ৷লকের কাছে ছয়টি বিষয়ে প্রশ্ন করেন, আর এই ছয়টি বিষয় শুধু৩ তারই জন্যে বলে তিনি
মনে করেছিলেন ৷ সপ্তম বিষয়টি মুসা (আ) পছন্দ করেননি ৷ মুসা (আ) প্রশ্ন করেন, (১) হে
আমার প্রতিপালক৷ তোমার বান্দাদের মধ্যে সর্বাধিক পরহেজগার কে ? আল্লাহ তাআলা
বললেন? যে ব্যক্তি যিকির করে এবং পাফিল থাকে না ৷ (২) মুসা (অ ) বলেন, তোমার
বান্দাদের মধ্যে সর্বাধিক হিদায়াতপ্রাপ্ত কে? আল্লাহ তা আল৷ বলেন, যে আমার হিদায়াতের
অনুসরণ করে ৷ (৩) মুসা (আ) বলেন, তোমার বান্দাদের মধ্যে সর্বোত্তম বিচারক কে? আল্লাহ
তাআলা বলেন, যে মানুষের জন্যে সেরুপ বিচারই করে যা সে নিজের জন্যে করে ৷ (৪ ) মুসা
(আ) বলেন, তোমার বান্দাদের মধ্যে সর্বাধিক জ্ঞানী কে?অ ৷ল্লাহ তা আলা বলেন, এমন জ্ঞানী
যে জ্ঞান আহরণে তৃপ্ত হয় না বরং লোকজনের জ্ঞানকে নিজের জ্ঞানের সাথে যোগ করে ৷ (৫)
মুসা (আ) বলেন, তোমার বান্দাদের মধ্যে সর্বাধিক সম্মানিত কে? আল্লাহ্ তাআলা বলেন, যে
বান্দ৷ প্রতিশোধ গ্রহণের সামর্থ্য থাকা সত্বেও ক্ষমা করে দেয় ৷ (৬) মুসা (আ) প্রশ্ন করেন ?
তোমার বান্দাদের মধ্যে সর্বাধিক ধনী কে? আল্লাহ্ তাআলা বলেন, যে বান্দা তাকে যা দেয়া
হয়েছে তা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকে ৷ ’ (৭) মুসা (আ) প্রশ্ন করেন : তোমার বান্দাদের মধ্যে সর্বাধিক
দরিদ্র কে? আল্লাহ্ তাআলা বলেন, মানকুস’-যার মনে অভাববোধ রয়েছে ৷ রাসুলুল্লাহ (স)
বলেন, “বাহ্যিক ধনীকে প্রকৃত পক্ষে ধনী বলা হয় না, অম্ভরের ধনীকেই ধনী বলা হয় ৷” যখন
আল্লাহ তা আলা কোন বান্দার প্রতি কল্যাণ চান, তখন তাকে অম্ভরে ধনী হবার এবং হৃদয়ে
আল্লাহর প্রতি ভয় করার৩ তাওফীক দেন ৷ আর যদি কোন বান্দার অকল্যাণ চান তাহলে তার
চোখ দা ৷রিদ্রকে প্রকট করে লেন ৷ হাদীসে বর্ণিত ,ংপ্রুন্১ শব্দের ব্যাখ্যার ইবন হিব্বান (র)
বলেন, এটার অর্থ হচ্ছে তাকে যা কিছু দেয়৷ হয়েছে তা সে নগণ্য মনে করে এবং আরো ৷অধিক
চায় ৷

ইবন জারীর (র) তার ইতিহাস গ্রন্থে আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা) থেকে অনুরুপ বর্ণনা
করেছেন ৷ তবে তিনি এতটুকু বর্ধিত করে বলেন, মুসা (আ) বলেন, হে আমার প্রতিপালক !

