যিরার ইবন খাত্তাবের কবিতা

আল্লাহর কসম, আমার অন্তর ততক্ষণ পর্যন্ত চিন্তিত ও উদ্বিগ্ন থাকবে, যতক্ষণ পর্যন্ত
তোমরা খাযরাজ-এর উপর হামলা না করবে ৷
যিরার ইবন খাত্তাবের কবিতা

ইবন ইসহাক তার গ্রন্থে যুপরিকদের রচিত এমন কিছু কবিতা উল্লেখ করেছেন, যা বদর
যুদ্ধে তাদের নিহত ট্লাকদের শোকগাথা হিসেবে পরিচিত ৷ তার মধ্যে বনু মৃহারিব ইবন
ফিহ্রির লোক যিরার ইবন মুত্তালিব ইবন মিরদাস-এর নিম্নোক্ত কবিতাটি এখানে উল্লেখ করা
হল ৷ পরবর্তীতে যিরার ইসলাম গ্রহণ করেন ৷ সৃহায়লী তার রচিত রওযাতৃল উনুফ্ গ্রন্থে এমন
কিছু লোকের কবিতা সম্পর্কে আলোচনা করেছেন, যারা পরবর্তীতে ইসলাম গ্রহণ করেন ৷

অর্থ : আওস গোত্রের অহংকার দেখে আমি অবাক হয়ে যাই ৷ কেননা, আগামীকাল

তাদের উপরও মৃত্যুর চাকা ঘুরে আসবে ৷ আর কাল-পরিত্রুমার মধ্যে থাকে অনেক শিক্ষণীয়
বিষয় ৷

আমার আরও অবাক লাগে বনু নাজ্জারের অহংকার দেখে ৷ তাদের অহংকার এ কারণে যে,
বদর যুদ্ধে একটি জনগোষ্ঠী সম্পুর্ণভাবে বিধ্বস্ত হয়ে যায় ৷ আর তারা সেখানে বহাল তবিয়তে
রয়েছে ৷

আমাদের বংশের নিহত লােকগুলো যদি ধ্বংসপ্রাপ্ত অবস্থায় পড়ে থাকে, তবে তাতে কোন
চিন্তা নেই ৷ কেননা, তাদের পরে আমরা পুরুষরা তাে বেচেই আছি ৷ অচিরেই আমরা ধ্বংসাত্মক
হামলা চালাব ৷

১ ইবন হিশাম এর পরে নিম্নের ছন্দটি উল্লেখ করেছেন :
অর্থ৪ সে দৃ গোত্র আমার তাই তাদের পিতা ছাড়া অন্য কারও দিকে যাদের সম্পর্ক করা হয় না এবং যাদের
প্রতিবেশীরা তাদের প্রতি অপহরণের অভিযোগ দেয় না ৷

হে বনু আওস ৷ ক্ষুদ্র কেশর বিশিষ্ট দীর্ঘকায় তেজী ঘোড়া আমাদেরকে নিয়ে তোমাদের
মাঝে ঝাপিয়ে পড়বে এবং আমাদের ব্যথিত হৃদয় শান্তি পাবে ৷

আর সেই ঘোড়ায় চড়ে আমরা বনু নাজ্জারের মধ্যে ঢুকে পড়বাে ৷ এ ঘোড়াগুলো বর্শ৷ ও
বর্মধারীদেরও বহন করবে ৷

আমরা তাদেরকে ধ্রড়াশায়ী করে ফেলে রাখবাে, আর পাখীরা তাদের চার পাশে ঘিরে
থাকবে ৷ তখন মিথ্যা আশা ছাড়া তাদের অন্য কোন সাহায্যকারী থাকবে না ৷

ইয়াছরিব অঞ্চলের মহিলারা তাদের গােকে র্কাদবে ৷ সেখানেই তারা রাত কাটাবে এবং
নিদ্রাহীন অবস্থায় থাকবে ৷

আর ঐ অবস্থা এ জন্যে হবে যে, আমাদের তররারি সর্বদা তাদের রক্ত ঝরাঃত থাকবে,
যাদের সাথে এ তররারি যুদ্ধ করবে ৷

যদি তোমরা বদর যুদ্ধে জয়ী হয়ে থাক, তবে তা এ কারণে যে, আমাদেরই এক লোক
আহমদকে তোমরা পেয়ে থেছ আর তিনি তাে বিজয়ীই হন ৷

আর এমন কিছু লোকজন তার সাথে রয়েছে, যারা সমাজে উত্তম লোক হিসেবে বিবেচিত
এবং তার আপনজন ৷ বিপদ কালে তারা তাকে সাহায্য করেন ৷ কিন্তু মৃত্যু তো সবার জন্যে
অবধারিত ৷

তাদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন আবু বকর ও হামযা ৷ আর আলীকে ধরা হয় তাদের
মধ্যমণি রুপে যাকে তুমি স্মরণ করতে পার ৷

এদের দ্বারাই বিজয় লাভ করা সম্ভব হয়েছে ৷ বনু আওস ও বনু নাজ্জারের বংশোদ্ভুত
সন্তানদের দ্বারা বিজয় আসেনি যাদের নিয়ে ওরা পর্ব করে ৷

