হযরভ মূসা (আ)শ্এর পররডী বনী~ইসরাঈব.লর নৰীগণের বিবরণ

হযরত মুসা (আ)-এর পরবর্তী
বনী-ইসরড়াঈলের নবীগণের বিবরণ

আল্লামা ইবন জ বির (র)৩ তার ইতিহাস গ্রন্থে লিখেছেন, আমাদের এই উম্মতের মধ্যে
যেসব ইতিহাসবিদ ও আলিম প্রাচীন ইতিহাসের চর্চা করেছেন, তাদের সর্ববাদীসম্মত মতে,
ইউশা (আ) এর পরে কালিব ইবন ইউফান্না ( ৷ন্প্রুৰু ৰু, এ্ হ্র) বনী ইসরাঈলের নেতৃত্বে
সমাসীন হন ৷ কালিব ছিলেন মুসা (আ) এর অন্যতম শিষ্য এবং তার বোন মরিয়মের স্বামী ৷ ঐ
যুগে আল্লাহ ভীরু ব্যক্তিবর্গের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় দুই ব্যক্তি ছিলেন ইউশ ও কালিব ৷ বনী
ইসরাঈল যখন জিহাদে যেতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছিল তখন এ দু ব্যক্তি তাদের উদ্দেশ্য
বলেছিলেনঃ

তোমরা তাদের মুকাবিলা করে দ্বারে প্রবেশ কর, প্রবেশ করলেই তোমরা জয়ী হয়ে আর
তোমরা মু’মিন হলে আল্লাহর উপরই নির্ভর কর ৮ (মায়িদা : ২৩ )
ইবন জারীর বলেন, কালিবের পরে বনী ইসরাঈলের পরিচালক হন হিয্কীল ইবন ইউযী
৷ ইনি হচ্ছেন সেই হিয্কীল যিনি আল্লাহর নিকট দোয়া করার ফলে
আল্লাহ ঐ সব মৃত লোকদের জীবিত করে দিয়েছিলেন, যারা ৎথ্যায় হাজার-হাজার হওয়া
সত্বেও মৃত্যু-ভয়ে নিজেদের ঘর-বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছিল ৷

হিয্কীল (আ) এর বিবরণ

আল্লাহ্র বাণী :

তুমি কি তাদেরকে দেখনি যারা মৃত্যু-তয়ে হাজারে-হাজারে তাদের আবাস তুমি ত্যাগ
করেছিল? তারপর আল্লাহ্ তাদেরকে বলেছিলেন, “ণ্তামাদের মৃত্যু হোক ৷ তারপর আল্লাহ
তাদেরকে জীবিত করেছিলেন ৷ নিশ্চয়ই আল্লাহ মানুষের প্রতি অনুগ্রহশীল ; কিন্তু অধিকাৎশ
লোক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে না ৷ (২ বাকারা : ২৪৩)

মুহাম্মদ ইবন ইসহাক ওহার ইবন মুনড়াব্বিহ্ সুত্রে বর্ণনা করেছেন : ইউশার মৃত্যুর পর
ন্ কালিব ইবন ইউফান্ন৷ রনী-ইসরাঈলের নেতা হন এবং তার ইন্তিকালের পর হিঘৃকীল ইবন
ইউযী রনী ইসরাঈলের পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করেন ৷ এই হিযকীল ইরনুল আজুয তথা
বৃদ্ধার পুত্ররুপে পরিচিত, যার দােয়ায় আল্লাহ্ সে সব মৃত সোকদেরকে জীবিত করে
দিয়েছিলেন, যাদের ঘটনা পুর্বোক্ত আয়াতে উল্লেখিত হয়েছে ৷

ইবন ইসহাক বলেন, এসব লোক মহামাৰীর ভয়ে ঘর-বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায় এবং এক
প্রাম্ভরে উপনীত হয় ৷ আল্লাহ বললেন, তোমাদের মৃত্যু হোক ৷ ফলে তারা সকলেই তথায় মারা
যায় ৷ অবশ্য তাদের লাশগুলো হিংস্র জন্তুর করল থেকে রক্ষা করার জন্য বেষ্টনীর ব্যবস্থা করা
হয় ৷ এভাবে সুদীর্ঘকাল অতিক্রান্ত হয় ৷ একদা হযরত হিয্কীল তাদের নিকট দিয়ে অতিক্রম
করছিলেন ৷ তিনি থমকে দীড়ান ও চিন্তা করতে থাকেন ৷ এ সময় একটি গায়েবী আওয়াজের
মাধ্যমে তাকে জিজ্ঞেস করা হয়, আল্লাহ্ এ মৃত লোকগুলােকে তোমার সম্মুখে জীবিত করে দেন
তা কি তুমি চাওন্ হিয্কীল বললেন, জী হীড়া ৷ এরপর তাকে বলা হল, তুমি হাড়গুলোকে আদেশ
কর, যাতে সেগুলো গোশত দ্বারা আবৃত হয় এবং শিরাগুলো যেন পরস্পর সংযুক্ত হয়ে যায় ৷
আল্লাহর নির্দেশ অনুযায়ী হিযকীল হাড়গুলোকে সে আহ্বান করার সাথে সাথে লড়াশগুলো সবই
জীবিত হয়ে গেল এবং সমস্বরে তাকবীর ধ্বনি উচ্চারণ করল ৷

আসরড়াত ঐতিহাসিক সুদ্দী থেকে বিভিন্ন সুত্রে ইবন আব্বাস, ইবন মাসউদ প্রমুখ সাহাবী
থেকে উপরোক্ত আয়াতে উল্লিখিত ঘটনা সম্পর্কে
লিখেছেন : ওয়াসিত এর নিকটে অবস্থিত একটি জনপদের্বনাম ছিল দাওয়ার-দান এ)

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.