তোমার বন্দোদের মধ্যে কে সৰ্বাধিক জ্ঞানী? আল্লাহ তাআলা বলেন, যে নিজের জ্ঞানের সাথে
সাথে লোকজনের জ্ঞানও অন্বেষণ করে ৷ অচিরেই সে একটি উপদেশ বাণী পারে, যা তাকে
আমার হিদায়াতের দিকে পথপ্রদর্শন করবে কিৎবা আমার নিষেধ থেকে বিরত রাখবে ৷ মুসা
(আ) বললেন, হে আমার প্রতিপালক আমার চেয়ে অধিক জ্ঞানী কি পৃথিবীতে কেউ আছেন?
আল্লাহ্ তাআলা বললেন, হী৷ আছে, সে হচ্ছে খিযির ৷ ’ মুসা (আ) খিযির (আ)-এর সাথে
সাক্ষাৎ করার জন্যে পথের সন্ধান চান ৷ পরবর্তীতে এর আলোচনা হবে ৷

ইবন হিব্বানের বর্ণিত হাদীসের অনুরুপ হাদীস ইমাম আহমদ (র) বলেন, আবু সাঈদ
খুদরী (রা) রাসুলুল্লাহ (সা) থেকে বর্ণনা করেন, “একদিন মুসা (আ) বললেন, হে আমার
প্রতিপালকা তোমার মুমিন বান্দা দুনিয়াতে অভাবে-অনটনে দিন যাপন করে ৷ আল্লাহ বলেন,
তার জন্যে জান্নাতের একটি দ্বার খুলে দেয়া হবে তা দিয়ে সে জান্নাতের দিকে তাকাবে ৷
আল্লাহ্ তাআলা বলেন, হে মুসা! এটা হচ্ছে সেই বস্তু যা আমি তার জন্যে তৈরি করে
রেখেছি ৷” মুসা (আ) বলেন, হে আমার প্রতিপালক৷ তোমার ইয্যত ও পরাত্রুমের শপথ, যদি
তার দুই হাত ও দুই পা কাটা গিয়ে থাকে এবং তার জন্ম থেকে কিয়ামত পর্যন্ত যে হামাগুড়ি
দিয়ে চলে আর এটাই যদি তার শেষ গম্ভব্যস্থল হয়, তাহলে সে যেন কােনদিন কোন কষ্টই
ভোগ করেনি ৷” রাসুলুল্লাহ্ (সা) বলেন, “পুনরায় মুসা (আ) বলেন, হে আমার প্রতিপালক!
তোমার কাফির বন্দো দুনিয়ার প্রাচুর্যের মধ্যে রয়েছে ৷ ’ আল্লাহ্ তাআলা বলেন, তার জন্যে
জাহান্নড়ামের একটি দ্বার খুলে দেয়া হবে ৷’ আল্লাহ তাআলা বলেন, “হে মুসা ! এটা আমি তার
জন্যে তৈরি করে রেখেছি ৷’ মুসা (আ) বলেন, হে আমার প্রতিপালক! তোমার ইযযত ও
পরাক্রমের শপথ, তার জন্ম থেকে কিয়ামত পর্যন্ত যদি তাকে পার্থিব সম্পদ দেয়া হত, আর
এটাই যদি তার গস্তব্যন্থল হয় তাহলে সে যেন কখনও কোন কল্যাণ লাভ করেনি ৷ ” তার এ
হাদীসের সুত্রের বিশুদ্ধতার ব্যাপারে সন্দেহের অবকাশ রয়েছে ৷ আল্লাহই সম্যক জ্ঞাত ৷

ইবন হিব্বান (র) মুসা (আ) কর্তৃক আপন প্রতিপালকের কাছে এমন একটি যিকির
প্রার্থনা’ শিরোনামে আবু সাঈদ (রা) থেকে একটি হাদীস বর্ণনা করেন ৷ তিনি রাসুলুল্লাহ (সা)
থেকে এটি বর্ণনা করেন যে, একদিন মুসা (আ) আরব করলেন, হে আমার প্রতিপালক!
আামাকে এমন কিছু শিক্ষা দিন, যার মাধ্যমে আমি আপনাকে স্মরণ করতে পারি ও ডাকতে
পারি ৷ আল্লাহ্ তাআলা বলেন, হে মুসা ! তুমি বল, খু মুসা (আ) বললেন, হে
আমার প্রতিপালক! আপনার প্রত্যেক বান্দাই তো এই কলেমা বলে থাকে ৷ আল্লাহ তাআলা
বললেন, তুমি বলণ ব্ ! ১ণ্ মুসা (আ) বললেন, আমি এমন একটি কালেমা চাই যা
আপনি আমার জন্যেই বিশেষভাবে দান করবেন ৷ আল্লাহ তাআলা বললেন, হে মুসা যদি
সাত আসমান ও সাত যমীনের বাসিন্দাদেরকে এক পাল্লায় রাখা হয় এবং খু ৷ কলেমাকে
অন্য পাল্লায় রাখা হয় তাহলে এ৷ ১৷ ৭ ১৷ এর পাল্লাটি অপর পাল্লাটি থেকে অধিক ভারী
হবে ৷ এই হাদীসের সভ্যতার প্রমাণ ভ্ররএে আর অর্থের দিক দিয়ে এ হাদীসের
অতি নিকটবর্তী হল নিম্ন বর্ণিত হাদীস যা হাদীসের কিতাবগুলােতে বর্ণিত রয়েছে ৷ রাসুলুল্লাহ্
(সা) ইরশাদ করেন, সর্বোত্তম দুআ হচ্ছে, আরাফাত ময়দানের দুআ ৷