তুমি যখন বনু কাআব ও বনু আমিবের বংশপঞ্জি গণনা করবে, তখন দেখবে তাদের
উর্ধ্বতন পুরুষ হলেন লুয়াই ইবন পালিব ৷

এরা প্রতিটি যুদ্ধে অশ্বারোহীদের প্ৰতি তাক করে বর্শা নিক্ষেপকারী এবং কঠিন দৃর্যোগকালে
সদড়াচরণকারী ও পুণ্য সঞ্চয়কারী ৷

যিরারের উপরোক্ত কবিতার জবাবে কাআব ইবন মালিক যে কাসীদা আবৃত্তি করেন আমরা
কিছু পুর্বে তা উল্লেখ করেছি ৷ যার প্রথম কথা এই :

অর্থ : আমি আল্লাহ্র সিদ্ধান্ত দেখে বিস্মিত ৷ তিনি যা ইচ্ছা করেন তা বান্তবায়নে সক্ষম ৷
আল্লাহ্কে অক্ষম করার শক্তি কারও নেই ৷

ইবন ইসহাক বলেন : বদর যুদ্ধ প্রসঙ্গে আবু বকর শাদদড়াদ ইবন আসওয়াদ ইবন শুউব
নিম্নোক্ত কবিতা আবৃত্তি করেন ৷

লেখক বলেন : ইমাম বুখারী উল্লেখ করেছেন যে, আল্লাহ্ মুশরিক নারীকে মুমিন পুরুষের
জন্যে হারাম ঘোষণা করলে হযরত আবু বকর সিদ্দীক তার মুশরিকা ত্রী উম্মে বকরকে তালাক
দেন ৷ তখন শাদ্দাযা ইবন আসওয়াদ উক্ত উম্মে বকরকে বিবাহ করে ৷

(অর্থ ৪) উম্মে বকর তো লহা শান্তিতে জীবন যাপন করছে ৷ কিস্তু আমার স্ব-সম্প্রদায় ধ্বংস
হওয়ার পর আমার জীবনে কি কোন শাস্তি আছে ?

বদরের কুয়োর কাছে গায়িকা ও মদ্যপায়ীদের কী অবস্থাই না হয়েছে ৷

বদরের কুয়োর কাছে আবলুস কাঠের পাত্রে উচু করে ভর্তি করা কুজের গােশতের কী
দশাই না হল !

বদরের পাড় বীধা কুয়োর কাছে কত যে মুক্ত উট ও চতুষ্পদ জন্তুর পাল ছিল !

বদরের পাড় বাধা কুয়োর কাছে কী পরিমাণ দুর্বার শক্তি ও বড় বড় পেয়ালা ছিল !

আর সেখানে সম্রাম্ভ আবু আলীর কত যে সঙ্গী ছিল যারা ছিল তার উৎকৃষ্ট মদের
আসরের বন্ধু-বান্ধব ৷

তুমি যদি দেখতে আবুআকীল ও নিয়াম পর্বতদ্বয়ের মধ্যবর্তী উপত্যকায় অবস্থানকারীদের
তৎপরতা ৷

তবে তুমি সেখানে যাদেরকে পেতে তাদের উপর তুমি যেতে উঠতে ৷ যেভাবে উটের
বাচ্চার যা তার উদ্দেশ্য পুরণের জন্যে যেতে ওঠে ৷

রাসুল আমাদের জানাচ্ছেন যে, অচিরেই আমাদেরকে আবার জীবিত করা হবে ৷ কিন্তু
মৃতদের বিচুর্ণ হাড় ও মাথার খুলি কীভাবে জীবন লাভ করতে পারে ?

ইমাম বুখারী তার সহীহ্ গ্রন্থে এই কাসীদার কিছু অংশ উদ্ধৃত করেছেন যাতে কবির
মানসিকতা প্রকাশ পায় ৷

উমাইয়া ইবন আবুসৃ সালতের কবিতা

ইবন ইসহাক বলেন : বদর যুদ্ধে নিহত কুরায়শদের জন্যে শোক প্রকাশ করে উমাইয়া
ইবন আবুস সালত নিম্নের কাসীদাটি আবৃত্তি করেন :

(অর্থ ৪) কেন তুমি র্কাদছো না সস্রান্ত পরিবারের স্ন্তুাম্ভ সন্তানদের জন্যে যারা প্রশংসা
পাওয়ার অধিকারী ৷

যেমন কেদে থাকে কবুতর বৃক্ষের ঝুলন্ত তালে বসে

পুঞ্জীভুত যস্ত্র০া৷য় সে কাদতে থাকে এবং সন্ধ্যাকালে অন্যান্য প্রত্যাবর্তাজ্বকারীদের সাথে
সেও প্রত্যাবর্তন করে ৷

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Pin It on Pinterest

Hatay masaj salonu Diyarbakır masaj salonu Adana masaj salonu Aydın masaj salonu Kocaeli masaj salonu Muğla masaj salonu Yalova masaj salonu Gaziantep masaj salonu Kütahya masaj salonu Elazığ masaj salonu Bursa masaj salonu Konya masaj salonu Samsun masaj salonu Mersin masaj salonu Manisa masaj salonu Afyon masaj salonu Kütahya masaj salonu Çanakkale masaj salonu Edirne masaj salonu Yozgat masaj salonu Çorum masaj salonu>