আমি ও আমার পুর্ববর্তী নবীগণের সর্বোত্তম বাণী হল :

অর্থাৎ এক আল্লাহ ব্যতীত অন্য কোন ইলাহ্ নেই, তিনি একক, অংশীদারহীন, র্তারই
জন্য যত প্রশংসা এবং তিনিই সর্বশক্তিমান এর তাফসীর প্রসঙ্গে ইবন আবু
হাতিম (র) ইবন আব্বাস (বা) হতে বর্ণনা করেন ৷ তিনি বলেন, বনী ইসরাঈল মুসা (আ )-কে
প্রশ্ন করলেন, তোমার প্রতিপালক কি ঘুমান? মুসা (আ) বললেন, তোমরা আল্লাহ্কে ভয় কর ৷
তখন তার প্রতিপালক তাকে ডেকে বললেন, হে মুসা ত ৷রা তোমাকে শ্চশ্নে করেছে তোমার
প্রতিপালক কি ঘুমান?৩ তাই তুমি তোমার দুই হাতে দুইটি বোতল ধারণ কর এবং রাত জাগরণ
কর ৷ মুসা (আ) এরুপ করলেন, যখন রাতের এক তৃতীয়াৎশ অতিক্রাম্ভ হল, তিনি তন্দ্রাচ্ছন্ন
হলেন এবং তার মাথা হীটুর উপর ঝুকে পড়ল ৷ অতঃপর তিনি সোজা হয়ে র্দাড়ালেন এবং
বোতল দু’ঢিকে মজবুত করে ধরলেন ৷ এরপর যখন শেষরাত হলো তিনি তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে
পড়লেন ৷ অমনি তার দুই হাতের দু’টি বোতল পড়ে গেল ও ভেঙ্গে গেল ৷
অতঃপর আল্লাহ্ তাআলা মুসা (আ)-কে বললেন, হে মুসা ! যদি আমি নিদ্রাচ্ছন্ন হতাম
তাহলে আসমান ও যমীন পতিত হত এবং তোমার হাতের বোতল দুটির ন্যায় আসমান-যমীন
ৎস হয়ে যেত ৷ বর্ণনাকারী বলেন, এই প্রেক্ষিতে আল্পাহ্ তাআলা রাসুল (সা) এর কাছে
আয়াতুল কুরসী নাযিল করেন ৷

ইবন জারীর (র) আবু হুরায়র৷ (রা) থেকে বর্ণনা করেন; তিনি বলেন, “আমি রাসুল
(না)-কে মিম্বরে বসে মুসা (আ)-এর ঘটনা বর্ণনা করতে শুনেছি ৷ রাসুলুল্লাহ (না) বলেন,
“একদিন মুসা (আ) এর অন্তরে এই প্রশ্ন উদিত হল যে, আল্লাহ্ তাআলা কি নািব্র৷ যান? তখন
আল্লাহ তড়া আলা তার কাছে একজন ফেরেশতাকে পাঠালেন, তিনি তাকে তিন রাত অনিদ্রা
অবস্থায় রা খলেন ৷ অতঃপর তাকে দুই হাতে দুটি কাচের বো তল দিলেন, আর এই দুটো
বোতলকে সযত্নে রা ৷খার নির্দেশ দিলেন ৷ অতঃপর তার ঘুম পেলেই দু টো হাত একত্র হয়ে
যাবার উপক্রম হত এবং৩ তিনি জেগে উঠতেন ৷ অতঃপর তিনি একটিকে অপরটির সাথে একত্রে
ধরে রাখতেন ৷ এমনকি শেষ পর্যন্ত তিনি ঘুমিয়ে পড়েন ৷ তার দুটো হাত কেপে উঠলাে এবং
দুটো বোতলই পড়ে ভেঙ্গে গেল ৷” রাসুল (সা) বলেন, আল্লাহ তাআলা মুসা (আ) এর জন্যে
এই একটি উদাহরণ বর্ণনা করেন যে, যদি আল্লাহ্ তা আলা নিদ্রা যেতেন তাহলে আসমান ও
যযীনকে ধরে রাখতে পারতেন না ৷

উপরোক্ত হাদীস মারকুরুপে গরীব পর্যায়ের ৷ তবে খুব সম্ভব এটা কোন সাহাবীর বাণী এবং

এর উৎস ইহুদীদের বর্ণনা ৷
আল্লাহ্ তাআলা ইরশ ৷দ করেনং :

স্মরণ কর যখন তোমাদের অঙ্গীকার নিয়েছিলাম এবং তৃরকে তোমাদের উর্ধে উত্তোলন

করেছিলাম; বলেছিলড়াম, আমি যা দিলাম দৃঢ়তার সাথে তা গ্রহণ কর এবং তাতে যা রয়েছে তা

স্মরণ রাখ ৷ যাতে তোমরা সাবধান হয়ে চলতে পার ৷ এটার পরেও তোমরা মুখ ফিরালে!

আল্লাহ্র অনুঘহ এবং অনুকম্প৷ তোমাদের প্ৰতি না থাকলে তে তামরা অবশ্য ক্ষতিগ্রস্ত হতে ৷
(সুরা বাকারা : ৬৩ ৬৪)

আল্লাহ্ তা ৷আলা ইরশ ৷ড়াদ করেন০ :

অর্থাৎ “স্মরণ কর, আমি পর্বতকে তাদের উর্ধে উত্তোলন করি ৷ আর তা ছিল যেন এক
র্চাদোয়৷ ৷ তারা ধারণা করল যে, এটা তাদের উপর পড়ে যাবে ৷ বললড়াম, আমি যা দিলাম তা
দৃঢ়ভাবে ধারণ কর এবং ওতে যা আছে তা স্মরণ করো, যাতে তোমরা তাকওয়ার অধিকারী
হও ৷ ” (সুরা আরাফ : ১৭১ )

আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা) ও প্রাচীন যুগের উলামায়ে কিরামের অনেকেই বলেন, মুসা
(আ) যখন তাওরাত সম্বলিত ফলক নিয়ে নিজ সম্প্রদায়ের কাছে আগমন করলেন তখন নিজ
সম্প্রদায়কে তা গ্রহণ করতে ও শক্তভাবে তা ধরতে নির্দেশ দিলেন ৷ তারা তখন বলল,
তাওরাতকে আমাদের কাছে খুলে ধরুন, যদি এর আদেশ নিষেধাবলী সহজ হয় তাহলে আমরা
তা গ্রহণ করব ৷ মুসা (আ) বললেন, তাওরাতের মধ্যে যা কিছু রয়েছে তা তোমরা কবুল কর ,
তারা তা কয়েকবার প্রত্যাখ্যান করে ৷ অতঃপর আল্লাহ্ তাআলা ফেরেশতাদেরকে হুকুম করেন
তারা যেন তুর পাহাড় বনী ইসরাঈলের মাথার উপর উত্তোলন করেন ৷ অমনি পাহাড় তাদের
মাথার উপর যেঘখণ্ডের ন্যায় ঝুলতে লাগল, তাদের তখন বলা হল, তোমরা যদি তাওরাতকে
তার সব কিছুসহ কবুল না কর এই পাহাড় তোমাদের মাথার উপর পড়বে ৷ তখন তারা তা
কবুল করল ৷ তাদেরকে সিজদা ৷করার হুকুম দেয়া হলো, তখন তারা সিজদা ৷করল ৷ তবে তারা
পাহাড়ের দিকে আড় নজরে৩ তাকিয়ে রয়েছিল ৷ ইহুদীদের মধ্যে আজ পর্যন্ত এরুপ বলাবলি
করে থাকে যে, যে সিজদার কারণে আমাদের উপর থেকে আমার বিদুরিত হয়েছিল তার থেকে
উত্তম সিজদা হতে পারে না ৷

আবু বকর ইবন আবদুল্লাহ (রা) থেকে বর্ণিত আছে ৷ তিনি বলেন, মুসা (আ) যখন
তাওরাতকে খুলে ধরলেন তখন পৃথিবীতে যত পাহাড়, গাছপালা ও পাথর রয়েছে সবই কস্পিত
হয়ে উঠল, আর দুনিয়ার বালক বৃদ্ধ নির্বিশেষে যত ইহুদীর কাছে তাওরাত পাঠ করা হল তারা
প্রকস্পিত হয়ে উঠল ও মাথা অবনত করল ৷
আল্লাহ তা জানা ইরশা ৷দ করেনশু

অর্থাৎ তোমরা এই মহাপ্রতিশ্রুতি ও বিরাট ব্যাপার দেখার পর তোমাদের অঙ্গীকার ও
প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করেছ ৷

আল্লাহ তাআল৷ পুনরায় বলেন ং
অর্থাৎ-ঢ তামাদের প্রতি ৩রাসুল ও কিতাব প্রেরণের মাধ্যমে যদি আল্লাহর অনুগ্রহ এবং
অনুকম্প৷ না থাকত তাহলে তোমরা অবশ্যই ক্ষতিগ্রস্ত হতে ৷

বনী ইসরাঈলের গাভীর ঘটনা

আল্লাহ তাআল৷ ইরশাদ করেন :
অর্থ্যৎ স্মরণ কর, যখন মুসা (আ) আপন সম্প্রদায়কে বলেছিল ৷ আল্লাহ তােমাদেরকে
একটি গরু যবেহ্র আদেশ দিয়েছেন ৷ তারা বলেছিল, তুমি কি আমাদের সঙ্গে ঠাট্টা করছ? মুসা
বলল, আল্লাহর শরণ নিচ্ছি যাতে আমি অজ্ঞদের অন্তর্ভুক্ত না হই ৷ তারা বলল, আমাদের জন্য
ণ্তামার প্রতিপালককে স্পষ্টভাবে জা ৷নিয়ে দিতে বল, ওটা কী রুপ? মুসা বলল, আল্লাহ বলেছেন,
এট৷ এমন গরু যা বৃদ্ধও নয়, অল্পবয়স্কও নয় মধ্যবয়সী ৷ সুতরাং৩ তে ৷মরা যা আদিষ্ট হয়েছ
তা কর ৷ তারা বলল, আমাদের জন্য তোমার প্রতিপ৷ ৷লককে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিতে বল , এটার
রং কিং মুসা বলল, আল্লাহ বলছেন, এট৷ হলুদ বর্ণের গরু, এটার রং উজ্জ্বল গাঢ়, যা
দর্শকদেরকে আনন্দ দেয় ৷’ তারা বলল, আমাদের জন্য তোমার প্রতিপালককে স্পষ্টভাবে
জানিয়ে দিতে বল , তা কােনৃটিং আমরা গরুটি সম্পর্কে সন্দেহে পতিত হয়েছি এবং আল্লাহ্ ইচ্ছে
করলে নিশ্চয়ই আমরা দিশা পাব ৷ মুসা বলল, তিনি বলছেন, ওটা এমন এক গরু যা জমি৷ চা যে
ও ক্ষেতে পানি সেচের জন্য ব্যবহৃত হয়নি, সুস্থ ও নিখুত ৷৩ তারা বলল, এখন তুমি সত্য
এনেছে৷ যদিও তারা যবেহ্ করতে প্রস্তুত ছিল না, তবুও তারা এটাকে যবেহ্ করল ৷ স্মরণ কর,
যখন তোমরা এক ব্যক্তিকে হত্যা করেছিলে এবং একে অন্যের প্রতি, দােষারোপ করছিলে ৷

তোমরা যা গোপন রাখছিলে, অ ল্লাহ তা ব্যক্ত করছেন ৷ আমি বললাম, এটার কে ন অংশ
দ্বারা ওকে আঘাত কর , এভাবে আল্লাহ মৃতকে জীবিত করেন এবং তার নিদর্শন তােমাদেরকে
দেখিয়ে থাকেন, যাতে তোমরা অনুধাবন করতে পার ৷ (২ : বাকারা : ৬৭ ৭৩)

আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা) উবাইদা সালমানী আবুল আলীয়৷ (র) মুজাহিদ আর সৃদ্দী
(র) ও প্রাচীনকালের অনেক আলিম বলেন, বনী ইসরা ঈলের মধ্যে এক ব্যক্তি ছিল খুবই ধনী ও
অতিশয় বৃদ্ধ ৷৩ তার ছিল বেশ কয়েকজন তা ৷তিজ৷ ৷ তারা তার ওয়ারিশ হবার জন্যে তার মৃত্যু
কামনা করছিল ৷৩ তাই একরাতে তাদের একজন তাকে হত্যা করল এবং তার লাশ চৌরাস্তায়
ফেলে রেখে এল ৷ আবার কেউ কেউ বলেন, তাতিজাদের একজনের ঘরের সামনে তা রেখে
এল ৷ ভোর বেলায় হত্যাকা ৷রী সম্বন্ধে লোকজনের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিল ৷৩ তার ঐভ
এসে কান্নাকাটি করতে লাগল এবংত ৷র উপরে জুলুম হয়েছে বলে অভিযোগ করতে লাগল ৷
অন্য লোকজন বলতে লাগল, তোমরা কেন ঝগড়া করছ এবং আল্লাহর নবীর কাছে গিয়ে কেন
এটার ফয়সালা প্রার্থনা করছ না? তাই মৃত ব্যক্তির তাতিজ৷ আল্লাহর নবী মুসা (আ)-এর কাছে
আগমন করে তার চাচার হত্যার ব্যাপারে অভিযোগ করল ৷ মুসা (আ) তাদেরকে আল্লাহ্
তা আলার শপথ দিয়ে বললেন, কেউ যদি এ বিষয়ে কিছু আসে তাহলে সে যেন বিষয়টি
আমাকে জানিয়ে দেয় ৷ কিভৃ তাদের মধ্যে এমন একটি লোকও পাওয়া (গল না, যে এ বিষয়ে
জানে ৷ তারা বরং মুসা (আ) কে অনুরোধ করল৩ তিনি যেন নিজ প্রতিপালককে এই বিষয়ে প্রশ্ন
করে তা জেনে নেন ৷ সুতরাং মুসা (আ) আপন প্রতিপালকের নিকট তা জ৷ নতে চান ৷

আল্লাহ্ তা আলা মুসা (আ) কে হুকুম দিলেন; যাতে তিনি তাদেরকে একটি গাভী যবেহ্

করতে আদেশ করেন তিনি বললেন০ ং

অর্থাৎ “নিশ্চয়ই আল্লাহ তে তামাদেরকে একটি গরু যবেহ্ করার নির্দেশ দিয়েছেন ৷ ” তারা ,
প্রতি উত্তরে বলল, তুমি কি আমাদের সাথে ঠাট্ট৷ ৷করছ? অর্থাৎ আমরা তোমাকে নিহত ব্যক্তি
প্রসঙ্গে প্রশ্ন করছি আর তুমি আমাদের গরু যবেহ্ করার পরামর্শ দিচ্ছ? মুসা (আ) বললেন,
আমার কাছে প্রেরিত ওহী ব্যতীত অন্য কিছু বলার ব্যাপারে আমি আল্লাহ্ তা আলার শরণ
নিচ্ছি ৷ তোমরা আল্লাহ তাআলাকে প্রশ্ন করার জন্যে আবেদন করেছ, আল্লাহ্ তাআলা প্রশ্নের
উত্তরে এটা বলেছেন ৷ আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা), উবায়দা, মুজাহিদ, ইকরিমা, আবুল
আলীয়৷ প্রমুখ বলেছেন, যদি তা ৷রা যে কো ন একটি গাভী যবেহ্ করত তাহলে তার দ্বারা তাদের
উদ্দেশ্য হাসিল হত ৷ কিন্তু তারা ব্যাপারটি জটিল করাতে তাদের কাছে এটা জটিল আকার
ধারণ করেছিল ৷ একটি মারফু হাসীসে এ সম্পর্কে বর্ণিত আছে তবে এটার সুত্রে কিছু ত্রুটি
রয়েছে ৷ অতঃপর তারা গরুঢির গুণাগুণ, রঙ ও বয়স সম্পর্কে প্রশ্ন করল এবং তাদেরকে
প্রতিপালক আল্লাহ্ তাআলার পক্ষ থেকে এমনভাবে জবাব দেয়া হল যে, এরুপ গরু খুজে
পাওয়াই দৃষ্কর হয়ে র্দাড়াল ৷ তাফসীর গ্রন্থে এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি ৷ বন্তুত
তাদেরকে একটি মধ্য বয়সী গরু যবেহ্ করার জন্যে হুকুম দেয়৷ হয়েছিল ৷ অন্য কথায়, এটা
বৃদ্ধও নয়, আবার অল্প বয়সীও নয় ৷

এই অভিম৩ টি আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা), মুজাহিদ, আবুল আলীয়া ই,ক,রামা হাসান
ক ৷তাদা (র) প্রমুখ তাফসীরবিদের ৷ তারপর তারা নিজেদের জন্য স ংকীংতিা ও জটিলতা ডেকে
আনল ৷ তারা গরুটির রং সম্বন্ধে প্রশ্ন করল ৷৩ তাই তাদেরকে এমন লোহিতাভ হলুদ রং-এর
কথা বলা হল, যা দর্শকদেরও আনন্দ দেয় ৷ এই বা টি একান্তই দুর্লভ ৷ এরপর তারা আরো
সংকীংতাি ও জটিলতা সৃষ্টি করে বলল, হে মুসা! তোমার প্রতিপালককে স্পষ্টভাবে জ লিখে
দিতে বল যে, তা কে ন্টিন্ আমরা গরুটি সম্পর্কে সন্দেহে পতি৩ হয়েছি এবং আল্লাহ্ ইচ্ছে
করলে নিশ্চয়ই আমরা দিশা পাব ৷ ’ এই প্রসঙ্গে ইবন আবু হড়াতিম (র) ও ইবন মারদুওয়েহ্
রাসুলুল্লাহ (না)-এর বরাতে একটি হাদীস বর্ণনা করেন যে, ইসরাঈল যদি গরু সম্বন্ধে পরিচিতি
লাভ করার ক্ষেত্রে ইনশাআল্লাহ্ না বলত তাহলে কখনও তাদেরকে এ কাজ সম্পাদন করার
জন্যে তাওফীক দেয়া হত না ৷ তবে এ হাদীসের বিশুদ্ধতাসন্দেহমুক্ত নয় ৷ আল্লাহ্ তাআলাই
অধিকতর জ্ঞাত

আল্লাহ তাআলা বলেনং :

অর্থ ৎ মুসা বলল, তিনি বলছেন, ওটা এমন এক গরু যা জমি চাষে ও ক্ষেতে পানি

সেচের জন্য ব্যবহৃত হয়নি ৷ সুস্থ, নিখুত ৷ ত বা বলল, এখন তুমি স এনেছ ৷ যদিও তারা
যবেহ্ করতে উদ্যত ছিলা না ৷ তবুও তারা তা যবেহ্ করল ৷ (সুরা : বাকারাং : ৬৮ ৭১)

উক্ত আয়াতে আরোপিত এ বৈশিষ্ট্যগুলো পুর্বের বৈশিষ্ট্যগুলোর তুলনায় আরো দৃম্প্রাপ্য
ছিল ৷ কেননা এতে শর্ত আরোপ করা হয়েছে যেন গরুটি জমি চাষ ও ক্ষেতে পানি সেচের জন্য
ব্যবহৃত হওয়ার ফলে দুর্বল ও অসুস্থ না হয়ে থাকে, এবং তা যেন সুস্থ, সরলহুণ্ ও নিখুত হয় ৷
এটি আবুল আলীয়া ও কাতাদা (র)-এর অভিমত ৷ আয়াতে উক্ত এর অর্থ হচ্ছে
এটার মধ্যে নিজা রঙ ব্যতীত এতে যেন অন্য কোন রঙ এর মিশ্রণ নাথাকে ৷ বরং এটা
যাবতীয় ঘোষ ও অন্য সব রঙয়ের মিশ্রণ থেকে যেন নিখুত হয় ৷ যখন গরুটিতে উল্লেখিত শর্ত
ও গুণসমুহ আরোপিত করা হল তখন তারা বলল, এখন তুমি সত এনেছ ৷ কথিত আছে যে,
তারা এসব গুণবিশিষ্ট গরুটি ঘোজাখুজি করে এমন এক ব্যক্তির ক ছে এটাকে পেয়েছিল, যে
ছিলেন অ ম্ভ পিতৃভক্ত ৷ তারা তার কাছ থেকে গরুটি কিনতে চাইল, কিন্তু সে তাদের কাভ্রু ছে
গরুটি বিক্রি করতে রাজি হল না ৷ তারা তাকে অত্যন্ত চড়ামুল্য দিয়ে গ্ারুটি খবিদ করল ৷
সুদ্দী (র) উল্লেখ করেছেন, তারা প্রথমত গরুটির সম-ওজনেরার্ণ দিয়ে গ্ারুটি ক্রয় করতে
চায় ৷ কিন্তু গরুর মালিক রাজি না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তার ওজনের দশগুণার্ণ দিয়ে তারা
গরুটি খবিদ করল ৷ অ৩ ংপর আল্লাহ্র নবী মুসা (আ) এটাকে যবেহ্ করার নির্দেশ দিলেন ৷
াতরা গরুটি যবেহ্ করার ব্যাপারে প্রথমত ইতস্তত করছিল ৷ পরে রাজি হল ৷ এরপর আল্লাহ
তাআলার তরফ থেকে হুকুম আসল যেন তারা নিহত ব্যক্তিটিকে যবেহ্ কৃত গরুটির কোন অঙ্গ
দ্বারা আঘাত করে ৷ কেউ কেউ বলেন, উরুর গোশত দ্বারা আঘাত করার কথা বলা হয়েছিল;
আবার কেউ কেউ কােমলান্থিদ্বারা, আবার কেউ কেউ দুই র্কাধের মধ্যবর্তী গোশত দ্বারা আঘাত

করার কথা বলা হয়েছিল বলে মত প্রকাশ করেন ৷ যখন তারা মৃত ব্যক্তিকে ওটার দ্বারা আঘাত
করল, তখন আল্লাহ তাআলা তাকে পুনর্জীবিত করলেন এবং লোকটি উঠে দীড়াল ৷ তার গলার
শিরা থেকে রক্ত ঝরছিল ৷ মুসা (আ)ত তাকে জিজ্ঞেস করলেন, কে তোমাকে হত্যা করেছে?’ সে
বলল’ তার পর সে পুর্বের মত অবস্থায় ফিরে গেল

আল্লাহ্ তা আলা বলেন০ ং

এভাবে আল্লাহ মৃতকে জীবিত করেন এবং তার নিদর্শন ৫৩ ড়ামড়াদের দেখিয়ে থাকেন যাতে
তোমরা অনুধাবন করতে পার ৷’ অর্থাৎ তোমরা যেমন আল্লাহ্ তা অ ৷লার হুকুমে নিহত ব্যক্তির
পুনর্জীবিত হওয়া প্রত্যক্ষ করলে, তেমনি আল্লাহ তাআলা এক মুহুর্তে সমস্ত মৃতকে যখন ইচ্ছে
তখন জীবিত করবেন ৷ যেমন আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন :

অর্থাৎ-তোমাদের সকলের সৃষ্টি ও পুনরুথান একটি মাত্র প্রাণীর সৃষ্টি ও পুনরুথানেরই
অনুরুপ ৷

অড়াল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া (১ম খণ্ড) ৮৩-

মুসা (আ) ও খিযির (আ)-এর ঘটনা

আল্লাহ্ তাআলা ইরশাদ করেন :

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.